ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় মাল্টা চাষে লাভবান হচ্ছেন কৃষক, তৈরি হচ্চে নতুন উদ্যোক্তা

স্টাফ রিপোর্টার
প্রকাশ: ৪ সপ্তাহ আগে

তৌহিদুর রহমান নিটল, ব্রাহ্মণবাড়িয়া : ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বেশকয়েকটি উপজেলায় হচ্চে মালটার চাষ। এর মর্ধ্যে জেলার বিজয়নগর উপজেলায় সবচেয়ে বেশী মাল্টার চাষ হচ্ছে। ২০১৫ সালে এর চাষ শুরু হলেও জেলায় এখন মাল্টার ছোট-বড়ো প্রায় আঠারশত অধিক বাগান রয়েছে। চাষীরা বলছেন, মাল্টা চাষে অধিক লাভ ও নতুন উদ্যোক্তা তৈরি হওয়ায় কৃষক এ ফল চাষে ঝুঁকছেন। তাছাড়া ফলটি সারাবছর ফলন হওয়ায় এটি এখন কৃষকের খরচের তুলনায় লাভবান হচ্ছেন বেশি।

জেলা কৃষি অফিসের সূত্র জানায়, জেলার সবকটি উপজেলায় মাল্টার আবাদ হলেও বিজয়নগরে মাল্টা বাগানের সংখ্যা সবচেয়ে বেশি। শুধু এই উপজেলায়ই এ বছর ৬৫ হেক্টর জমিতে মাল্টার আবাদ হয়েছে। উপজেলার সিঙ্গারবিল, পাহাড়পুর ও বিষ্ণুপুরের তিনটি ইউনিয়নে বাগানের সংখ্যা সবচেয়ে বেশি। জেলায় ছোট-বড়ো প্রায় দুই হাজার বাগানে আবাদ হচ্ছে বারি-১, বাউ-৩ ও থাই বারোমাসী জাতের মাল্টার।
মাল্টা বাগানের মালিক শাহীন মিয়া বলেন, আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় এ বছর মাল্টার বাম্পার ফলন হয়েছে। লাভজনক হওয়ায় দিন দিন বাগানের পরিধি বাড়ছে। পাশাপাশি অনেকেই নতুন বাগান তৈরিতে বেশ আগ্রহী হয়ে উঠেছেন।

আরেক চাষী হাসান আলী বলেন, নতুন নতুন বাগান তৈরির কারণে মাল্টার আবাদ ও উৎপাদন আরও বাড়ছে। সারাবছর ফলন হওয়ার কারণে এ চাষে লাভবান হচ্ছেন কৃষক।

জেলা কৃষি বিভাগ জানান, মাল্টার আবাদকে জনপ্রিয় করে তুলতে বিভিন্ন পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে। চলতি মৌসুমে প্রায় ২৭ কোটি টাকার মাল্টা উৎপাদিত হবে বলে আশা করা যাচ্ছে। চলতি বছর প্রায় ১৪১ হেক্টর জমিতে মাল্টার আবাদ হয়েছে, যা গত বছরের তুলনায় ছয় হেক্টর বেশি।