কুমিল্লায় কার্ভাডভ্যান ছিনতাই করে পালানোর সময় চালকসহ আটক ৩

স্টাফ রিপোর্টার
প্রকাশ: ৬ দিন আগে

কুমিল্লার দেবিদ্বারে গার্মেন্টস পণ্য বোঝাই কার্ভাডভ্যান ছিনতাই করে পালানোর সময় চালকসহ তিন জনকে আটক করেছে থানা পুলিশ। সোমবার দিবাগত রাত ১টার দিকে উপজেলার ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের কুরছাপ থেকে ২৫ লক্ষ টাকার গার্মেন্টস পণ্যসহ কার্ভাড ভ্যানটি উদ্ধার করে তারা। এসময় আটককৃত তিন ছিনতাইকারী হলো, বাগেরহাট জেলার মোড়েলগঞ্জ উপজেলার মহিষচরনি গ্রামের আবদুল মজিদ মিয়ার ছেলে কাভার্ডভ্যানের চালক মোঃ মহিদুল ইসলাম (৪৮), দেবিদ্বার উপজেলার সুলতানপুর ইউনিয়নের সুরপুর গ্রামের ইব্রাহীম খলিল মিয়ার ছেলের মো. আল আমিন (২৬), বুড়িচং উপজেলার দক্ষিণ ভারেল্লা ইউনিয়নের বাহিরী পাড়া গ্রামের সিরাজুল ইসলামের ছেলে রহুল আমিন(২৬)। আটকদের মঙ্গলবার দুপুরে আদালতের মাধ্যমে কুমিল্লা কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

জানা গেছে, আশুলিয়ার পলমল গ্রুপ অব ইন্ডাস্ট্রিজ এর আয়েশা ক্লোথিং লিমিটেড নামক ফ্যাক্টরির (ঢাকা মেট্রো-ইউ-১৪-০৩৬৯) কার্ভাডভ্যানটি গত রবিবার সন্ধ্যা ৭টার দিকে রপ্তানিযোগ্য গার্মেন্টস সামগ্রী নিয়ে চট্টগ্রামস্থ কেডিএস কন্টেইনার ডিপোর উদ্দেশ্যে রওয়ানা হয়। গাড়িটি ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের নুরমানিকচর এলাকায় পৌছলে কাভার্ডভ্যানের চালক মোঃ মহিদুল ইসলাম হেলপার বেলাল হাওলাদারকে কাভার্ডভ্যানটি নিয়ে সামনে যাওয়ার জন্য বলে গাড়ি থেকে নেমে যায়। বেলাল গাড়িটি নিয়ে নুর মানিক চর এলাকায় গিয়ে অপেক্ষা করতে থাকে। এসময় চালক মহিদুল ইসলামের নেতৃত্বে ৪/৫জন লোক এসে দেশীয় অস্ত্রের মুখে হেলপার বেলাল হাওলাদার ও তার সাথে থাকা বেলায়েত হোসেনকে মারধর করে জোরপূর্বক গাড়ির চাবি ছিনিয়ে নিয়ে তাদেরকে গাড়ি থেকে নামিয়ে দিয়ে কভার্টভ্যানটি নিয়ে পালিয়ে যায়।
বেলাল হাওলাদার ও বেলাল হোসেন এ ব্যপারে গার্মেন্টস মালিক পক্ষ ও টহল পুলিশকে জানালে দেবিদ্বার থানার এসআই চন্দন চন্দ্র দাস ও এএসআই জাহিদ হাসান সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে ছিনতাই হওয়া (ঢাকা মেট্রো-ইউ-১৪-০৩৬৯) কাভার্ড ভ্যানটি উপজেলার সুলতানপুর ইউনিয়নের কুরছাপ এলাকা থেকে উদ্ধার।

দেবিদ্বার থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) কমল কৃষ্ণ ধর জানান, কভার্ড ভ্যান চালক পূর্ব পরিকল্পিতভাবে প্রায় ২৫ লক্ষাধিক টাকার মালামাল ছিনতাই করে পালানোর সময় দুই সহযোগীসহ আটক হয়। কভার্ড ভ্যানে থাকা পণ্য দ্রুত রপ্তানীযোগ্য গার্মেন্টস মালামাল হওয়ায় সেগুলো মালিক পক্ষ নিয়ে যায়। ধৃত ৩ আসামীকে মঙ্গলবার দুপুরে কোর্ট হাজতে চালান করা হয়েছে। বাকীদের গ্রেফতার অভিযান অব্যাহত আছে।