বাংলাদেশে ঈদ হতে পারে ১১ এপ্রিল

আন্তর্জাতিক জ্যোতির্বিদদের গণনা
স্টাফ রিপোর্টার
প্রকাশ: ৩ মাস আগে

চলতি বছর ৩০টি রোজা হতে পারে। ফলে সৌদি আরবসহ তার পার্শ্ববর্তী দেশগুলোতে বুধবার পবিত্র ঈদুল ফিতর অনুষ্ঠিত হবে। সে অনুযায়ী বাংলাদেশে আগামী ১১ এপ্রিল পবিত্র ঈদুল ফিতর অনুষ্ঠিত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

আন্তর্জাতিক জ্যোতির্বিদদের গণনা অনুযায়ী এমনটাই জানা গেছে। যদিও বিষয়টি নির্ভর করছে চাঁদ দেখার ওপর। চন্দ্রবর্ষ হিসেবে প্রতিটি মাসই ২৯ অথবা ৩০ দিনে হয়ে থাকে। সেক্ষেত্রে এ বছর রোজা কতটি হবে তা নির্ভর করছে চাঁদ দেখার ওপর। খবর আল জাজিরা

সোমবার মধ্যপ্রাচ্যে ২৯টি রমজান হবে। এদিন বাসিন্দাদের শাওয়াল মাসের চাঁদ দেখার জন্য আহ্বান জানিয়েছে সৌদি আরবের সুপ্রিম কোর্ট। যদি ৮ এপ্রিল চাঁদ দেখা যায় তাহলে ৯ এপ্রিল সৌদি আরবে ঈদুল ফিতর পালিত হবে। আর চাঁদ না দেখা গেলে ৩০ রমজানই পূর্ণ হবে।

এদিকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আরবি বিভাগের চেয়ারম্যান ড. যুবাইর মুহাম্মদ এহসানুল হকের গবেষণায় দেখা গেছে, নবচন্দ্রের ক্ষণে বাংলাদেশের সময় ৯ এপ্রিল মধ্যরাত ০০:২০ (৮ এপ্রিল দিবাগত রাত)। তাহলে ৯ এপ্রিল সন্ধ্যায় কি বাংলাদেশের আকাশে চাঁদ দেখা যাবে। ৯ এপ্রিল সন্ধ্যায় বাংলাদেশে যখন সূর্যাস্ত হবে তখন চাঁদের বয়স ১৮ ঘণ্টা।

আকাশ পরিষ্কার থাকলে একে খালি চোখে দেখা যেতে পারে। আবার টেলিস্কোপ ব্যবহার করলে যে দেখা যাবে, এ ব্যাপারে কোনো সন্দেহ নেই। কিন্তু সৌদি-সাপেক্ষ মনস্তত্ত্বের কারণে বাংলাদেশ হয়তো চাঁদ দেখতে পাবে না। যেহেতু আগেই ঘোষণা হয়ে যাবে যে, ১০ তারিখ সৌদি আরবে ঈদ, তাই ৯ তারিখ সন্ধ্যায় আমরা যেন চাঁদকে দেখতেই পাব না বা দেখতে চাইব না।

তাহলে এমন সম্ভাবনা প্রবল যে, ৩০ রোজা পূর্ণ করে আমরা বাংলাদেশে ১১ এপ্রিল বৃহস্পতিবার ঈদুল ফিতর উদ্‌যাপন করব। তবে কেউ ১০ তারিখ সন্ধ্যায় বাংলাদেশের আকাশে চাঁদ দেখলে সেটি অনেক বড় আকারের দেখবেন। কারণ, ‘মামা’র বয়স তখন ৪২ ঘণ্টা।

আর বাংলাদেশ যদি ৯ এপ্রিল চাঁদ দেখে ১০ এপ্রিল ঈদ উদ্‌যাপন করে, সেটি হবে বিরাট এক ঘটনা (যার সম্ভাবনা খুবই ক্ষীণ)। এ বছর ইন্দোনেশিয়া ও মালয়েশিয়ায় বাংলাদেশের এক দিন আগে তথা ১০ এপ্রিল ঈদ হতে পারে, তবে নিশ্চিতভাবে বলা যায় না।