দেবিদ্বারে পূজা মন্ডপ পরিদর্শনে গিয়ে এমপি গ্রুপের হামলার শিকার উপজেলা চেয়ারম্যান : আহত ৫

ঘটনাস্থল : শহরের ভিংলাবাড়ি এলাকায়
স্টাফ রিপোর্টার
প্রকাশ: ২ মাস আগে

পূজা মন্ডপ পরিদর্শণে গিয়ে কুমিল্লা-৪ দেবিদ্বার সংসদীয় আসনের এমপি রাজী মোহাম্মদ ফখরুল গ্রুপের হামলা এবং গুলি বর্ষনের শিকার হয়েছেন কুমিল্লা উত্তর জেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও দেবিদ্বার উপজেলা চেয়ারম্যান মো. আবুল কালামআজাদ। সোমবার(৩ অক্টোবর) দিবাগত রাত ১১ টায় দেবিদ্বার শহরের ভিংলাবাড়ি এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

হামলায় সন্ত্রাসীরা তার ব্যবহৃত ব্যক্তিগত গাড়িটি ভাঙচুর ও হত্যার উদ্দেশে সরকারি গাড়িতে কয়েক রাউন্ড গুলি ছোড়ে। পরে নেতা-কর্মীরা তাকে উদ্ধার করে নিরাপদে সরিয়ে নেন। ্ ঘটনায় ৫ জন নেতাকর্মী আহত হয়েছেন বলে উপজেলা চেয়ারম্যান জানিয়েছেন। । আহতরা হলেন ভিংলাবাড়ি এলাকার সজিব, মো. জহির, মাহবুব হোসেন এবং বানিয়াপাড়া এলাকার হিমেল ও শুভ। এর মধ্যে আশংকাজনক অবস্থায় সজিবকে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

ঘটনার বিবরণে জানা গেছে, দেবিদ্বার উপজেলা চেয়ারম্যানও জেলা উত্তর আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আবুল কালাম আজাদ ৩ অক্টোবর সোমবার দিবাগত রাতে স্থানীয় নেতা-কর্মীদের নিয়ে পৌরসভার আলিয়াবাদ এলাকায় পূজামন্ডপ পরিদর্শনে যান। একই সময়ে স্থানীয় এমপি রাজী মোহাম্মদ ফখরুল মুন্সিও তার নেতা-কর্মীদের নিয়ে একই এলাকায় পূজামন্ডপ পরিদর্শনে যান। এক পর্যায়ে বহরের গাড়ি রাখা নিয়ে উভয়ের নেতা-কর্মীদের বাক-বিতন্ডা হয়।

এক পর্যায়ে হাতাহাতির উপক্রম হলে পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনেন।
পরে উপজেলা চেয়ারম্যান আবুল কালাম আজাদ তার গাড়ি বহর নিয়ে পৌরসভার ফতেহাবাদ এলাকার আরেকটি পূজামন্ডপ পরিদর্শন শেষে ভিংলাবাড়ি এসে স্থানীয় এক নেতার বাড়িতে চা খাচ্ছিলেন। এ সময় এমপি রাজী ফখরুলের গাড়ি বহর আলিয়াবাদের মন্ডপ পরিদর্শন শেষে ফতেহাবাদ এলাকার অন্য আরেকটি মন্ডপে যাওয়ার পথে এমপির নেতা-কর্মীরা মোটরসাইকেল থেকে আবুল কালাম আজাদ ও তার নেতাকর্মীদের উদ্দেশে আপত্তিকর স্লোগান দিলে আবুল কালাম আজাদের নেতা-কর্মীরাও পাল্টা স্লোগান দেন। এতে রাজী ফখরুলের নেতা কর্মীরা উত্তেজিত হয়ে আবুল কালাম আজাদের নেতা-কর্মীদের ওপর হামলা চালায়। এ সময় আবুল কালাম আজাদ গাড়ি থেকে বের হয়ে পরিস্থিতি শান্ত করার চেষ্টা করলে তার ওপর হামলার ঘটনা ঘটে। তাকে উদ্দেশ্য করে কয়েক রাউন্ড গুলি ছোড়া হয়।

এ ব্যাপারে উপজেলা চেয়ারম্যান মো. আবুল কালাম আজাদ বলেন, আমি শান্তিপূর্ণভাবে প্রতিটি পূজামন্ডপ পরিদর্শন করেছি। স্থানীয় এমপি রাজী ফখরুলের নেতা-কর্মীরা তুচ্ছ বিষয় নিয়ে আলিয়াবাদ এলাকায় আমার নেতা-কর্মীদের মারধর করে। পরে আমি আমার নেতা-কর্মীদের নিয়ে ফতেহাবাদ এলাকায় একটি পূজামন্ডপ পরিদর্শন শেষে ভিংলাবাড়ি এলাকায় পৌঁছালে পুনরায় তারা হামলা চালায়। আমি থামাতে গেলে আমাকে হত্যার উদ্দেশে কয়েক রাউন্ড গুলি করা হয়। সন্ত্রাসীরা আমার ব্যবহৃত গাড়িটি ভাঙচুর করেছে এবং আমার সরকারি গাড়িতেও গুলি করেছে, সৌভাগ্যক্রমে আমি বেঁচে যাই। আমার ৫/৬জন নেতা-কর্মীকে পিটিয়ে ও কুপিয়ে আহত করেছে। এর মধ্যে গুরুতর আহত সজিব নামে একজনকে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

হামলার বিষয়ে বক্তব্য নেয়ার জন্য ফোন করলে রিসিভ না করায় কথা বলা সম্ভব হয়নি কুমিল্লা-৪ দেবিদ্বারের সংসদ সদস্য রাজী মোহাম্মদ ফখরুলের সাথে।