দ্বিগুণ টাকার লোভ কোটি টাকা নিয়ে একরাতে লাপাত্তা!

স্টাফ রিপোর্টার
প্রকাশ: ১ মাস আগে

স্টাফ রিপোর্টার ।। কুমিল্লায় দ্বিগুণ টাকার লোভ দেখিয়ে প্রায় কোটি টাকা হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগে চারজনকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব। কুমিল্লার বুড়িচং উপজেলার বিভিন্ন এলাকা থেকে তাদের গ্রেফতার করা হয়। শনিবার বিষয়টি জানিয়েছেন র‌্যাব ১১ এর উপ-পরিচালক মেজর মোহাম্মদ সাকিব হোসেন।
গ্রেফতার করা হয়- ভুয়া আর্থিক সংস্থা ফেমাস হাউজিংয়ের চেয়ারম্যান ও কুমিল্লা জেলার বুড়িচং কন্ঠনগর গ্রামের মো. মামুনুল হক(৪৮), ফেমাস হাউজিং সংস্থার সহকারী পরিচালক একই উপজেলার বুড়িচং গ্রামের মো. গিয়াস উদ্দিন(৪৭), ফেমাস হাউজিং সংস্থার ম্যানেজার জেলার বি-পাড়া থানার চারাধারী গ্রামের মো. নজরুল ইসলাম(৪৮), ফেমাস হাউজিং সংস্থার মাঠ কর্মী বি-পাড়া থানার পরিহলপাড়া গ্রামের মো. আব্দুল্লাহ আল মামুন(৩৮)।
মেজর মোহাম্মদ সাকিব হোসেন জানান, গত ২০১৩ সালে জানুয়ারি মাসে জেলার বুড়িচং বাজার এলাকায় ফেমাস হাউজিং নামক একটি আর্থিক প্রতিষ্ঠানের প্রধান কার্যালয় স্থাপন করে একটি প্রতারক চক্র। চক্রের মূল হোতা মো. মামুনুল হক নিজে কোম্পানির চেয়ারম্যান এবং মো. নজরুল ইসলামকে সহকারী পরিচালক হিসেবে একটি ব্যবসায়ীক প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলে। ৮জন জনবলের সমন্বয়ে পরিচালনা পর্ষদ গঠন করে। ৩ জন পরিচালক এবং মাঠ পর্যায়ে একাধিক কর্মী নিয়োগ দেয়।
পরবর্তীতে বুড়িচং থানার জনবহুল ও ব্যবসায়ীক এলাকায় বুড়িচংয়ের ইউ.পি রোড এলাকায় কর্পোরেট অফিস ও কুমিল্লার রেইসকোর্স এলাকায় ঝাঁকজমকপূর্ণ শাখা অফিস স্থাপন করে। প্রতারকচক্রটি লোভ দেখিয়ে বিভিন্ন পেশাজীবী মানুষের নিকট হতে আমানত সংগ্রহ করে। প্রতি মাসে তাদের সংস্থায় একটি নিদিষ্ট পরিমাণ টাকা করে ৫ বছরে টাকা জমা করলে পরবর্তীতে ৫ বছর মেয়াদ শেষে তাদেরকে দ্বিগুণ টাকা প্রদান করবে বলে আশ^স্ত করে। ৫ বছর শেষে একজন গ্রাহক যত টাকা জমা করবে লাভসহ সেই টাকার দ্বিগুণ টাকা পরিশোধের কথা। তবে তারা টাকা পরিশোধ না করে এক রাতেই তাদের অফিস ও বিভিন্ন স্থাপনা গুটিয়ে উধাও হয়ে যায়। এই ঘটনায় ভোক্তভুগীরা বিভিন্ন জায়গায় অভিযোগ দিলেও তারা কোন ফলাফল পায়নি। পরে র‌্যাব ১১ কুমিল্লা অফিসে এসে অভিযোগ করলে তদন্ত শুরু করে র‌্যাব।
গ্রেফতারকৃত প্রতারক চক্রের সদস্যদের বিরুদ্ধে কুমিল্লা জেলার বুড়িচং থানায় আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে।

র‌্যাব ১১ এর উপ-পরিচালক মেজর মোহাম্মদ সাকিব হোসেন বলেন, কেউ না জেনে বুঝে কোথায় আর্থিক লেনদেন না করার অনুরোধ করছি। যদি ইতোমধ্যে কেউ প্রতারিত হয়ে থাকেন তাহলে আমাদের সাথে যোগাযোগ করলে আমরা এর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেব।