‘কুমিল্লা জেলা আইনজীবী সমিতির বর্তমান নেতৃত্বে ব্যর্থ’

স্টাফ রিপোর্টার
প্রকাশ: ৭ মাস আগে

“যে কথা হয় নি বলা” বিষয়ক টক শো অনুষ্ঠিত হয়েছে। বৃহস্পতিবার (৮ নভেম্বর) রাতে দৈনিক আমাদের কুমিল্লা ও জনপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল কুমিল্লার জমিনের যৌথ উদ্যোগে মিডল্যান্ড হসপিটাল প্রাঃ লিঃ এর সৌজন্যে এ টক শো অনুষ্ঠিত হয়। বিশিষ্ট গণমাধ্যম ব্যক্তিত্ব শাহাজাদা এমরানের সঞ্চালনায় টক-শো তে অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরাম কেন্দ্রীয় কমিটির সহ সভাপতি ও কুমিল্লা আইনজীবী ফোরামের সভাপতি এড. কাইমুল হক রিংকু।
এসময় টক-শো তে বিএনপির চলমান আন্দোলন ও জেলা আইনজীবী সংগঠনের নেতৃত্বের ব্যর্থতা বিষয়ক বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ আলোচনা উঠে এসেছে।
আলোচনায় এড. কাইমুল হক রিংকু বলেন, পরিবার সূত্রেই আমি রাজনীতিতে যোগদান করি। সকালের সূর্যই বলে দেয়, পুরো দিন কেমন কাটবে। আওয়ামীলীগ সরকার কথা দিয়েছিলো একটি সুষ্ঠু ও সুন্দর নির্বাচন করবে। কিন্তু তারা কথা রাখে নি। জনগণও এখন তাদের বিশ্বাস করে না। সরকার সুষ্ঠু নির্বাচন করবে বললেও তাদের কর্মকান্ডে তা স্পষ্ট নয়। তারা একটি দলকে নিশ্চিহ্ন করে দেওয়ার চেষ্টা করছে । তারপরেও কিভাবে সুষ্ঠু নির্বাচনের কথা বলে। আর এদেশের জনগণ এখন আর সরকারকে বিশ্বাস করে না। দ্রব্যমূল্যের যে উর্ধ্বগতি, সাধারণ মানুষের নাভিশ্বাস উঠে গেছে। তাই, সুষ্ঠু নির্বাচন কেবল বিএনপি চায় তা নয়, এটা এখন ১৮ কোটি জনগণের দাবি। জনগণ সম্পৃক্ত হওয়া কোনো বিপ্লবকে কেউ থামাতে পারে না। একটা সুষ্ঠু নির্বাচন করতে যা যা প্রয়োজন তা করা হবে। নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচনে যেই আসুক, বিএনপি তাকে সাধুবাদ জানাবে। আর জনগনই হচ্ছে আমাদের মূল শক্তি। অনেক দলেই নেতৃত্বের সংকট দেখা দিলেও, বিএনপিতে কখনো নেতৃত্বের সংকট দেখা দিবে না। বিএনপিকে ভাঙ্গার মতো নেতৃত্ব এখনো তৈরী হয় নি। আমাদের কর্মসূচিগুলো এখন জনগণ পালন করছে। এক দফা দাবি কিংবা অসহযোগ আন্দোলন, যাই হোক না কেন এটা চলবেই। বিএনপিকে ভাঙ্গার জন্য একটি কুচক্রী মহল চেষ্টা করে যাচ্ছে। এটা সফল হবে না।
কুমিল্লা আইনজীবি ফোরামের কথা বললে আমি বলবো, তারা তাদের দায়িত্ব পালনে সফল হয় নি। আইনজীবীদের বিভিন্ন ফান্ড তারা ভেঙ্গে ফেলেছে। এগুলো আশা করি বেরিয়ে আসবে। কুমিল্লা আইনজীবী সমিতির বেশ কিছু সমস্যা আছে, যা তারা প্রতিশ্রুতি দিয়ে রক্ষা করেন নাই। তাদের কথা রাখার লেশমাত্রও আমরা দেখতে পাই নাই। তারা শুধু ব্যর্থই না, ব্যর্থতার উপর যা আছে সব কিছু । কুমিল্লা আইনজীবী সমিতির শুধু একটি খাতেই প্রায় ৮০ লক্ষ টাকার হিসাব পাওয়া যায় নি সাধারণ সম্পাদকের কাছ থেকে। এটার সত্যতাও পাওয়া গেছে। আমরা এটা নিয়ে বসার কথা বললেও, এটা হয় নি। বর্তমান আইনজীবী সমিতির মতো ব্যর্থ অতীতে কেউ ছিল কিনা আমার জানা নাই। এটা সার্বিকভাবে আমাদের আইনজীবীদের জন্য সুফল বয়ে আনবে না। আমি আইনজীবী পেশায় যুক্ত হই ১৯৯৬ সালে। আর, চলতি আন্দোলনকে ঘিরে কুমিল্লাবাসীকে বলবো মাঠে নেমে আসতে। আমাদের আন্দোলন সফল হবে ও দাবিগুলো পূরণ হবে। আমি আশা করবো, কুমিল্লার প্রশাসন জনগণের পাশে দাঁড়াবে।