সংবাদ শিরোনাম
মঙ্গলবার, ১১ই ডিসেম্বর, ২০১৮ ইং | ২৭শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
কুমিল্লা-৬ হামলা ,ভাংচুর ও কর্মী আহত করার প্রতিবাদে রিটার্নিং অফিসারের কাছে হাজী ইয়াছিনের লিখিত অভিযোগবুড়িচংয়ের নিখোঁজের ৯ মাস পর প্রবাসীর লাশ মিললো হাসপাতালেটমেটো চাষে স্বপ্ন দেখে গোমতী পাড়ের শহিদশাহাজাদা প্রেসিডেন্ট টিপু সেক্রেটারি- এপেক্স ক্লাব অব কুমিল্লার নতুন কমিটি গঠিতকুমিল্লা বা ব্রাহ্মণবাড়িয়াতে ভারতের ভিসা অফিস খোলার অনুরোধলাকসামে বিএনপির বিভিন্ন নেতাকর্মীদের মারধর ও বাড়িতে হামলা লুটপাট ও ভাংচুরের অভিযোগকুমিল্লা ৮ – বরুড়ায় হ য ব র ল আওয়ামীলীগ-মহাজোটতাইজুল ঘূর্ণিতে কুপোকাত ওয়েস্ট ইন্ডিজমুরাদনগরে স্বাধীনতা বিরোধী শক্তিকে মনোনয়ন না দিতে শেখ হাসিনার প্রতি আহবানমুরাদনগরে বিএনপিতে চার ভাইয়ের মনোনয়ন সংগ্রহচান্দিনায় আ’লীগ -এলডিপি’র সংঘর্ষ: আহত ৭ গ্রেফতার ১একি করলেন কুমিল্লা-৯ এর এমপি তাজুল ইসলাম !কুমিল্লা-৫ : আ’লীগ নেতা ব্যারিস্টার সোহরাবকে নাগরিক ঐক্যের প্রার্থী ঘোষণাদক্ষিণ আফ্রিকায় সন্ত্রাসীদের গুলিতে কুমিল্লার যুবক নিহতকুমিল্লায় জাতীয় ছাত্র সমাজের দ্বি-বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিতউদ্ধোধনী অনুষ্ঠানে পিআইবির পরিচালক- নবীনদের প্রশিক্ষনের সুযোগ করে দিয়ে কুমিল্লা সাংবাদিক সমিতি দক্ষতার পরিচয় দিয়েছেকেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে -কিংবদন্তি শিল্পী আইয়ুব বাচ্চুকে শেষ শ্রদ্ধাএকাদশ সংসদ নির্বাচন : প্রাথমিকের বার্ষিক পরীক্ষা এগিয়ে নেয়ার নির্দেশবিকল্প ধারা থেকে বি.চৌধুরী ,মান্নান ও মাহীকে বহিষ্কারকেমন আছে একসঙ্গে জন্ম নেয়া বুড়িচংয়ের ৪ নবজাতক

অামাদের বন্ধু সত্য — ডা. ইকবাল আনোয়ার

অামাদের বন্ধু ছিলো সত্যকাম, সংক্ষেপে ডাকতাম সত্য। শৈশবের কথা বলছি।
ক্লাস করতো না সে, বলতো বইএর লেখা মিথ্যা।
বড়ো ইঁচড়ে পাকা ছেলে।

