কুমিল্লায় জিপির বাড়তি চাঁদা না দেয়ায় পিকআপ চালককে কুপিয়ে আহত

স্টাফ রিপোর্টার
প্রকাশ: ১১ মাস আগে

কুমিল্লার বুড়িচংয়ের নিমসার বাজারে জিপির বাড়তি চাঁদা না দেয়ায় পিকআপ চালককে কুপিয়ে আহত করেছে ইজারাদারের নিয়োগকৃত লোকজন। আহত চালক বর্তমানে কুমিল্লা জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রয়েছে। আহত পিকআপ চালকের নাম ইব্রাহিম খলিল (২৬), সে নিমসার এলাকার মোঃ ফরিদ মিয়ার ছেলে।
গেল দেড় মাসে অন্তত ১০ জন চালক- হেলপার বিভিন্ন ভাবে এসব সন্ত্রাসী বাহিনীর হামলার শিকার হয়েছে বলে অভিযোগ বিক্ষোভকারী চালক ও বাজারের ব্যবসায়ীদের। এছাড়া উপজেলা প্রশাসন বাজার এলাকার স্ট্যান্ড ইজারা দিলেও মহাসড়কে থাকা যানবাহন থেকে অবৈধভাবে চাঁদা আদায় করা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন বাজারের ব্যবসায়ীরা।
এদিকে ঘটনার পর থেকে অপরাধীদের গ্রেফতার ও জিপি স্ট্যান্ডে অতিরিক্ত চাঁদাবাজি বন্ধের দাবিতে পিকআপ, ট্রাক চালক ও ব্যবসায়ীরা বিক্ষোভ করেছে। এ নিয়ে নিমসার বাজার এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছে। হামলার ঘটনায় আহত ইব্রাহিমের বড় ভাই মিজানুর রহমান বাদী হয়ে বুড়িচং থানায় একটি অভিযোগ দিয়েছেন।
অভিযোগের বিবরণে জানা যায়, ইব্রাহিম একজন পেশাদার পিকআপ চালক। সে দীর্ঘদিন ধরে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক ঘেষা নিমসার বাজারের সবজিসহ বিভিন্ন মালামাল পরিবহনের কাজ করে আসছে।
শুক্রবার ভোর সাড়ে ৬ টায় নিমসার সবজি বাজারে গিয়ে কাঁচা সবজি পিকআপে লোড করতে থাকে। এসময় বাজারের ইজারাদারের লোকজন তার কাজে জিপির ১২০ টাকা দাবী করলে ইব্রাহিম টাকা দিয়ে দেয়। কিছুক্ষন পর তার কাছে আরো ৩০ টাকা দাবী করে ইজারাদারের লোকজন। বাড়তি ৩০ টাকা দিবে না বলে ইব্রাহিম জানান। এতে ইজারাদারের লোকজন ইব্রাহিমের উপর হামলা করে মারধর করে গাড়ীর চাবি ছিনিয়ে নিয়ে যায়।
স্থানীয় লোকজন গাড়ীর চাবি এনে দিলে ইব্রাহিম পিকআপ ভর্তি সবজি নিয়ে পাশ্ববর্তী নাঙ্গলকোট উপজেলায় চলে যায়। সেখানে সবজি দিয়ে সকাল সোয়া ৯ টায় ইব্রাহিম নিমসার বাজারে আসলে মোঃ বিল্লাল, মোঃ শাহজাহান সাজু, মোঃ সোহেলসহ আরো ৪/৫ জনের একটি দল দেশিয় অস্ত্র নিয়ে তার উপর হামলা চালায়। হামলাকারীরা ইব্রাহিমকে গাড়ী থেকে নামিয়ে মারধর করতে থাকে। এসময় ইব্রাহিমের পেটে ও হাতে ছুরিকাঘাত করে মারত্মক জখম করে।
হামলাকারীরা চলে গেলে আশে-পাশের লোকজন ইব্রাহিমকে উদ্ধার করে কুমিল্লা জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে আসে। ছুরিকাঘাতের ফলে ইব্রাহিমের পেটে ও হাতে ৪৬ টি সেলাই করে ডাক্তার। বর্তমানে ইব্রাহিম আশংখাজনক অবস্থায় হাসপালে চিকিৎসাধীন রয়েছে।
এদিকে বিক্ষোভ করা অন্তত ১০ জন পিকআপ চালক জানায়, ঐতিহ্যবাহী নিমসার বাজারকে ঘিরে প্রতিদিন ছোট-বড় কয়েক হাজার ট্রাক-পিকআপ আসে। এই গাড়ীগুলো থেকে বিগত সময়ে জিপি আদায় করতো বাজারের ইজারাদারা। সম্প্রতি সময়ে বাজারের ইজারাদারের বাহিরে জিপি স্ট্যান্ডের নতুন ইজারাদারের পক্ষে পরিচালক স্থানীয় যুবলীগ নেতা মাসুদ রানা পিকআপ স্ট্যান্ডের জিপির পরিমান বাড়িয়ে দেয়। গাড়ী প্রতি অতিরিক্ত ৩০ থেকে ১০০ টাকা বাড়িয়ে নেয়া হচ্ছে। কোন চালক বাড়তি টাকা দিতে অপরাগত প্রকাশ করলে ইজারাদারের সন্ত্রাসী বাহিনী চালককে মারধর করে গাড়ীর চাবি ছিনিয়ে নেয়।

