গুচ্ছের ‘গ’ ইউনিটে প্রথম কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজের ঈশিকা জান্নাত

স্টাফ রিপোর্টার
প্রকাশ: ১ মাস আগে

মাকছুদুর রহমান ।। গুচ্ছভুক্ত ২২টি সাধারণ এবং বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০২১-২২ শিক্ষাবর্ষের স্নাতক (সম্মান) প্রথম বর্ষের সর্বশেষ ভর্তি পরীক্ষায় ‘গ’ ইউনিটে প্রথম হয়েছেন কুমিল্লার ঈশিকা জান্নাত। কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজের এই শিক্ষার্থী প্রথম স্থান অর্জন করেছেন, পেয়েছেন ৮৭.৭৫ নম্বর।

মঙ্গলবার (২৩ আগস্ট) দুপুর ১টায় গুচ্ছ বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির ওয়েবসাইটে এ ফলাফল প্রকাশ করা হয়। গুচ্ছ ভর্তি পরীক্ষা কমিটির যুগ্ম আহ্বায়ক এবং জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি অধ্যাপক ড. মো. ইমদাদুল হক এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

গুচ্ছ ভর্তি পরীক্ষার টেকনিক্যাল কমিটি সূত্রে জানা যায়, ‘সি’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষায় মোট আবেদন করেন ৪২ হাজার ১৮০ জন। তার মধ্যে পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করেন ৩৯ হাজার ৭৩ জন।

এই ইউনিটে উত্তীর্ণ হয়েছেন ৫৯ দশমিক ৪৫ শতাংশ শিক্ষার্থী। অর্থাৎ ২৩ হাজার ২২৮ জন উত্তীর্ণ হয়েছেন। অকৃতকার্য হয়েছেন ৪০ দশমিক ৫৪ শতাংশ, অর্থাৎ ১৫ হাজার ৮৩৯ জন। ৬ জন শিক্ষার্থীর খাতা বাতিল করা হয়।

এর আগে, গত ২০ আগস্ট গুচ্ছভুক্ত ২২টি সাধারণ এবং বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের বাণিজ্য অনুষদভুক্ত ‘সি’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। এদিন দুপুর ১২টা থেকে ১টা পর্যন্ত মোট ১০০ নম্বরের এ পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়।

প্রথম হওয়ার অনুভূতি জানিয়ে ঈশিকা জান্নাত বলেন , কুমিল্লায় বড় হয়েছি । তবে পছন্দের শীর্ষে ছিল সবসময় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়। মায়ের দোয়াই ছিলো সাফল্যের একমাত্র মূলমন্ত্র। প্রথমে রেজাল্ট পেয়ে বিশ্বাস হচ্ছিলো না । ভালো পরীক্ষা দিয়েছিলাম। কোচিং নিয়মিত যে পরীক্ষা দিতাম ঠিক সে রকমই মনে হয়েছিল পরীক্ষা।

কিন্তু কখনো ভাবিনি এতো ভালো করবো পরীক্ষায়। চেষ্টা করেছি নিয়মিত পড়াশোনা করতে ।

ভর্তি পরীক্ষার সময় প্রতিদিন কোচিংএ যাওয়া, নামাজ পড়া, ঘুমানো আর খাওয়াদাওয়া ছাড়া বাকি সময় পড়াশোনাতে কাটিয়েছি। অনেক সময় হতাশ হয়ে যেতাম । ভাবতাম চান্স হবে না । তখন বড় আপু অনুপ্রেরণা দিতো ।

ঈশিকা জান্নাতের বাড়ি মুরাদনগর উপজেলায়। তার পিতার নাম আব্দুল হাকিম মোল্লা। তারা দুই বোন। বড় বোন মুনিয়া বর্তমানে সোনালী ব্যাংকের কর্মরত।

তিনি জানান, ঈশিকা দিন রাত পরিশ্রম করেছেন। তার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ার ইচ্ছা ছিল। চান্স না পেয়ে হতাশ হয়ে যায়। পরে আমরা উৎসাহ দিয়েছি। এখন সে খুশি।

এ সাফলতা অর্জনে ঈশিকা জান্নাত কে অভিনন্দন জানিয়েছেন ভিক্টোরিয়া কলেজ অধ্যক্ষ প্রফেসর ড. আবু জাফর খান। তিনি জানান ভিক্টোরিয়া কলেজ সব সময় সেরা। শিক্ষার মান উন্নয়নের পাশাপাশি শিক্ষার্থীদের মাঝে সহজভাবে পাঠদান ও শ্রেণীকক্ষে আধুনিক তথ্য প্রযুক্তির সর্বোচ্চ ব্যবহারকে প্রাধান্য দিয়েছি। এছাড়াও দক্ষ শ্রেণী শিক্ষকদের সর্বোচ্চ সহযোগিতা আরও সাফল্য এনে দেবো এমনটাই প্রত্যাশা করছি।

উপাধ্যক্ষ প্রফেসর মৃণাল কান্তি গোস্বামী বলেন, নিয়মিত পাঠদান ও সহজ উপস্থাপন শিক্ষর্থীদের মাঝে পড়াশোনার আগ্রহ সৃষ্টি করছে। ভিক্টোরিয়া কলেজের এমন সাফল্যে সবার প্রতি কৃতজ্ঞতা ও অভিনন্দন জানাচ্ছি।

উল্লেখ্য, এরই মাধ্যমে চলতি শিক্ষা বর্ষের গুচ্ছ ভর্তি পরীক্ষার কার্যক্রম শেষ হল।