স্টুডেন্ট নির্বাচন : ৭ পদের জন্য ৬৭ কাউন্সিলর প্রার্থী!

স্টাফ রিপোর্টার
প্রকাশ: ১ মাস আগে

পোস্টার, ফেস্টুনে ছেয়ে গেছে ভোট কেন্দ্র। প্রার্থীরা নিজেদের ব্যালট নাম্বার গলায় ঝুলিয়ে ভোট চাচ্ছেন। কঠোর শৃংখলার মধ্যে দিয়ে ৬টি বুথে ভোট দিচ্ছে ভোটাররা। জীবনের প্রথম বার ভোট দিয়ে বিদ্যালয় মাঠেই নাচানাচি করছে সহকর্মীদের! এমনই চিত্র দেখা মিলল নগরীর মনোহরপুর আদর্শ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে। সকাল থেকে এখানে কাউন্সলর নির্বাচন চলছে। তৃতীয়, চতুর্থ ও পঞ্চম শ্রেণীর ৯শত ভোটার দিয়েছেন ভোট। পঞ্চমে তিনটি, তৃতীয় ও চতুর্থ শ্রেণীতে দুটি করে কাউন্সিলর আসন। মোট সাতটি পদের জন্য কাউন্সিলর প্রার্থী হয়েছেন ৬৭ জন।
নির্বাচন কমিশনারের দায়িত্ব পালন করছেন পঞ্চম শ্রেণীর মাহির। প্রিজাইডিং কর্মকর্তা হিসেবে আছেন চতুর্থ শ্রেণীর অপ্সরা।
অপ্সরা বলেন, ‘সকাল থেকে ভোটাররা শৃংখলার সাথে ভোট দিচ্ছে। অনেক ভোটার এক সাথে এসেছে। তাই তাদের সামাল দিতে আমােেদ কিছুটা কষ্ট হয়েছে।’
প্রিজাইডিং কর্মকর্তার দায়িত্ব পালনের অনভূতির বিষয়ে মৃদু হেসে অপ্সরা বলেন, ‘খুব লাগছে দায়িত্ব পালন করতে। আমরা তো আগে কখনো ভোট দেইনি, জানতামও না।’
নির্বাচন কমিশনার মাহির গম্ভীর কন্ঠে বলেন, ‘এখানে সুষ্ঠু ভাবে ভোট হয়েছে। সবাই যেন সঠিক ভাবে ভোট দিতে পারে আমরা সেই বিষয়টি খেয়াল রেখেছি।’
বিদ্যালয় প্রধান শিক্ষক সালেহা আক্তার বলেন, ‘ছেলে মেয়েরা সকাল থেকে আনন্দের সাথে ভোট দিচ্ছে। মারামারি হানাহানি ছাড়া ভোট প্রধানে তাদের মধ্যে একটা চর্চা হয়ে যাচ্ছে। এ জন্য আমি সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়কে ধন্যবাদ জানাই।
উল্লেখ্য, সারাদেশে একই দিনে অনুষ্ঠিত হয়েছে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের কাউন্সিলর নির্বাচন। এরই ধারাবাহিকতায় কুমিল্লার সব ক’টি বিদ্যালয়ের অনুষ্ঠিত হয়েছে এই কাউন্সিলর নির্বাচন।