মুশফিক-মুমিনুলে আস্থা রাখছেন সিডন্স

স্টাফ রিপোর্টার
প্রকাশ: ২ মাস আগে

অফ-ফর্ম থাকলেও মুশফিকুর রহিম ও অধিনায়ক মুমিনুল হকের উপর আস্থা রাখছেন বাংলাদেশ দলের ব্যাটিং কোচ জেমি সিডন্সের। তার বিশ্বাস, আগামী ১৫ মে থেকে চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরি শুরু হতে যাওয়া শ্রীলংকা বিপক্ষে প্রথম টেস্টেই রানে ফিরবেন মুশফিক-মুমিনুল।

বাংলাদেশের ব্যাটিংয়ের প্রধান ভরসা মুশফিকের এ বছর বড় ফরম্যাটে গড়- ২৬। এমনকি সাদা বলের ক্রিকেটেরও সময়ের মধ্যে দিয়ে যাচ্ছেন তিনি, যা ক্রিকেটপ্রেমিদের হতাশ করেছে।

সর্বশেষ ১২ ইনিংসের মধ্যে নয় বারই দুই অঙ্কের কোটা স্পর্শ করতে পারেননি মুমিনুল। সর্বশেষ দক্ষিণ আফ্রিকা সিরিজে চার ইনিংসে তার স্কোর ছিলো যথাক্রমে ০, ২, ৬ ও ৫।

দলের সেরা দুই ব্যাটারের এমন অফ-ফর্ম বাংলাদেশের ব্যাটিং লাইন-আপকে খারাপভাবে প্রভাবিত করে। কিন্তু দু’জনের ব্যাটে খুব শীঘ্রই রান দেখছেন সিডন্স।

জহুর আহমেদ চৌধুরি স্টেডিয়ামে বাংলাদেশের অনুশীলন সেশন শেষে সিডন্স বলেন, ‘প্রতিটি ব্যাটারেরই এমন খারাপ সময় যায়, যখন তারা রান করে না। আমি সত্যিই আত্মবিশ্বাসী, এই সপ্তাহে এখানে রান করবে মুশফিক।’

তিনি আরো বলেন, গত দু’দিনে সে যেভাবে খেলেছে, আমি সত্যিই কিছু ভালো লক্ষণ দেখেছি। তার সাথে কয়েকটি ছোট বিষয় নিয়ে আমরা কাজ করেছি। আমি মনে করি, এটি তার একটি ভালো সিরিজ হতে যাচ্ছে।

অবশ্য মুশফিকের উপর চাপ বেড়ে গেছে, কারণ যখন বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) সভাপতি, সিনিয়রদের ভবিষ্যত নিয়ে স্পষ্টভাবে জানতে চেয়েছেন। তিনি বলেছেন, টি-২০ ক্রিকেটের কারনে সিনিয়র ক্রিকেটাররা সব ফরম্যাাটে মনোযোগ দিচ্ছে না।

অনেকেই মনে করেছেন. মুশফিকের দিকেই আঙ্গুল তুলেছেন বিসিবি সভাপতি। তবে দলের একমাত্র সিনিয়র ক্রিকেটার হিসেবে তিন ফরম্যাাটেই কোন অভিযোগ ছাড়াই খেলছেন মুশফিক।

কারো নাম উল্লেখ না করে বিসিবি সভাপতি বলেছেন, ‘আমাদের সমস্যা হলো, আমরা চাই সকলে খুশি থাকুক, তারা হাসিমুখে যাক।

এ ব্যাপারে সিডন্সকে প্রশ্ন করা হলে, তিনি জানান, বাইরে কি হচ্ছে সেদিকে মনোযোগ নেই মুশফিকের। শ্রীলংকার বিপক্ষে আসন্ন দুই ম্যাাচের টেস্ট সিরিজ নিয়েই মনোযোগী সে।

সিডন্স বলেন, ‘আমার মনে হয়, পরের দুই টেস্টের দিকেই বেশি মনোযোগি মুশি। আমি মনে করি না, তার ক্যারিয়ারের কোন ফরম্যাাট নিয়ে সে চিন্তিত।’

তিনি আরো বলেন, আমার মনে হয়, এই দুই টেস্টে রান করা নিয়েই সে চিন্তিত। সে এই মুহূর্তে টেস্টের দিকেই মনোযোগি। সাদা বলের ক্রিকেটে সফল তিনি। রান না করা এবং পরে ফিরে আসা, ভালো ক্রিকেটারদেরই এমন মুহূর্ত থাকে। এজন্যই তারা দারুন খেলোয়াড়। মুশি অনেক বেশি সফল টেস্ট খেলোয়াড়। সে রানের মধ্যেই থাকে। তার হয়তো দক্ষিণ সফরটি ভাল যায়নি এবং সে আবারো ঘুরে দঁাড়াবে।’

সিডন্স আরও মনে করেন, মুশফিকের উপর সংবাদমাধ্যমের বেশি চাপ দেয়া উচিত নয়। কারন এই মুহূর্তে ফর্মে নেই মুশফিক।

সিডন্স বলেন, ‘তাই নেতিবাচক কথা বলা বন্ধ করা প্রয়োজন। একটি সিরিজে খারাপ করার কারনে তার উপর চাপ সৃষ্টি করবেন না। সব সময় তার পাশে থাকুন, তাহলে  তাদের উপর চাপ থাকবে না।’

এই সিরিজে মুশফিকের সফলতার সাথে মুমিনুলের সেঞ্চুরি দেখছেন সিডন্স। কারন চট্টগ্রামের ভেন্যুতে দুদার্ন্ত রেকর্ড আছে অধিনায়কের।

সিডন্স বলেন, ‘চট্টগ্রামে নয়টি সেঞ্চুরি আছে মুমিনুলের। এই সপ্তাহে আরও দু’টি করার সুযোগ থাকছে। এটা তার প্রিয় ভেন্যু। আমরা তাকে ভাল করার জন্য প্রস্তুত করার চেষ্টা করছি। সে খুবই আত্মবিশ্বাসী।