ঈদযাত্রার অগ্রিম ট্রেনের টিকিট পেতে কাউন্টারে ভিড়

স্টাফ রিপোর্টার
প্রকাশ: ১ মাস আগে

ঈদুল আজহা উপলক্ষে ট্রেনের অগ্রিম টিকিট কিনতে রেলস্টেশনের কাউন্টারগুলোতে ভিড় করছেন ঘরমুখো মানুষ। শুক্রবার সকাল ৮টায় কমলাপুরসহ রাজধানীর ছয়টি ও জয়দেবপুর রেলস্টেশনের কাউন্টারে মানুষের ভিড় দেখা গেছে। টিকিট বিক্রি চলবে ৫ জুলাই পর্যন্ত।

বাংলাদেশ রেলওয়ে বলছে, এবার রাজধানী থেকে প্রতিদিনের জন্য ২৬ হাজার ৭১৩টি আসনের টিকিট বিক্রি হবে। এসব টিকিটের ৫০ শতাংশ রেলস্টেশনের কাউন্টারে এবং ৫০ শতাংশ অনলাইনে বিক্রি করা হবে।

শুক্রবার সকালে রাজধানীর কমলাপুর স্টেশন ঘুরে দেখা যায়, স্টেশনটির ১৬টি কাউন্টার থেকে ঈদের অগ্রিম টিকিট বিক্রি শুরু হয়েছে। এর মধ্যে দুটি কাউন্টার নারী ও বিশেষ চাহিদাসম্পন্ন ব্যক্তিদের জন্য আলাদা রয়েছে। রেলস্টেশনের কাউন্টারগুলোতে মানুষের উপচেপড়া ভিড় লক্ষ করা গেছে।

দেখা গেছে, ভোর থেকে অগ্রিম টিকিটের জন্য টিকিটপ্রত্যাশীরা লাইনে আছেন। টিকিটপ্রত্যাশীদের লাইন কাউন্টারের সামনে থেকে স্টেশনের বাইরে চলে গিয়েছে।

টিকিটপ্রত্যাশী মামুন হাসান বলেন, যাতায়াত নিশ্চিত করতে অগ্রীম টিকিট কিনতে কাউন্টারে আসতে হয়েছে। অনলাইনে দ্রুত টিকিট বিক্রি হয়ে যায়। তাই বাধ্য হয়ে কাউন্টারে ভিড়ের মধ্যে দাঁড়াতে হয়েছে।

বাংলাদেশ রেলওয়ের তথ্যানুযায়ী, আজ (১ জুলাই) দেওয়া হচ্ছে ৫ জুলাইয়ের ট্রেনের টিকিট, ২ জুলাই দেওয়া হবে ৬ জুলাইয়ের টিকিট, ৩ জুলাই দেওয়া হবে ৭ জুলাইয়ের টিকিট, ৪ জুলাই দেওয়া হবে ৮ জুলাইয়ের টিকিট এবং ৫ জুলাই দেওয়া হবে ৯ জুলাইয়ের ট্রেনের টিকিট। এছাড়া ফিরতি টিকিট বিক্রি শুরু হবে ৭ জুলাই থেকে। ওইদিন ১১ জুলাইয়ের টিকিট বিক্রি হবে। ৮ জুলাই দেওয়া হবে ১২ জুলাইয়ের টিকিট, ৯ জুলাই দেওয়া হবে ১৩ জুলাইয়ের টিকিট, ১১ জুলাই ১৪ এবং ১৫ জুলাইয়ের টিকিট বিক্রি হবে। তবে ১১ জুলাই সীমিত কয়েকটি আন্তঃনগর ট্রেন চলাচল করবে। তবে ১২ জুলাই থেকে সব ট্রেন চলাচল করবে।

এদিকে, স্টেশন ও যাত্রীদের সার্বিক নিরাপত্তায় জন্য আর. এন. বি কন্ট্রোল রুম, পুলিশ কন্ট্রোল রুম এবং র‍্যাবের কন্ট্রোল রুম বসানো হয়েছে।