বিজ্ঞান নাকি একটা বইএর মতো, যার সামনের অার পেছনের পাতাগুলো নাই, ধর্ম ক্লাসে দু একদিন এসেছিলো , নানান প্যাচ মেরে ধরলো বলে স্যার বলে দিলেন – এ ক্লাসে তুই অার অাসিস না রে! ইতিহাস নাকি জয়ীদের লেখা কাব্য, অার অংক! সত্য বলতো এ জগতে কোন কিছুই কোন কিছুর মতো নয়, তা হলে একের সংগে অন্যের যোগ বিয়োগ পুরণ ভাগ কি করে হবে!
এত শৈশবে এতো ঘোর লাগা কথা! সত্যকে স্বভাবতই সহ্য করতোনা কেউ, সে ও থাকতো একা একা, একাই খেলতো, কাটাকাটি খেলা (নিজেকে নিজেই কাটে অার হাসে), একা সাঁতার কাটতো, মাঝ পুকুরে ডুবতো ভাসতো।
ক্লাস না করলে তো অার সাটির্ফিকেট মিলেনা, তাই সত্য রয়ে গেলো মুর্খ। অামরা স্কুল থেকে কলেজে, সেখান থেকে বিশ্ব বিদ্যালয় হয়ে প্রায় সকলেই বড়ো বিদ্যান হয়েছি, প্রতিষ্ঠিত যাকে বলে।

এ বয়সে এসে স্কুলের বন্ধুরা এক হয়ে একটা সংগঠন করেছি অামরা। অাড্ডায় মিলতে পারলেই হলো, একদম স্কুলের বালক হয়ে যাই যেন।
অামাদের মধ্যে কয়েকজন তো নামকরা স্কলার, দেশের চেয়ে বিদেশেই বেশী থাকে, তাদের বক্তৃতা অনেক দামে বিক্রি হয় বলে শুনি, অামরা গর্ব করে বলি, হবে না! অামাদের বন্ধু না!

এমনি অাড্ডায় একদিন এক বন্ধু বলে বসলো, অাচ্ছা সত্যকাম কোথায় রে, বলতে পারিস? অামরা অাদতে তাকে ভুলেই গেছিলাম। মনে পড়লো সত্য র মা প্রায়ই অামাদের কাছে বলতো, অামার সত্যকে তোমরা দেখেছো কি? বলতাম, কোত্থেকে দেখবো? সত্য তো একা থাকে!
তারপর সত্যের স্বভাব, তার ইঁচড়ে পাকা কথা, দার্শনিক ভাব, এসব মনে পড়লো অামাদের।
কেউ একজন বললো, বছর তিনেক অাগে সত্যকে রেলস্টেশনে দেখেছে সে, অারেকজন নেপাল বেড়াতে গিয়ে নাকি তাকে পাহাড় চূড়ার কোন বিখ্যাত মন্দিরে দেখেছে।

অামরা সত্যকে দেখার বিষয়টা বিশ্বাস করতে পারিনি, সত্যের সাথে শৈশবেই অামাদের ছেদ পড়ে গেছে। তাকে দেখলেও এখন চিনবো কি করে? বুঝবো কেমন করে – এটাই সত্য! তার মুখে নিশ্চয়ই নানা বলি রেখা, হয়তো দাড়ি গোঁফের ভেতর সে লুকিয়ে রেখেছে নিজেকে!
হয়তো সত্য অপুষ্টিতে মারা গেছে, নয়তো তাকে মেরে ফেলেছে কোন বদমাইশ! কেউ একজন বললো, না রে, অামার মন টানছে, সত্য অাজো বেঁচে অাছে, একদিন না একদিন অামাদের সামনে এসে বলবে- অামি সত্য, এসেছি তোমাদের কাছে! দেখোতো চিনতে পারো কিনা? চিনতে পারবোনা তো জানি, কিন্তুু সত্য অভয় দিয়ে তখন বলবে, না চিনারই কথা, নুতন করে চিনলেই হলো।

সেদিনের অাড্ডা লম্বা হলো, রাত গভীর হলো, সত্যের কথা তবু শেষ হতে চায়না। সেই সত্য! যাকে অামরা শৈশবে হারিয়ে ফেলেছিলাম! অবশেষে অামরা সত্য র জন্য প্রার্থনা করে যার যার বাড়ী ফিরলাম।

ডা. ইকবাল আনোয়ারের ফেসবুক থেকে নেওয়া

সংবাদটি শেয়ার করুন............
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  



Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *