শক্তিশালী রূপে ধেয়ে আসছে হারিকেন ‘রোজলিন’

স্টাফ রিপোর্টার
প্রকাশ: ২ মাস আগে

ঝড়ের চতুর্থ ধাপের তীব্র শক্তি নিয়ে মেক্সিকোর উপকূলের দিকে ধেয়ে আসছে হারিকেন ‘রোজলিন’। এতে উপকূলে বিধ্বংসী বাতাস, উত্তাল ঝড় ও বন্যা সৃষ্টি হতে পারে।

কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আলজাজিরা জানায়, মেক্সিকোর কলিমা, জালিসকো ও নায়ারিতের পশ্চিমাঞ্চলের উপকূলের উপরের দিকে ঘণ্টায় ২১৫ কিলোমিটার গতিতে বাতাস প্রবাহিত হতে পারে এবং ১০০ থেকে ২০০ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত হতে পারে।

যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় হারিকেন কেন্দ্র (এনএইচসি) জানায়, হারিকেনের সতর্কতা জারির এলাকাগুলোতে জীবন ও সম্পদ রক্ষার প্রস্তুতি দ্রুত শেষ করে যেতে হবে। যদিও কিছু ‍দুর্বলতা আজ রাতে শুরুর সম্ভাবনা রয়েছে। হারিকেনটি এখন উপকূলের খুব কাছে রয়েছে। রোববার উপকূলে আঘাত হানার সময় সেটি সবচেয়ে বেশি শক্তি বহন করবে।

নায়ারিতের সায়োলিতা ও পুন্টা মিটা সমুদ্র সৈকতের জন্য বেশ জনপ্রিয়। সেখানকার কর্মকর্তারা জানান, এসব এলাকায় হারিকেনের কারণে বন্যা ও ভূমিধস হতে পারে।

এনএইচএস বলছে, একটি বিপজ্জনক ঝড়ের ঢেউ উপকূল এলাকার কাছে বন্যা সৃষ্টি করতে পারে। হারিকেনটি সান ব্লাস শহরে আঘাত হানার সম্ভাবনা রয়েছে। সেখানে প্রায় ৪০ হাজার মানুষ বসবাস করেন।

সাধারণত প্রতিবছরের মে মাস থেকে নভেম্বরে মৌসুমী ঝড়গুলো মেক্সিকোর প্রশান্ত মহাসাগর ও আটলান্টিক মহাসাগর সংলগ্ন উপকূলে আঘাত হানে। তারই ধারাবাহিকতায় চলতি বছরের মে মাসে প্রথম প্রশান্ত মহাসাগর থেকে ‘আগাতা’ নামের একটি ঝড় মেক্সিকোর ওক্সাকা রাজ্যের উপকূলে আঘাত হানে। এতে ১১ জনের প্রাণহানি হয়।

উল্লেখ্য, ১৯৯৭ সালের অক্টোবরে ঝড়ের চতুর্থ ধাপের শক্তি নিয়ে মেক্সিকোর প্রশান্ত মহাসাগরের উপকূলে আঘাত হানে হারিকেন পাওলিন। এতে ২০০ জনের বেশি মানুষ মারা যান।