কুমিল্লায় এবার সেই ব্যবসায়ীর বিরুদ্ধে পরাজিত কাউন্সিলর প্রার্থীর পাল্টা সংবাদ সম্মেলন

শাহ আলমের দাবি ব্যবসায়ী মুন্না তাঁর উপর হামলা চালিয়েছেন
স্টাফ রিপোর্টার
প্রকাশ: ১ মাস আগে

সদ্য অনুষ্ঠিত কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশন (কুসিক) নির্বাচনে নগরীর ৭ নম্বর ওয়ার্ডে আওয়ামী লীগ সমর্থিত কাউন্সিলর প্রার্থী শাহ আলম খান ব্যবসায়ী নাছির খান মুন্নার বাড়িতে হামলা চালিয়েছেন বলে শুক্রবার বিকেলে এক সংবাদ সম্মেলনে অভিযোগ করেন মুন্না। এতে মুন্না আরও দাবি করেন, পরাজিত ওই কাউন্সিলর প্রার্থী তাঁর পরিবারের কাছে ‘নির্বাচনে খরচ হওয়া’ এক কোটি টাকা চাঁদা দাবি করেছে।
ব্যবসায়ী নাছির খান মুন্না জেনিস গ্রুপের চেয়ারম্যান। কাউন্সিলর প্রার্থী শাহ আলম খান ৭ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতির পদে রয়েছেন। এছাড়া ওই ওয়ার্ডে দুইবার কাউন্সিলর ছিলেন তিনি। এবারও তিনি দলের সমর্থন পেয়ে পরাজিত হন।
শনিবার দুপুরে নগরীর ৭ নম্বর ওয়ার্ডের অশোকতলা এলাকায় নিজ বাসভবনে ব্যবসায়ী মুন্নার করা সংবাদ সম্মেলনের প্রতিবাদে পাল্টা সংবাদ সম্মেলন করেছেন শাহ আলম খান। এর আগে শুক্রবার বিকেলে নগরীর একই এলাকায় নিজ বাসভবনে শাহ আলম খানের বিরুদ্ধে সংবাদ সম্মেলন করেন ব্যবসায়ী নাছির খান মুন্না।
সংবাদ সম্মেলন শাহ আলম খান বলেন, নাছির খান মুন্না আমার ভাতিজা। কিন্তু সে আমাদের কারো ভালো দেখতে পারে না। ২০১২ ও ২০১৭ সালের সিটি নির্বাচনেও সে আমাকে ফেল করানোর জন্য আমার বিরুদ্ধে প্রার্থী দাঁড় করিয়েছিলো। এবারের নির্বাচনে আশোকতলার সর্বস্তরের লোকজন মিটিং করে আমাকে সমর্থন দেয়। কিন্তু এরপরও মুন্নাসহ কয়েকজন মিলে ষড়যন্ত্র করে আমাকে ফেল করিয়েছে। তারা আমার সঙ্গে নয়, আশোকতলার মাটির সঙ্গে বেঈমানি করেছে। নির্বাচনের পর থেকেই মুন্না আমাকে বিভিন্নভাবে হুমকি দিচ্ছে। ফেসবুকে আমার বিরুদ্ধে বিভিন্ন অপপ্রচার চালাচ্ছে।
শাহ আলম খান আরও বলেন, শুক্রবার মুন্না সংবাদ সম্মেলন করে আমার বিরুদ্ধে অভিযোগ করেছে- আমি নাকি বৃহস্পতিবার রাতে তার বাড়িতে হামলা করেছি এবং তাদের কাছে এক কোটি চাঁদা চেয়েছি। আপনাদের কাছে আমার প্রশ্ন- নির্বাচনে হেরে গেলে কেউ চাঁদা চায়, এমন নজির কোথাও আছে? আর আমি কেমন সেটা কুমিল্লার মানুষ জানে। সে আমার বিরুদ্ধে অপপ্রচার চালিয়ে আমার সম্মানহানি করছে। আর আমি তাদের বাড়িতে কোন হামলা চালাইনি। বরং নাছির খান মুন্না বহিরাগত সন্ত্রাসী নিয়ে আমার উপর হামলা চালিয়েছে। মুন্না ঢাকায় থাকে। বৃহস্পতিবার কুমিল্লা ফিরে কয়েকটি স্থানে মিটিং করে আমার উপর হামলার পরিকল্পনা করেছে। এরপর রাতে বাড়ির সামনে আমার উপর হামলা করে এখন নিজেকে বাঁচাতে উল্টো দোষ চাপানোর চেষ্টা করছে। আমি তার বিচার চাই। এ ঘটনায় আমি মামলার প্রস্তুতি নিয়েছি।
সংবাদ সম্মেলনে শাহ আলম খানের স্ত্রী আলেয়া খানম পলাশ ও তাঁর নিকটাত্মীয় এস আলম উপস্থিত ছিলেন।
এর আগে শুক্রবারের সংবাদ সম্মেলনে ব্যবসায়ী নাছির খান মুন্না দাবি করেন, বৃহস্পতিবার রাত ৯টার দিকে শাহ আলম খানের নেতৃত্বে ৫০ থেকে ৬০ জন সন্ত্রাসী পিস্তল, দা-ছেনি, রামদা, রড, লাঠি নিয়ে তাঁর বাড়িতে অতর্কিত হামলা চালায়। এ সময় তাদের পরিবারের সদস্যদের জিম্মি করে রাখা হয়। পরে তিনি খবর দিলে পুলিশ ও এলাকার লোকজন এসে তাদেরকে উদ্ধার করে।