শনিবার, ২৪শে আগস্ট, ২০১৯ ইং | ৯ই ভাদ্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
কিশোর গ্যাং: ‘বড়ভাইদের’ হাত ধরে বিপথগামী কিশোররা বরগুনায় আর নতুন গ্যাং তৈরির সুযোগ হবে না -এসপি মারুফ হোসেনইউরোপের সবচেয়ে বড় মসজিদ উদ্বোধন রাশিয়ায়আমাজন পোড়ার নেপথ্যে সোনা?জ্বলছে পৃথিবীর ফুসফুস, কেমন ঝুঁকির মুখে বিশ্ববিপর্যয়ে পৃথিবীর ‘ফুসফুস’পুড়ে ছাই আমাজনে সেনা মোতায়েনপুড়ে ছাই হচ্ছে ‘পৃথিবীর ফুসফুস’পরিবেশ রক্ষার্থে একদিন পর পর মলত্যাগের পরামর্শ২০ বছরে ২০ লাখ গাছ লাগিয়ে মরুভূমিকে অরণ্য বানালেন এই দম্পতিঅবিশ্বাস্য! টি-টোয়েন্টিতে প্রথমে সেঞ্চুরি, পরে ৪ ওভারে ৮ উইকেটক্রিকেটার শ্রীশান্তের বাড়িতে আগুন, অল্পের জন্য রক্ষা স্ত্রীরকুমিল্লায় ট্রেনে কাটা পড়ে দুই শিক্ষার্থী নিহত সেতুকে বাঁচাতে গিয়ে কাটা পড়ে আদিত্যকুমিল্লায় সেরা বাগানীদেরকে সম্মাননাকুবির ক্যাফেটেরিয়ার খাবারে টিকটিকি!রিফাত হত্যা মামলার চার্জশিট ৩ সেপ্টেম্বরমিন্নিকে কেন জামিন দেয়া হবে না: হাইকোর্টমিন্নির জামিন শুনানি ফের উঠছে হাইকোর্টেমিন্নির জবানবন্দির বিষয়ে জানতে চান হাইকোর্টহাইকোর্টের আরেক বেঞ্চে মিন্নির জামিন শুনানি আজকুমিল্লায় ট্রেনে কাটা পড়ে প্রেমিক-প্রেমিকা নিহত

