ইউপি নির্বাচনে সহিংসতার জেরে- দেবিদ্বারে নামাজরত অবস্থায় স্বামী-স্ত্রীকে কুপিয়ে জখম

স্টাফ রিপোর্টার
প্রকাশ: ৩ মাস আগে

স্টাফ রিপোর্টার।।

কুমিল্লায় তারাবি নামাজরত অবস্থায় স্বামী-স্ত্রীকে কুপিয়ে জখমের অভিযোগ পাওয়া গেছে। দেবিদ্বার উপজেলার ইউছুফপুর ইউনিয়নের শিবপুর গ্রামে এই ঘটনা ঘটে। নির্বাচনী সহিংসতার জেরে এই ঘটনা ঘটেছে বলে জানা গেছে।
স্থানীয়রা জানান, ‘শুক্রবার (৮ এপ্রিল) রাতে নিজ ঘরে তারাবি নামাজ পড়ছিলেন এতিম আলী (৫০) ও তার স্ত্রী হেলেনা আক্তার (৪২)। এসময় ইউনিয়ন নির্বাচনে পরাজিত প্রার্থী সমর্থকরা এসে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে দু’জনকে জখম করে চলে যায়।’ এর আগে ৯মার্চ একই গ্রুপের হামলায় নিহত হয়েছেন নুরে আলম (২৫) নামে এক যুবক।

আহত স্বামী-স্ত্রীকে দেবিদ্বার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে অবস্থার অবনতি হলে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়।

এই দিকে, গত ৭ ফেব্রুয়ারী দেবিদ্বার উপজেলায় ইউপি নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। ৮ ফেব্রুয়ারী ইউছুফপুর ইউনিয়নের ৭নং ওয়ার্ড পরাজিত মেম্বার প্রার্থী আবুল কালাম আজাদের সমর্থকরা হামলা চালায় বিজয়ী প্রার্থী আনোয়ার হোসেনের সমর্থকদের উপর। এতে গুরুতর আহত হয় নুরে আলম সহ ১৫ জন।

ঘটনায় উভয়পক্ষ ৯ ফেব্রুয়ারি দেবিদ্বার থানায় হত্যা চেষ্টা মামলা দায়ের করেন।

এদিকে, এক মাস চিকিৎসা শেষে ৯মার্চ ঢাকা মেডিকেলে মৃত্যু হয় ঘটনায় আহত নির্বাচিত মেম্বার সমর্থক নুরে আলমের।

বিজয়ী মেম্বার আনোয়ার হোসেন বলেন, ‘নির্বাচনে পরাজিত হয়ে আবুল কালাম আজাদ ও তার সমর্থকরা উগ্র হয়ে উঠেছে। এর আগে ওরা আমাদের এক সমর্থককে হত্যা করেছে। ওরা বলছে, হত্যা যেহেতু করছে আরো মানুষ মেরে জরিমানা দিবে।’

অপরদিকে, সহিংসতার ঘটনায় জহির মারুফ নামে একজন সংবাদকর্মী দিয়ে সমঝোতার হুমকি দেওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

আহত এতিম আলীর চাচাতো ভাই দেলোয়ার হোসেন জানান, কুমিল্লা নগরীর পরিচয়ে জহির মারুফ নামে একজন সাংবাদিক বিষয়টি সমোঝোতার কথা বলেছেন। শনিবার বিকেলে ০১৭৬০১৯১১৮৪ নাম্বার থেকে কল দিয়ে বলেন, আপনি বিষয়টি নিয়ে বাড়াবাড়ি করছেন কেন? কিসের ক্ষমতা দেখান। আপনি সমঝোতায় চলে যান।

এদিকে ঘটনার পর থেকে পলাতক রয়েছেন অভিযুক্ত মেম্বার আবুল কালাম আজাদ। একাধিকবার তার সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলেও, ফোনটি বন্ধ পাওয়া যায়।

দেবিদ্বার থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আরিফুর রহমান বলেন, ‘স্থানীয় প্রতিনিধিদের থেকে জানতে পেরেছি এরা যাযাবর স্বভাবের। ঘটনার তদন্তে আমাদের টিম কাজ করছে। অপরাধী কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না।’