খোঁজ নিতে গিয়ে দুই সন্তানের ‘রক্তাক্ত লাশ’ পেলেন বাবা

স্টাফ রিপোর্টার
প্রকাশ: ৩ মাস আগে

লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি ; লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলার চররমনী ইউনিয়নের ডোবা থেকে ১০ বছর বয়সী সামিয়া ও সাত বছর বয়সী তাজমুল নামে দুই ভাই-বোনের রক্তাক্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

শনিবার (১৬ জুলাই) দিবাগত রাতে তাদের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য লক্ষ্মীপুর সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়েছে পুলিশ।

পরিবারের অভিযোগ, সামিয়া ও তাজমুলকে হত্যা করেছে প্রতিপক্ষরা। এ ঘটনায় বিচার দাবি করেছেন তারা।

জানা যায়, সদর উপজেলার চররমনিমোহন ইউনিয়নের চর মেঘা এলাকার নব্যার চরে পরিবার নিয়ে বাস করেন কৃষক সুজন ডালি। তার প্রতিবেশী প্রভাবশালী আক্কাছ ব্যাপারী ও বিলকিছ গংদের সঙ্গে তার জমি সংক্রান্ত বিরোধে মামলা চলমান। তাদের নানা হুমকি-ধামকির মধ্য দিয়েই সুজন ওই চরে বসবাস করে আসছিলেন। শনিবার বিকেলে তিন সন্তান নিয়ে নৌকাযোগে বাড়ির পাশের একটি দোকানে তিনি কেনাকাটা করতে যান। এরপর বড় সন্তানকে তার সঙ্গে রেখে দিয়ে ছোট দুই সন্তান সামিয়া ও তাজমুলকে নৌকায় উঠিয়ে বাড়ির উদ্দেশে ছেড়ে দেন।

এ সময় নদীতে জোয়ারের পানি বৃদ্ধি হতে শুরু করে। ডুবে যায় আশেপাশের বিস্তীর্ণ চর এলাকা। কিছুক্ষণ পর তাদের খোঁজ নিতে গিয়ে বাড়ির পাশের একটি ডোবায় তাদের লাশ পাওয়া যায়। এ সময় নিহতদের শরীরের বিভিন্ন স্থান থেকে রক্তক্ষরণের দৃশ্য দেখা যায়। ঘটনাটি নিয়ে রহস্যের সৃষ্টি হয়। পানিতে ডুবে মৃত্যু নাকি হত্যাকাণ্ড এ নিয়ে সংশয় দেখা দেয় জনমনে।

নিহত দুই শিশুর বাবা সুজন অভিযোগ করেন, পূর্ব পরিকল্পিতভাবে প্রতিপক্ষ বিলকিছ গংরা তার সন্তানদের হত্যা করেছে। এ ঘটনার বিচার দাবি করেন তিনি।

এ ব্যাপারে লক্ষ্মীপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার পলাশ কান্তি নাথ জানান, ভাই ও বোনের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য পাঠিয়েছে পুলিশ। ঘটনার তদন্ত করে পরবর্তী আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে।