নাঙ্গলকোটে জোরপূর্বক ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধের প্রতিবাদে মানববন্ধন

স্টাফ রিপোর্টার
প্রকাশ: ২ মাস আগে

কুমিল্লার নাঙ্গলকোট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স গেইট এলাকায় স্থানীয় কয়েকজন’সহ ২০/২৫ জনের একটি গ্রুপ থানা পুলিশের উপপরিদর্শক সাধন চন্দ্র নাথের উপস্থিতিতে বুধবার দুপুরে ১টি ফার্মেসী ও ১টি খাবারের দোকান’সহ ৩টি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ করে দেয়। পূর্ব কোন নোটিশ ব্যতিত হঠাৎ ব্যবসা প্রতিষ্ঠান গুলো বন্ধ করে দেয়ায় ব্যবাসায়ীরা ও হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে আসা রোগী ও তাদের স্বজনরা চরম বিপাকে পড়েন। এ ঘটনায় বুধবার সন্ধ্যায় নাঙ্গলকোট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মূল ফটকে মানববন্ধন করেন ব্যবাসায়ী ও স্থানীয়রা।
মানববন্ধনে ব্যবসায়ীরা বলেন, আমরা এ দোকন গুলো মাস্টার এ.কে.এম শাহজাহান এবং উনার মৃত্যুর পর তার স্ত্রী জাহানারা চৌধুরী ও সর্ব শেষ তাদের ছেলে এ.কে.এম আশ্রাফুল আলম উজ্জ্বলের নিকট থেকে ভাড়া নিয়ে ব্যবসা পরিচালনা করে আসছি। এ দোকান গুলো পরিচালনা করে আমরা জীবিকা নির্বহ করি। হঠাৎ করে আন্যায় ভাবে হরিপুর গ্রামের নাজমুল ইসলাম, সাজু, খুসরু’সহ ২০-২৫জন নাঙ্গলকোট থানা পুলিশের এস.আই সাধন চন্দ্র নাথকে সাথে নিয়ে এসে দোকান গুলো বন্ধ করে দেয়ায় আমরা দিশেহারা হয়ে পড়েছি। আমরা এ ঘটনার সাথে জড়িতদের বিচার দাবী করছি।
দোকন ঘর গুলোর মালিক এ.কে.এম আশ্রাফুল আলম উজ্জ্বল বলেন, আমার পিতার মালিকানাধীন এ দোকান গুলো ওয়ারিশ সূত্রে মালিক হয়ে দীর্ঘ ৩০ বছর যাবৎ ভোগ দখল করে আসছি। গত মাসে আমার মালিকানাধীন পপুলার ফার্মেসীর দোকান ঘর স্থানীয় নাজমুল হোসেন নিজের সম্পত্তি বলে দাবী করে দখল করতে চাইলে আমি তার বিরুদ্ধে মামলা করি। মামলাটি আদালতে চলমান রয়েছে। অনৈতিক লেনদেনের মাধ্যমে আমার দোকান গুলো বন্ধ করে দেয়া হয়েছে, আমি এ ব্যাপারে প্রশাসনের উদ্ধতন কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করছি।
নাঙ্গলকোট থানা অফিসার ইনচার্জ ফারুক হোসেন বলেন, আদালতের নির্দেশনা অনুযায়ী পুলিশ ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে।