আজ মহাষষ্ঠী, শারদীয় দুর্গোৎসব শুরু

স্টাফ রিপোর্টার
প্রকাশ: ৪ মাস আগে

হিন্দু সম্প্রদায়ের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব দুর্গাপূজা শুরু হয়েছে। উলুধ্বনি, শঙ্খ, ঘণ্টা আর ঢাক-ঢোলের বাদ্যে মহাষষ্ঠীর বোধনের মধ্য দিয়ে শুরু হয়েছে দুর্গোৎসব। আগের বছরগুলোতে করোনা মহামারির কারণে পূজার আনন্দে ছিল অনেকটাই ফিকে। তবে সেই বিবর্ণ সময় পেরিয়ে দুর্গোৎসব জমজমাট হবে বলে আশা হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের।

শনিবার (১ অক্টোবর) সকাল ৮টা ১৫ মিনিটে ঢাকেশ্বরী মন্দিরে দেবীর ষষ্ঠাদি কল্পারম্ভের মধ্য দিয়ে শুরু হয় মহাষষ্ঠীর আনুষ্ঠানিকতা।

এ সময় ঢাক-ঢোলের বাজনা, কাঁসা, শঙ্খের আওয়াজ এবং ভক্তদের উলুধ্বনিতে দেবী দুর্গাকে অশুভ শক্তির বিনাশে ধরাধামে স্বাগত জানানো হয়। সন্ধ্যায় হবে দেবীর আমন্ত্রণ ও অধিবাস। ঢাকেশ্বরী মন্দিরে সকাল থেকেই মানুষের ঢল নেমেছে। উৎসব-আনন্দে মেতে উঠতে দেখা গেছে শিশু-কিশোর ও তরুণ-তরুণীসহ সব বয়সী মানুষকে। মন্দিরে প্রবেশ করার জন্য রয়েছে নারী ও পুরুষের আলাদা লাইন।

পঞ্জিকা অনুযায়ী, এবার দেবী মর্ত্যে আসছেন গজে (হাতিতে) চেপে। গজ বা হাতিতে চড়ে দেবীর আগমনের অর্থ হল শুভ। মনে করা হয়ে থাকে দেবী যদি গজে চড়ে মর্ত্যে আসেন তাহলে তিনি সঙ্গে করে সুখ-সমৃদ্ধি নিয়ে আসেন। হাতি হচ্ছে জ্ঞান এবং সমৃদ্ধির প্রতীক। আর ৫ অক্টোবর বিজয়া দশমীতে দেবী মর্ত্য ছাড়বেন নৌকায় চড়ে। নৌকায় মনোকামনা পূর্ণ হওয়া বোঝানো হয়। ধরিত্রী হয়ে ওঠে শস্য শ্যামলা। কিন্তু সেই সঙ্গে অতি বর্ষণ বা প্লাবনের আশঙ্কাও দেখা যায়।

পঞ্জিকা অনুযায়ী, শনিবার মহাষষ্ঠীর সকাল, দুর্গা দেবীর ষষ্ঠাদি কল্পারম্ভ এবং ষষ্ঠিবিহিত পূজা, সন্ধ্যায় হবে দেবীর বোধন, আমন্ত্রণ ও অধিবাস। রোববার মহাসপ্তমী পূজা, সোমবার মহাষ্টমী, মঙ্গলবার মহানবমী এবং বুধবার দশমীবিহিত পূজার মধ্য দিয়ে সমাপন ও প্রতিমা বিসর্জন হবে।

গত বছরের চেয়ে এবার বেড়েছে মণ্ডপের সংখ্যা। জাঁকজমকপূর্ণ আয়োজনে দেবীবন্দনায় সনাতন ধর্মাবলম্বীরা। পূজা উদযাপন পরিষদের হিসাব মতে, দেশে এবার প্রায় ৩২ হাজার ১৬৮ মণ্ডপে দুর্গাপূজা হচ্ছে। এই সংখ্যা গতবারের চেয়ে ৫০টি বেশি। ঢাকা মহানগরে এবার পূজা হবে ২৪১টি মণ্ডপে যা গতবারের চেয়ে ৬টি বেশি। গতবার সারাদেশে পূজা মণ্ডপের সংখ্যা ছিল ৩২ হাজার ১১৮টি।

বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ড. চন্দ্রনাথ পোদ্দার বলেন, আমরা এবার আশাবাদী। সরকার আন্তরিক, প্রশাসনও আন্তরিক। আমাদের দিক থেকে সর্বোচ্চ প্রস্তুতি আছে।

ঢাকা মহানগর সার্বজনীন পূজা কমিটির সাধারণ সম্পাদক রমেন মণ্ডল বলেন, হিন্দু সম্প্রদায়ের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দুর্গাপূজা। ষষ্ঠীতে বোধনের মধ্যে দিয়ে শুরু হয়েছে দুর্গা পূজা। করোনা মহামারীর পরে পূজা নিয়ে এবার আমাদের খুব উদ্দীপনা রয়েছে। পূজায় মেলা কমবেশি থাকবে। এর সাথে এবার আরতি প্রতিযোগিতাও থাকবে।