উল্টোপথে মহাসড়কে দেদারসে চলছে বাইক, রিকশা ও সিএনজি

এম হাসান ।।
প্রকাশ: ২ সপ্তাহ আগে

কয়েক মিনিট সময় বাঁচানোর জন্য মোটরসাইকেল চালকেরা উল্টো পথে ছুটছেন। ব্যক্তিগত গাড়ি, সিএনজিচালিত অটোরিকশাসহ অন্যান্য যানবাহনও সুযোগ বুঝে উল্টো পথে চলছে। ভিআইপির গাড়িবহরও উল্টো পথে চলতে দেখা যায়। পুলিশ জরিমানা করলেও উল্টো পথে চলা গাড়ির সংখ্যা কমছে না।
মঙ্গলবার কুমিল্লা ঢাকা মহাসড়কের অন্তত ৫ টি জায়গায় ঘুরে দেখা গেছে এমন চিত্র। রিকশা এবং মটরসাইকেলের সংখ্যাটা বেশি দেখা গিয়েছে। মোটরসাইকেলে তিনজন করে, হেলমেট না থাকার দৃশ্য দেখা গেছে মহাসড়কের বিভিন্ন পয়েন্টে।
কুমিল্লা আলেখারচর বিশ্বরোড থেকে নাজিয়া বাজার পর্যন্ত কোথায় ইউটার্ন না থাকায় আলেখারচর থেকে কুমিল্লা ক্যান্টনমেন্ট এলাকার নিশ্চিন্তপুর যাওয়ার জন্য উল্টো পথে চলাচল করে প্রাইভেটকার,মটরসাইকেল, সিএনজি ও রিকশা।
এ ছাড়া অনেক মোটরসাইকেলচালককে দেখা গেছে হেলমেট মাথায় না দিয়ে মোটরসাইকেলের হাতলে হেলমেট ঝুলিয়ে রাখতে।
উল্টো পথে মোটরসাইকেল চালানো এক ব্যক্তি নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, সময় বাঁচানোর জন্য উল্টো পথে যাই । এটি অনেক বিপজ্জনক এবং দণ্ডনীয় জেনেও তিনি এ কাজ করেন।
অটো রিকশা চালক আমান উল্লাহ বলেন সামনে দোকানে মালামাল দিব । নাজিড়া বাজার দিয়ে ঘুরে আসতে অনেক সময় লাগে তাই ঝুঁকি আছে যেনেও উল্টো পথে যাচ্ছি । পুলিশ ধরলে জরিমানা করে । জীবনের ঝুঁকি তো আছেই।
ময়নামতি ক্রসিং হাইওয়ে থানার অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ ইকবাল বাহার মজুমদার বলেন আমরা মহাসড়কে নিয়মিত অভিযান চালিয়ে যাচ্ছি। মহাসড়কে সিএনজি, অটোরিকশা ও হেলমেট ছাড়া দেখলেই মামলা দেয়া হচ্ছে।
কুমিল্লা হাইওয়ে পুলিশ সুপার মোঃ খাইরুল আলম বলেন প্রতিনিয়ত মহাসড়কের বিভিন্ন পয়েন্টে থ্রি হুইলার ও উল্টো পথে গাড়ি চলাচল করার জন্য মামলা ও জরিমানা করা হচ্ছে। আমরা সবসময় চেষ্টা করছি । তবে মানুষকে সচেতন হতে হবে। মহাসড়কে কোন পুলিশ সদস্য কোন চালকের কাছ টাকা আদায় করে না । কেউ প্রমাণ করতে পারলে তাকে পুরস্কৃত করব।