একটি ফোনকলই কি পাল্টে দিয়েছে ফলাফল ? জানালেন রিটার্নিং কর্মকর্তা

কুসিক নির্বাচন :
স্টাফ রিপোর্টার
প্রকাশ: ৬ মাস আগে

বিচ্ছিন্ন কয়েকটি ঘটনা ছাড়া অত্যান্ত শান্তিপূর্ণ ভাবে অবাধ ও নিরপেক্ষ পরিবেশে বুধবার দিনভর কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশনের নির্বাচন হওয়ার পর দুই পক্ষের অসহিঞ্চু মনোভাবের কারণে ফলাফল ঘোষনার শেষ পর্যায়ে এসে পরিস্থিতির অবনতি ঘটে। ফলাফল ঘোষনার এক পর্যায়ে ফোনে কথা বলেন রিটার্নিং কর্মকর্তা শাহেদুন্নবী চৌধুরী। এই ফোনকলই বিপত্তি ও সন্দেহ তৈরী করে সর্বত্র। রিটার্নিং কর্মকর্তা কাকে,কেন এবং কোন পরিস্থিতি সেই সময় ফোন করেছিলেন বৃহস্পতিবার দুপুরে নিজ কার্যালয়ে তা জানিয়েছেন গণমাধ্যম কর্মীদের।
পোনে এক ঘণ্টা ফলাফল ঘোষণা কেন বিরত ছিল এ বিষয়ে জানতে চাইলে রিটার্নিং কর্মকর্তা শাহেদুন্নবী চৌধুরী বলেন, এটার পেছনে অন্য কোনো উদ্দেশ্য ছিল না। তখন পরিস্থিতি প্রতিকূলে ছিল বিধায় সময় লেগেছে। দুই পক্ষই অপ্রীতিকর পরিস্থিতি তৈরি করেছিল।
স্বতন্ত্র প্রার্থী মনিরুল হক সাক্কু অভিযোগ করেছেন, আপনার কাছে একটা ফোন কল আসার সাথে সাথেই আপনি ইঞ্জিনিয়ারিং করে তাকে ফেল করে দিয়েছেন এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি জানান, কথাটি সম্পূর্ন অসত্য। যখন দেখলাম পরিস্থিতি আরো প্রতিকূলে চলে যাচ্ছে তখন আমি সিইসি স্যার, ডিসি ও এসপির সাথে ফোনে কথা বলে পরিস্থিতি ব্যাখ্যা করেছিলাম। এ সময় অন্য কারো সাথে আমি ফোনে কথা বলিনি। ইচ্ছে করলে কল রেকর্ডে দেখতে পারেন।
পরাজিত প্রার্থী মনিুরুল হক সাক্করু অভিযোগ সম্পর্কে তিনি আরো বলেন, তার কাছে তো ১০৫টি কেন্দ্রের ফলাফল আছে। তিনি যদি মনে করেন যে, ফলাফল সঠিক হয়নি। তাহলে তিনি আইনের আশ্রয় নিতে পারেন। কিন্তু আমার এখানে পূনরায় ফলাফল ঘোষনার কোন সুযোগ নেই।
আরেক প্রশ্নের জবাবে রিটার্নিং কর্মকর্তা জানান, আমি মনিরুল হক সাক্কুকে ফোন দিয়ে ফলাফল কেন্দ্রে কেন আনব। তিনি যদি এই কথা আমাকে ইংগিত করে বলে থাকেন তাহলে মিথ্যা বলেছেন।
উল্লেখ্য, ১৫জুন বুধবার কুমিল্লা সিটি করপোরেশন নির্বাচনে দিনভর শান্ত পরিবেশে ভোটের পর রাতে প্রথমে ১০১টি কেন্দ্রের ফলাফল এক এক করে ঘোষনা করেন। পরে ৪৫ মিনিট বিরতী দিয়ে এক সাথে ১০৫টি কেন্দ্রের ফলাফল ঘোষনা করেন। ৪টি কেন্দ্রের ফলাফল এক সাথে ঘোষনা করাটাকেই সন্দেহ হিসেবে দেখছেন পরাজিত প্রার্থীর কর্মী সমর্থকরা। রাত সাড়ে ৯টার দিকে জেলা শিল্পকলা একাডেমিতে স্থাপিত ফলাফল সংগ্রহ ও পরিবেশন কেন্দ্র থেকে রিটার্নিং কর্মকর্তা শাহেদুন্নবী চৌধুরী৩৪৩ ভোটে নৌকার রিফাতকে বিজয়ী হিসেবে ঘোষনা করেন।
রিটার্নিং কর্মকর্তার ঘোষিত ফল অনুযায়ী, ১০৫ কেন্দ্রে আওয়ামী লীগ প্রার্থী আরফানুল হক রিফাত পেয়েছেন ৫০ হাজার ৩১০ ভোট। স্বতন্ত্র প্রার্থী মেয়র সাক্কু টেবিল ঘড়ি প্রতীকে পেয়েছেন ৪৯ হাজার ৯৬৭ ভোট। তৃতীয় স্থানে থাকা নিজাম উদ্দিন কায়সার ঘোড়া প্রতীকে পেয়েছেন ২৯ হাজার ৯৯ ভোট।
এ দিকে, ফলাফল ঘোষনার পরই সাবেক মেয়র মনিরুল হক সাক্কু অভিযোগ করে আসছেন আমি এই ফলাফল প্রত্যাখান করছি। আমাকে ইঞ্জিনিয়ারিং করে হারানো হয়েছে। আমি আইনের আশ্রয় নেব। তবে বৃহস্পতিবার এই রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত ফলাফল চ্যালেঞ্জ করে কোন মামলা করেননি মনিরুল হক সাক্কু।