এ বিষয়ে চালকরা বহু অভিযোগ করেও প্রতিকার পাচ্ছেনা। বর্তমান জিপি স্ট্যান্ডের ইজাদারের কাছে চালকরা এক প্রকার জিম্মি বলে অভিযোগ ভুক্তভোগীদের।
এদিকে রোববার দিবাগত রাতে খাগড়াছড়ি থেকে আসা শান্তি পরিবহনের একটি যাত্রীবাহি বাস নিমসার বাজারে বক্স থেকে লিচু নামানোর সময় জিপি স্ট্যান্ডের লোকজন বাসের চালকের কাছে জিপির চাঁদা দাবি করে। এসব নিয়ে কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ের চালক, হেলপারকে মারধর করে মোবাইল, টাকা ছিনিয়ে নেয় চাঁদাবাজরা। এসময় জিপি স্ট্যান্ডের লোকজন বাসটি ভাঙ্গচুর করলে বাসে থাকা যাত্রীরা আতঙ্কিত হয়ে পরে । পরে রাত সোয়া ২ টায় বাসে থাকা যাত্রীরা জাতীয় জরুরি সেবা ৯৯৯ এর ফোন করলে ঘটনাস্থলে গিয়ে তাদের উদ্ধার করে হাইওয়ে পুলিশ।
এসব সন্ত্রাসীদের হাত থেকে রক্ষা পেতে চালকরা প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেন।
এ বিষয়ে পিকআপ স্ট্যান্ডের ইজারাদারের পক্ষের পরিচালক যুবলীগ নেতা মাসুদ রানা মারধরের বিষয়টি স্বীকার করে এ বিষয়ে ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানিয়েছেন। এছাড়া বাজার এলাকার স্ট্যান্ড উপজেলা প্রশাসন ইজারা দিলেও মহাসড়কের পাশের যানবাহন থেকে চাঁদা আদায় অবৈধ কিনা? এমন প্রশ্নের জবাবে মহাসড়কে চাঁদা আদায়ের বিষয়টি অবৈধ বলে স্বীকার করেন পরিচালক মাসুদ রানা।
ময়নামতি হাইওয়ে থানার ওসি মিজানুর রহমান জানান, মহাসড়কে কাউকে চাঁদাবাজি করতে দেয়া হবে না। নিমসার বাজার এলাকায় কেউ যদি অবৈধভাবে চাঁদা উত্তোলন করতে আসে তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

বুড়িচং থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইসমাইল হোসেন জানান, হামলার ঘটনায় বুড়িচং থানায় একটি মামলা দায়ের হয়েছে। মামলার পর শনিবার রাতে অভিযান চালিয়ে দুই আসামীকে গ্রেফতার করা হয়েছে। বাকী আসামীদের গ্রেফতারে পুলিশের অভিযান অব্যহত রয়েছে।

বুড়িচং উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সাহিদা আক্তার বলেন উপজেলার সবকটি বাজারের ইজারাদারদের জন্য আলাদা আলাদা রেজুলেশন করা আছে। উক্ত রেজুলেশনের মধ্যে কতো টাকা আদায় করতে পারবে তা উল্লেখ করা আছে। রেজুলেশনের বাহিরে যদি কেউ অতিরিক্ত টাকা আদায় করে তবে ইজারাদারের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।