উৎসবমুখর পরিবেশে মাটি কাটা হচ্ছে গোমতী নদী থেকে

কুমিল্লা প্রতিনিধি।।
কুমিল্লা দেবিদ্বারে উৎসব মুখর পরিবেশে অবাধে মাটি কাটায় ঐতিহ্য ও সৌন্দর্য হারাচ্ছে এক সময়কার খর¯্রােতা খ্যাত গোমতী নদী। শীত আসার পরপরই দুই পাশের বাঁধ কেটে বিকট শব্দে ওঠানামা করছে শত শত ট্রাক্টর। রাতদিন মাটিবাহী ট্রাক্টরের দাপটে অতিষ্ঠ হয়ে পড়েছে নদীর দুই পাড়ের বাসিন্দারা। ধুলাবালির কারণে দুর্ভোগের শিকার হচ্ছে আশ-পাশ বসবাস করা শত শত পরিবার। ধুলায় বিপন্ন হচ্ছে পরিবেশ। নদীর ভেতরের মাটি কাটার কারণে হুমকির মুখে পড়েছে বাঁধ, সড়ক ও সেতু। জেলা প্রশাসন ও পানি উন্নয়ন বোর্ড এ ব্যাপারে কোনো ব্যবস্থা নিচ্ছে না বলে অভিযোগ এলাকাবাসীর।
সরেজমিনে দেখা গেছে, ট্রাক্টরে মাটি কেটে বিভিন্ন ইটের ভাটা, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও বসতবাড়িতে নেওয়া হচ্ছে। মাটি আনা-নেওয়ার কারণে গোমতীর বাঁধ ও সেতু ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে। অনেক জায়গায় বাঁধের পাকা সড়কের পিচ উঠে সৃষ্টি হয়েছে বড় বড় গর্ত। খলিলপুর, চরবাকর, লক্ষীপুর, কালিকাপুরসহ ১০/১২টি ঘাট থেকে প্রায় ৩ শতাধিক ট্রাক্টর মাটি কেটে নিচ্ছে। সড়ক কেটে নদীর বাঁধের ভেতর দিয়ে এসব ট্রাক্টর ওঠানামা করছে। বৈদ্যুতিক খুঁটি ও গাছের গোড়া থেকেও মাটি কাটা হচ্ছে। মাটি কেটে নেওয়ায় কালিকাপুর, লক্ষীপুর, খলিলপুর ও দেবিদ্বারের চারটি সেতুই হুমকির মুখে পড়েছে। মাটি বোঝাই ট্রাক্টর সেতুর ওপর দিয়ে চলাচল করলে প্রচ- বেগে কাপুনি দেয় পুরো সেতুটি। এতে ধীরে ধীরে সেতুর পিলার থেকে মাটি সরে গিয়ে যেকোন সময় দেখা দিতে পারে বড় কোন দুর্ঘটনা। র্
। খলিলপুরের কৃষক আবদুল বারেক, লক্ষ্মীপুরের স্কুল শিক্ষক মোতালেব ইবনে আতিক এবং দেবিদ্বার সদরের ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী আজিম উল্লাহ হানিফসহ স্থানীয় অসংখ্য ভোক্তভোগিরা জানান, কিছু দুর্বৃত্ত নদীর সৌন্দর্য ও গতিপ্রবাহ বিনষ্ট করছে। তারা গোমতী চরের ফসলি জমিও কেটে নিয়ে যাচ্ছে।রাজনৈতিক ভাবে প্রভাবশালী হওয়ায় তাদের কেউ কিছু বলতে সাহস পাচ্ছে না। পানি উন্নয়নের বোর্ডের এ শ্রেণীর কর্মকর্তা কর্মচারীরাও এই দূর্নীতির সাথে জড়িত বলে তারা জানিয়ে বলেন, প্রশাসনকে এ ব্যাপারে অবিলম্বে কার্যকর ব্যবস্থা নিতে হবে।
অভিযোগ রয়েছে, দেবিদ্বার উপজেলার জাফরগঞ্জ ইউপি চেয়ারম্যান মো. সোহরাব হোসেনের ভাই মো. সিরাজুল ইসলাম, চরবাকরের আল আমিন, বিল্লাল হোসেন, আবদুল কাদের, রমিজ উদ্দিন, জামিল হোসেন, আবুল হোসেন, জামাল হোসেন, খলিলপুরের বারেরা চর এলাকার হেলাল মিয়া, লক্ষিপুরের ইউসুফ মিয়া, আজাদ মোল্লা, দেবিদ্বার বানিয়ার পাড়া এলাকার আবুল হোসেন, হামলার বাড়ি এলাকার মো. লিমনসহ আরও অজ্ঞাত ১০/১২ জন দিনের পর দিন গোমতীর মাটি কেটে বিভিন্ন ইট ভাটায় বিক্রি করে আসছে।
এ ব্যাপারে অভিযুক্ত মো. সিরাজুল ইসলাম ও আল আমিন কে জিজ্ঞাসা করলে তারা বলেন, এখন আর আগের মত মাটি ব্যবসার চাহিদা নেই। সবাই যে যার মত করে মাটি কেটে নিয়ে যাচ্ছে। ৭/৮ টি ট্রাক্টরের মাধ্যমে মাটি আনা হচ্ছে। আমরা স্থানীয় নেতাদের ম্যানেজ করে এ ব্যবসা করি।
বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলনের (বাপা) কুমিল্লা জেলার সভাপতি মোসলেহ উদ্দিন আহমেদ বলেন, গোমতী কুমিল্লার ঐতিহ্যবাহী নদী। খর¯্রােতা এ নদীটি এখন বিপন্ন প্রায়। ক্ষমতার অপব্যবহার করে একটি চক্র এ নদীর গতিপথসহ সবকিছু ধ্বংস করে দিচ্ছে। প্রশাসনের কাছে দাবি জানিয়েও কোনো প্রতিকার পাওয়া যায়নি।
কুমিল্লা পানি উন্নয়ন বোর্ডের পরিকল্পনা ও রক্ষণাবেক্ষণ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী আবদুল লতিফ বলেন, ডিসেম্বর মাসের শুরু থেকেই মাটি কাটার ধুম পড়ে। মাটি আনা-নেওয়ার কাজে ব্যবহৃত ট্রাক্টরগুলোতে কোনো নম্বর থাকে না। সংঘবদ্ধ চক্র মাটি কাটার জন্য নম্বরবিহীন ট্রাক্টর ব্যবহার করে। এ কারণে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া যাচ্ছে না। আমরা এ বিষয়টি জেলা প্রশাসককে জানিয়েছি। আমাদের লোকবলেরও অভাবে এসব তদারকি করা যাচ্ছে না।
স্থানীয় সংসদ সদস্য রাজী মোহাম্মদ ফখরুল বলেন, একটি কুচক্র মহল মাটি কাটছে, খুব শিঘ্রই এর বিরুদ্ধে দ্রুত ব্যবস্থা নিতে প্রশাসনকে জানানো হবে। অবৈধ ভাবে মাটি কাটাওয়ালাদের বিরুদ্ধে অবশ্যই ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

সংবাদটি শেয়ার করুন............
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  



Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *