মঙ্গলবার, ২২শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ | ৭ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
কুভিক শিক্ষার্থীর উপর সন্ত্রাসী হামলার কলেজ প্রশাসনের নিন্দাকুমিল্লায় স্বস্তির বৃষ্টিতে দুর্ভোগ !নদী দিবসে গোমতীর পাড়ে বাপা নেতৃবৃন্দ দখলদার ও পরিবেশ দূষণকারিদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের দাবিব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রেস ক্লাব নির্বাচনে জামি সভাপতি, বিজন সাধারণ সম্পাদককরোনায় নিয়মিত রোগীদের সেবা দিচ্ছেন সনোলজিস্ট ডা. মল্লিকা বিশ্বাসএফডিএ- এর অনুমোদন পেল বেক্সিমকোর ৮ম ওষুধদুই পরিবারের ২০ জনকে অচেতন করে মালামাল লুটবান্ধবীর সন্তান অপহরণ করে প্রেমিকের বাড়িতে গৃহবধূদেশে ঝড়বৃষ্টির পূর্বাভাসএসএইচসি কবে, জানা যাবে বৃহস্পতিবারএক বছর ধরে বানানো ড্রাইভার মালেকের ‘আদুরে’ দরজার দাম কত?আরো অনেক মালেক রয়েছে: স্বাস্থ্য সচিববরখাস্ত হলেন স্বাস্থ্যের সেই ড্রাইভার আব্দুল মালেক‘ডিজি নয়, স্বাস্থ্যের ড্রাইভার হয়ে মরতে চাই’স্বাস্থ্যের ড্রাইভার মালেক প্রসঙ্গে যা বললেন সচিবস্বাস্থ্যের গাড়ি চালক মালেক ১৪ দিনের রিমান্ডেস্বাস্থ্যের ড্রাইভারের ঢাকায় একাধিক বিলাসবহুল বাড়ি, গাড়িকাউন্সিলরের লোক পরিচয়ে কুভিক শিক্ষার্থীর উপর হামলাসাংবাদিকতার খ্যাতি ও বিড়ম্বনা- শাহাজাদা এমরানআমেরিকা-সুইডেনে থেকেও স্বপদে বহাল দুই শিক্ষক

ঢাবির ক্যান্টিনে ‘পচা’ মাংস, খাওয়ানো হলো মালিককে

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) ক্যান্টিনগুলোতে সরবরাহ করা পচা মাংস, অতিরিক্ত লবণ দেয়া তরকারিসহ অস্বাস্থ্যকর মানহীন খাবারে অতিষ্ঠ শিক্ষার্থীরা। তারা এসব খাবার ক্যান্টিনের মালিককে জোর করে খাইয়ে দিয়েছেন।

হলটির ছাত্র ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের (ডাকসু) সদস্য তানভীর হাসান অন্য শিক্ষার্থীদের সঙ্গে নিয়ে সেই খাবার ক্যান্টিনের মালিককে খাওয়ান।

এ সময় হল ছাত্র সংসদের ভিপি ফরহাদ আলী, ক্যান্টিন দেখভালের দায়িত্বপ্রাপ্ত হলের আবাসিক শিক্ষক মোহাম্মদ জহিরুল ইসলামসহ হলের বেশ কয়েকজন আবাসিক শিক্ষার্থী উপস্থিত ছিলেন।

তানভীর জানান, মঙ্গলবার রাত ১০টার দিকে জসীমউদদীন হলের ক্যান্টিনে খেতে গেলে ‘পচা’ খাবার পান তিনি। আরও কয়েকজন শিক্ষার্থী তাকে একই অভিযোগ করেন। পরে ক্যান্টিন মালিক ডালিম সরকারকে ডেকে এনে সেই খাবার খেতে বাধ্য করেন।

ঘটনার বিস্তারিত তুলে ধরে ডাকসু নেতা তানভীর বলেন, রাতে ক্যান্টিনে খাবার খেতে যাই। গরুর মাংস মুখে দিতেই উৎকট গন্ধ পাই। বমি চলে আসে। ক্যান্টিন মালিক এই পচা মাংসে লবণ বাড়িয়ে রান্না করে সেগুলো শিক্ষার্থীদের খাওয়াচ্ছেন। আমি এর প্রতিবাদ করতে গেলে ক্যান্টিনে উপস্থিত বেশ কয়েকজন শিক্ষার্থীই প্রতিবাদ জানান। তারা আমার কাছে এটিও অভিযোগ করেন যে, ক্যান্টিন মালিক মাঝেমধ্যেই পচা খাবার খাওয়ায়। প্রতিবাদ করেও কোনো সুরাহা হচ্ছে না।

তানভীর জানান, তিনি হল ক্যান্টিনের দায়িত্বে থাকা আবাসিক শিক্ষককে আসার জন্য অনুরোধ করেন। ওই শিক্ষকের উপস্থিতিতেই তানভীর ক্যান্টিন ম্যানেজারকে ওই মাংস খেতে বলেন। তিনি মুখে নিয়ে বমি করে ফেলে দেন। আবাসিক শিক্ষক মুখের কাছে নিয়ে ফেলে দিতে বাধ্য হন। পরে ক্যান্টিন মালিককে ডাকা হয়। ক্যান্টিন মালিক হল সংসদের ভিপিকে সঙ্গে নিয়ে ক্যান্টিনে আসেন। এর পর মালিককে অবশিষ্ট সেই মাংস খেতে বললে তিনি একটু মুখে নিয়েই ফেলে দেন। পরে শিক্ষার্থীদের দাবির মুখে ক্যান্টিন মালিককে পুরো মাংস খেতে বাধ্য করা হয়।

পরে ক্যান্টিন মালিক শিক্ষার্থীদের কাছে প্রকাশ্যে ক্ষমা চান। এ ধরনের মানহীন পচা খাবার আর দেয়া হবে না বলে প্রতিশ্রুতি দেন।

সংবাদটি শেয়ার করুন............
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  



Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *