বুড়িচংয়ে পরকীয়ার বলি সেই সবজি ব্যবসায়ী

স্টাফ রিপোর্টার
প্রকাশ: ২ মাস আগে

বুড়িচংয়ের নিমসার বাজার এলাকা থেকে সবজি ব্যবসায়ীর মরদেহ উদ্ধারের ঘটনায় নিহতের স্ত্রীর প্রেমিককে গ্রেফতার করেছে গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)। গ্রেফতারকৃত আসামীর নাম নুর আলম। বুধবার রাতে গ্রেফতারকৃত আসামীকে বুড়িচং থানায় হস্থান্তর করে ডিবি পুলিশ।
মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা বুড়িচং থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) জাহিদ হাসান বৃহস্পতিবার দুপুরে জানান, আটককৃত আসামী প্রাথমিকভাবে হত্যার কথা স্বীকার করেছে। তাছাড়া সে হত্যার বিষয়ে বিভিন্ন তথ্য দিচ্ছে, তথ্য যাচাই বাছাই করা হচ্ছে। আরো জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আদালতে ৭দিনের রিমান্ড আবেদন করা হয়েছে।
এদিকে বুধবার রাতে এক বিজ্ঞপ্তিতে ডিবি পুলিশ জানায়, গত ১০ সেপ্টেম্বর ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের বুড়িচংয়ের মোকাম ইউনিয়নের পরিহলপাড়া চেয়ারম্যান বাড়ির রাস্তার পাশ থেকে এক ব্যক্তির লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। পরে জানা যায় লাশটি দাউদকান্দি পৌরসভার তুজারভাঙ্গা এলাকার সবজি ব্যবসায়ী মনির হোসেনের। এ ঘটনায় নিহত মনির হোসেনের মা রেহানা বেগম বাদী হয়ে অজ্ঞাতনামা আসামিদের বিরুদ্ধে বুড়িচং থানায় মামলা করেন।
এরপর মামলাটির তদন্ত শুরু করেন জেলা গোয়েন্দা পুলিশ। তদন্ত করে দেখা যায়, নিহত মনির হোসেনের স্ত্রী নাজমার সাথে দাউদকান্দি উপজেলার তুরাজ ভাঙ্গা গ্রামের ফজলুর রহমানের ছেলে পিকআপ চালক নূর আলম মিয়ার দেড় বছর ধরে পরকীয়ার সম্পর্ক চলে আসছিল। এ নিয়ে মনির হোসেনের সাথে স্ত্রী নাজমার মনোমালিন্যের সৃষ্টি হলে নাজমা স্বামীর বাসা থেকে দুই ছেলেকে নিয়ে তার বোন বিউটির বাসায় চলে যান। সেখানে নুর আলমের সাথে নাজমার সম্পর্ক আরও গভীর হয়। পরবর্তীতে পারিবারিকভাবে কথা বলে নাজমা পুনরায় বাচ্চাদের নিয়ে তার স্বামীর বাসায় ফিরে আসেন।
তখন ঘাতক নুর আলম নাজমাকে তার কাছে চলে আসতে বলে। নাজমা স্বামীর ঘর ছেড়ে আর কোথাও যাবে না জানালে ঘাতক নুর আলম ক্ষিপ্ত হয়ে মনির হোসেনকে খুন করে।
বুড়িচং থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মারুফ রহমান জানান, গ্রেফতারকৃত আসামী বর্তমানে জেল হাজতে আছে। রিমান্ডে এনে জিজ্ঞাসাবাদ করলে আরো তথ্য পাওয়া যাবে।