চৌদ্দগ্রামে চাঁদা না পেয়ে শিল্প প্রতিষ্ঠানে বার বার হামলা

লাখ টাকার চাঁদা না পেয়ে কোটি টাকার জিনিসপত্রে আগুন
চৌদ্দগ্রাম প্রতিনিধি ।।
প্রকাশ: ২ মাস আগে

কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামে তিন লাখ টাকা চাঁদা না পেয়ে একটি শিল্প প্রতিষ্ঠানের কোটি কোটি টাকার যন্ত্রপাতি ভাঙচুর, লুটপাট ও অবশিষ্ট জিনিসপত্র পুড়িয়ে ফেলার অভিযোগ উঠেছে। সোমবার (৫ ডিসেম্বর) কুমিল্লার চৌদ্দগ্রাম উপজেলার আলকরা ইউনিয়নের সোনাইচা-পদুয়া রাস্তার মাথায় এ প্লাস গ্রুপের অঙ্গ প্রতিষ্ঠান সাসটেইনেবল অ্যাপারেলস লি. এর অফিসে এ ঘটনা ঘটেছে। চাঁদা না পেয়ে স্থানীয় একটি গ্রুপের এটি ৩য় বারের মত হামলা। এর আগেও আরও দুইবার হামলা করেছে বলে জানিয়েছে প্রতিষ্ঠানটির কর্মকর্তারা।
জানা গেছে, প্রথমে ২৮ নভেম্বর বিকেল সাড়ে ৩টায় প্রতিষ্ঠানে তালা দেয়া হয়। সেদিনই রাতে আরেক দফা হামলা করে অফিসের ক্যামেরার ডিভিডি, নির্মানকাজের দুইটি ভেকু মেশিন এবং অফিস কক্ষ ভাংচুর করে। এই ঘটনার মাত্র ৭দিন পর সোমবার (৫ ডিসেম্বর) আবারও হামলার অভিযোগ উঠেছে। সোমবার সন্ধ্যায় ওই প্রতিষ্ঠানে শুধু হামলা নয় ৫ হাজার ব্যাগ সিমেন্ট ও ৫০০ টন রডের গোডাউনে আগুন দিয়ে যন্ত্রপাতি পুড়িয়ে ফেলার অভিযোগও উঠেছে।
এ ঘটনার পর রাত সাড়ে ১০ টায় চৌদ্দগ্রাম থানায় একটি মামলা দায়ের করেন, কোম্পানির সিকিউরিটি ইনচার্জ জলিলুর রহমান।
এ মামলায় আসামি করা হয় আলকরা ইউনিয়নের সোনাইচা গ্রামের বারেকের ছেলে শেখ ফরিদ (৩০), দুলালের ছেলে রায়হান (২০), দুলালের ছেলে রিয়াদ (১৮), আসফালীয়া গ্রামের আবুল কাশেমের ছেলে টুটুল (৩৫), লক্ষীপুর গ্রামের রফিক মিয়া ড্রাইভারের ছেলে রাজুসহ (৩৬) আরো অজ্ঞাতনামা ১৫/২০ জন।
এর আগে ২৮ নভেম্বরের ঘটনার দিন সন্ধ্যায় কোম্পানির সিকিউরিটি ইনচার্জ জলিলুর রহমান বাদি হয়ে চৌদ্দগ্রাম থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছেন। পরদিন মঙ্গলবার (২৯ নভেম্বর) আবদুল জলিল বাদী হয়ে দ্রুত বিচার আইনে আদালতে ছয়জনের নাম উল্লেখপূর্বক অজ্ঞাতানামা আরও ১০ থেকে ১২জনকে আসামী করে মামলা দায়ের করেছেন।
২৮ নভেম্বরের মামলায় আসামীরা হলে,ি উপজেলার আলকরা ইউনিয়নের শিলরী গ্রামের ছবুর মিয়ার ছেলে মামুন (৩৭), একই ইউনিয়নের লক্ষীপুর গ্রামের রাজু (৩৮), আশফালিয়া গ্রামের টুটুল (৩৫), কুলাসার গ্রামের নয়ন (৪০), সোনাইছা গ্রামের আবুল হাসেমের ছেলে কামাল (২৮), শিলরী গ্রামের তাহের পাটোয়ারীর ছেলে শুভ (২৭)।
কোম্পানির এরিয়া ম্যানেজার মো. ইকরাম বলেন, আমরা কাজ শুরুর সময় থেকে এরা আমাদের কাছে তিন লাখ টাকা চাঁদা দাবি করে আসছিল। টাকা দিতে অস্বীকার করলে কাজ বন্ধ করে দেয়ার হুমকি দেয়। চাঁদা না পেয়ে ২৮ নভেম্বর হামলা করে আমাদের যন্ত্রপাতি ও মেশিন পুড়িয়ে দেয়। আমাদের বিভিন্ন জিনিসপত্র লুটপাট করে নিয়ে যায়। এ ঘটনার পর আমরা মামলা করি। মামলা করার পর তারা আবার আমাদের মারার হুমকি দেয়। তারা জানায়, যদি আমরা মামলা না উঠাই তাহলে আমাদের মেরে ফেলবে। এবার ১০ লাখ টাকা চাঁদা চেয়ে বসে। চাঁদা না পেয়ে ও মামলা না উঠানোর কারণে তারা সোমবার সন্ধ্যায় আবারও হামলা করেছে। প্রায় ৭০ লাখ টাকার জিনিসপত্র নষ্ট করে ফেলেছে। তাছাড়া কোটি কোটি টাকা দামের গাড়ি, মেশিন ও যন্ত্রপাতি নষ্ট করে ফেলেছে। আমাদের দুই লাখ টাকার জিনিসপত্র নিয়ে গেছে। আমরা আবারও মামলা করেছি। আমরা এর বিচার চাই।
এ বিষয়ে চৌদ্দগ্রাম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা শুভরঞ্জন চাকমা জানান, চাঁদা দাবির অভিযোগে এ প্লাস গ্রুপের অঙ্গ প্রতিষ্ঠান সাসটেইনেবল অ্যাপারেলস লি. এর কর্মকর্তারা মামলা দায়ের করেন। হামলাকারীরা আবার ক্ষিপ্ত হয়ে আবারও হামলা করেছে। তারা থানায় অভিযোগ দিয়েছে। আমরা ঘটনায় জড়িতদের দ্রুত আইনের আওতায় আনতে কাজ করছি।