তিতাসে যুবলীগ নেতা হত্যার ঘটনায় ৯ জনকে আসামী করে মামলা

স্টাফ রিপোর্টার
প্রকাশ: ১০ মাস আগে

কুমিল্লার দাউদকান্দিতে সন্ত্রাসী হামলায় নিহত তিতাস উপজেলার যুবলীগ নেতা জামাল হোসেন (৪০) হত্যার ঘটনায় অবশেষে মামলা হয়েছে। মঙ্গলবার রাত সাড়ে ১১টার দিকে নিহতের স্ত্রী পপি আক্তার বাদী হয়ে ৯জনের নাম উল্লেখ করে আরো ৭/৮ জনকে অজ্ঞত নামা আসামী করে দাউদকান্দি মডেল থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন।
৩০ এপ্রিল রাত সোয়া ৮টার দিকে উপজেলার গৌরীপুর পশ্চিম বাজার ঈদগাহ এলাকায় ৩জন বোরকা পরিহিত বন্দুকধারী সন্ত্রাসীরা তাকে গুলি করে পালিয়ে যায়। স্থানীয়রা গুলিতে আহত যুবলীগ নেতা জামাল কে প্রথমে উদ্ধার করে মুমূর্ষু অবস্থায় দাউদকান্দি উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রে নিয়ে গেলে পরবর্তীতে তার অবস্থা আশঙ্কাজনক বিদায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের জরুরি বিভাগে নিয়ে যাওয়া হয়। ঢাকা মেডিকেল কলেজের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক রাত সোয়া ১০টায় তাকে মৃত ঘোষণা করেন।
নিহত জামাল হোসেন জেলার তিতাস উপজেলা যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক এবং একই উপজেলার জিয়ারকান্দি গ্রামের ফজলুল হকের ছেলে।
হত্যা মামলা প্রসঙ্গে বুধবার (৩ মে) দাউদকান্দি মডেল থানা অফিসার ইনচার্জ মোঃ আলমগীর ভূঁঞা বলেন, ২ মে মঙ্গলবার রাত সাড়ে ১১টার দিকে দাউদকান্দি মডেল থানায় নিহতের স্ত্রী বাদী হয়ে ৯জনকে আসামী করে হত্যা মামলা দায়ের করেছেন। এ হত্যা মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা, দাউদকান্দি মডেল থানার ওসি তদন্ত শহীদুল্লাহ প্রধান বুধবার বলেন, আমার উপর এ হত্যা মামলার তদন্তবার মঙ্গলবার গভীর রাতে দেওয়া হয়েছে। আমি আজ বুধবার থেকে মামলার তদন্ত শুরু করেছি। এ সময় তিনি বলেন, আসামীদের গ্রেফতারে পুলিশ সহ আরো আইনশৃঙ্খলা বাহিনী মাঠে কাজ করছেন।