সংবাদ শিরোনাম
শুক্রবার, ২২শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ইং | ১০ই ফাল্গুন, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
মেঘনায় পুলিশের ধাওয়া খেয়ে নদীতে পড়ে মাদক ব্যবসায়ীর মৃত্যুকুমিল্লায় মডেল ইউনিয়ন পরিষদে সনাকের মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিতকুমিল্লায় দুই বছরের সাজা প্রাপ্ত আসামী গ্রেফতারকুমিল্লায় বাংলা বানান শুদ্ধিকরণ অভিযানকুমিল্লার হোমনায় পূর্ব শত্রুতার জেরে যুবককে কুপিয়ে হত্যানববধূ অপহরণ চেষ্টার মামলায় ছাত্রলীগ নেতা ইসমাইল গ্রেফতারস্কুল ছাত্রকে মেরে বালু চাপা দেয়ার মামলায় দুই আসামি কারাগারেকুমিল্লায় ৩ দিন ব্যাপী বই মেলা শুরুঅপসংস্কৃতি বর্জন ও দেশীয় সংস্কৃতি চর্চায় শিক্ষার্থীদের উৎসাহিত করতে হবে ————এড.টুটুলচৌদ্দগ্রামে গৃহবধু হত্যা মামলার আসামীসহ গ্রেফতার ১৩ট্রাক্টরের চাপায় কুমিল্লায় শিশু নিহতবিএনপি নেতা কর্নেল আজিমের বড় ভাইয়ের ইন্তেকালমুরাদনগর উপজেলা পরিষদ নির্বাচন আওয়ামীলীগের সম্ভাব্য প্রার্থীদের দৌড়ঝাঁপ, নিষ্ক্রিয় বিএনপিহোমনার ১৫০টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শহিদ মিনার নেই!কুমিল্লায় ভাতিজার চাপাতির কোপে চাচার মৃত্যুকুমিল্লায় এক ছাত্রকে বালু চাপা হত্যার পর মুক্তিপন নিতে এসে অপহরণকারী আটককুমিল্লায় বিজিবির অভিযানে বিপুল পরিমান মাদক আটকসরকারি হাসপাতালের ওষুধের অবৈধ গোডাউনে র‌্যাবের অভিযানসংসদ নির্বাচনের মতো সিটি নির্বাচনেও একই পরিবেশ থাকবে : সিইসিহোমনায় আপন দুই ভাইসহ সাত জনের কারাদন্ড

মুরাদনগরন ব্রিজের ভেতর বাঁশের সাঁকো!

# চরম দুর্ভোগে১০ গ্রামের মানুষ
মুরাদনগর প্রতিনিধি।।


নির্মাণ কাজের ৫ বছর হয়েছে এখনো চালু হয়নি কুমিল্লার সর্ববৃহৎ উপজেলা মুরাদনগর উপজেলার যাত্রাপুর ইউনিয়নের রঘুরামপুর – গাজীপুর গ্রামের সংযোগ ব্রিজটি। এতে চরম দুর্ভোগ পোহাচ্ছে রঘুরামপুরসহ আশে পাশের ১০ গ্রামের মানুষ।
উপজেলার রঘুরামপুর – গাজীপুর এলাকাবাসী বলেন, এই ব্রিজটি দিয়ে মির্জাপুর, সিঙ্গারিয়া,সোনারামপুর, কোদালকাটা, যাত্রাপুর, চৈয়নপুর, -গাজীপুর,পাঞ্জিরপারা , বৃষ্ণপুর,দীঘিরপাড় এই ১০টি গ্রামের মানুষ চলাচল করে। স্বাধীনতার পর থেকে আমাদের গ্রাম থেকে বের হবার কোন রাস্তা ছিলনা। রাস্তা না থাকায় শুকনো মৌসুমে জমিনের আইলে হেটে, আর বর্ষায় নৌকা করে যাতায়াত করতে হয়েছে। ২০০৮সালে আমরা গ্রামবাসী মিলে এই রাস্তাটি তৈরি করেছি। রাস্তা করার পর রঘুরামপুর থেকে গাজীপুর যাওয়ার জন্য একটি ব্রিজের প্রয়োজন হয়। এডিবির অর্থায়নে উপজেলা এলজিইডি থেকে ব্রিজটির বাস্তবায়ন করা হয়। ব্রিজের ঠিকাদার নাম মাত্র ৪টি খুটির উপর একটি ছাদের আস্তর দিয়ে যায়। এখনো ব্রিজের নীচে গিয়ে দাঁড়ালে দেখা যায় ব্রিজের ভীমের ভিতর রড়ের সাথে কাঠ ঝুলছে। ব্রিজটি করার পর এর দু-পাশে কোন সংযোগ সড়ক দেওয়া হয়নি। রাস্তা থেকে ব্রিজটি অনেক উপরে। এর দু-পাশে গোড়ায় কোন মাটি নেই। ব্রিজের দুপাশে মাটি না থাকায় ৫ বছরেও ব্রিজটি অত্র এলাকার জনগণের কোন কাজে আসেনি।
রঘুরামপুর গ্রামের কৃষক বাদশা মিয়া ও সমীর মৃধা বলেন, শুধু এই ব্রিজটির কারণে আমরা এখন অনেক কষ্টে আছি। জমিতে ফসল ফলানোর পর তা বিক্রির জন্য বাজারজাত করতে লেবার খরচ বেশী দিতে হয়। এক বস্তা খিরা রিক্সায় নিলে যেখানে ২০ টাকা দিলে চলত, সেখানে ২০০ টাকা দিয়ে মেইন রোডে নিতে হয়। সকল ধরনের কৃষিপণ্য আনা নেওয়ায় খরচ বেশী পড়ায় আমরা বেশ ক্ষতির মধ্যে আছি।
উচ্চমাধ্যমিকের ১ম ও ২য় বর্ষের শিক্ষার্থী সজিব মৃধা, নাদিয়া আক্তার, জসিম উদ্দিন,আল-আমিন জানান, এই ব্রিজটির কারণে কলেজে আসা যাওয়ায় আমাদের বিরাট সমস্যা হচ্ছে। এটি আমাদের কোন কাজে আসেনি। ব্রিজের নীচে আরো একটি ব্রিজ নির্মাণ করে আমরা পারাপার হচ্ছি। আর বর্ষা এলে নৌকা করে ঁঝুকি নিয়ে পারাপার হতে হয়। বাঁশের এই সাঁকো থেকে পড়ে অনেক শিক্ষার্থী হতাহতের ঘটনা ঘটেছে।
সাবেক মেম্বার ফারুক হোসেন বলেন , এই রাস্তাটি দিয়ে আসে পাশের দশ গ্রামের মানুষের চলাফেরা করে। ব্রিজটি চলাচলে অনুপোযুক্ত হওয়ায় এই রোডে কোন রিক্সা ,গাড়ী চলে না। যাতায়াত ব্যাবস্থার কারণে ভাল কোন বিয়ে সাদী আসে না। ছেলে মেয়েরা পড়াশোনা থেকে দিন দিন দূরে চলে যাচ্ছে। কৃষকরা কৃষি কাজে উৎসাহ হারাচ্ছে। আমাদের প্রাণের দাবি এই ব্রিজটি যেন চলাচলের উপযুক্ত করে দেওয়া হয়।
যাত্রাপুর ৩নং ওয়ার্ডের জহিরুল হক খোকন মেম্বার বলেন, রঘুরামপুর থেকে বের হতে এই ব্রিজটির গুরুত্ব অনেক। ব্রিজটির ব্যাপারে আমি এমপি মহোদয়কে বেশ কয়েকবার অবহিত করেছি। কোন কাজে আসেনি। আমি মেম্বার হওয়ার পর এই ব্রিজটির কারণে জনগণের অনেক গালমন্দ শুনে আসছি। বাশেঁর সাকো দিয়ে রাখতে পারিনা । কিছু দিন পর কারা যেন চুরি করে সাকোর বাঁশ নিয়ে যায়। ব্রিজটি চলাচলের পরিবেশ তৈরি হলে স্কুল কলেজের শিক্ষার্থীসহ সাধারণ মানুষের ভোগান্তি কমে আসবে।
এই বিষয়ে কুমিল্লা-৩(মুরাদনগর) আসনের সংসদ সদস্য ইউছুফ আবদুল্লাহ হারুনের সাথে কথা বলার জন্য তাকে একাধিকবার চেষ্টা করেও পাওয়া যায়নি।

সংবাদটি শেয়ার করুন............
  • 9
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    9
    Shares
  • 9
    Shares



Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *