স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতার হুমকি ‘নৌকায় আসেন, না হয় এলাকা ছাড়েন’

কুমিল্লা-৭ (চান্দিনা)
চান্দিনা প্রতিনিধি।।
প্রকাশ: ৫ মাস আগে

‘সাবধান হয়ে যান, নৌকায় আসেন না হয় এলাকা ছাড়েন’ কুমিল্লা-৭ (চান্দিনা) আসনে আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকা প্রতিকের প্রার্থীর পক্ষে প্রচারণা চালাতে গিয়ে প্রকাশ্যে এমনই হুমকী দেন মোস্তফা কামাল মামুন নামের এক স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা। তিনি ওই আসনের নবাবপুর ইউনিয়নের নাটেংগী গ্রামের বাসিন্দা এবং কুমিল্লা উত্তর জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সদস্য। এরই মধ্যে ২১ সেকেন্ডের ওই বিতর্কিত বক্তব্যের ভিডিও ফেসবুকসহ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়ে পড়েছে।
স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, গত রোববার (২৪ ডিসেম্বর) সন্ধ্যায় চান্দিনা উপজেলার নবাবপুর বাজারে নৌকা প্রতিকের প্রার্থীর ডা. প্রাণ গোপাল দত্তের নির্বাচনী অফিসে নৌকার জন্য ভোট চেয়ে বক্তব্য দেন স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা মামুন। ভাইরাল হওয়া ভিডিওতে তাঁকে বলতে শুনা যায় ‘ সাবধান হয়ে যান, এখনো সময় আছে, নৌকাতে আসেন, না হয় এলাকা ছাড়েন। কারণ এলাকার কৃষক শ্রমিক জনতা মেহনতী মানুষ এক হয়ে গিয়েছে।’ রাত থেকেই এ বক্তব্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়ে পড়ে।

এ আসনে নৌকা থেকে মনোনয়ন না পেয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়েছেন এ আসনের ৫ বারের প্রয়াত এমপি অধ্যাপক আলী আশরাফের পুত্র ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মুনতাকিম আশরাফ টিটু। তিনি অভিযোগ করেন ‘পুরো নির্বাচনী এলাকায় নৌকা সমর্থক নেতাকর্মীরা এক ভীতকর পরিস্থিতি সৃষ্টি করতে গত ৫ দিনে তার অন্তত ১৫ থেকে ২০ জন নেতাকর্মীর উপর হামলা চালিয়ে রক্তাক্ত করেছে। থানায় অভিযোগ দিয়েও প্রতিকার মিলছে না। প্রতিটি সভা-সমাবেশে হুমকী দেয়া হচ্ছে। ‘নৌকা ছাড়া কোন প্রতিকে ভোট দেয়ার সুযোগ নাই’ এমন কথা বলে এলাকায় মহড়া দিচ্ছে নৌকার লোকজন।

এদিকে বিতর্কিত বক্তব্য প্রসঙ্গে সোমবার সকালে স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা মামুন বলেন, ‘ভাইরাল হওয়া ভিডিওটি তারই। তবে এখানে কিছু বক্তব্য এডিট করা হয়েছে, কথাটি অন্যভাবে বলে ছিলাম।’ তিনি পথসভা শেষ করে আবারো এ বিষয়ে কথা বলবেন বলে সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে দেন।

কুমিল্লা উত্তর জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক লিটন সরকারের ভাষ্য মোস্তফা কামাল মামুন আমার পরিচিত। তিনি দলের কার্যনির্বাহী কমিটিতে নেই। সাধারণ সদস্য। প্রকাশ্যে এমন বক্তব্য দেয়া ঠিক হয়নি। বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

সহকারী রিটার্নিং অফিসার ও চান্দিনা উপজেলা নির্বাহী অফিসার জাবের মো. সোয়াইব বলেন, ‘সুষ্ঠু নির্বাচনের জন্য সকল প্রার্থীর লোকজনের মধ্যে সহনশীল আচরণ কাম্য, যা এখানে দেখছি না। ভিডিওটি পাওয়া গেছে, তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।’