সংবাদ শিরোনাম
বুধবার, ১২ই আগস্ট, ২০২০ ইং | ২৮শে শ্রাবণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
কুমিল্লায় নতুন করে ৪৫ জনের করোনা শনাক্ত: জেলায় বেড়ে দাঁড়াল ৫,৯৮৩বাড়ির সীমানা খুঁটি তুলে ফেলায় ভাইয়ের হাতে ভাই খুনতিতাস উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যানের ইয়াবা সেবনের ভিডিও ভাইরালকুমিল্লায় তেল চুরির অভিযোগে দিনমজুরকে পিটিয়ে হত্যা!নিমসারে বীর মুক্তিযোদ্ধা রমিজ উদ্দিন মাস্টারের স্মরণ সভা ও দোয়া মাহফিলপ্রতারণা করে প্রেম- তারপর বিয়ে, নববধূর আত্মহত্যা, স্বামী গ্রেফতারকুমেক হাসপাতালে করোনা ও উপসর্গে ছয়জনের মৃত্যুকুমিল্লায় প্রধান শিক্ষকের স্বাক্ষর জালিয়াতিনভেম্বর থেকে স্বাভাবিক নিয়মে নির্বাচনী কার্যক্রম শুরুমস্তিষ্কে অস্ত্রোপচার, সংকটাপন্ন প্রণব মুখার্জিবার্মিংহামে প্লাস্টিক ফ্যাক্টরিতে ভয়াবহ আগুনএবার হচ্ছে না পিইসি ও জেএসসি পরীক্ষাবুড়িচংয়ে উপজেলা যুবলীগ নেতা খোরশেদ আলমের জানাযা সম্পন্নকুমিল্লা-চাঁদপুর সড়কের মগবাড়ী-মনোহরা চৌমুহনী হয়ে আমড়াতলী পশ্চিম বাজার দীর্ঘ ২০ বছর যাবৎ প্রায় ৬ কিলোমিটার রাস্তায় ঝুঁকি নিয়ে চলছে যানবাহননারী গার্মেন্টস কর্মী ধর্ষণ মামলার আসামীকে চাঁদপুর থেকে গ্রেফতারব্রাহ্মণবাড়িয়ায় বিদ্যুৎস্পৃষ্টে দাদা-নাতির মৃত্যুকরোনায় কুমিল্লায় নতুন আক্রান্ত ৭১: জেলায় বেড়ে দাঁড়াল ৫,৯৩৮ জনকুমিল্লায় বিনার উদ্ভাবিত জাত সমুহের উপর কৃষি কর্মশালাব্রাহ্মণবাড়িয়ার বড় হুজুরের জানাযায় মানুষের ঢলকুমেক হাসপাতালে করোনা উপসর্গ নিয়ে আরও ৫ জনের মৃত্যু

চৌদ্দগ্রামে পোল্ট্রি খামারে করোনার প্রভাব, লোকসানে ব্যবসায়ীরা


জসিম উদ্দিন চৌধুরী||

লকডাউনের কারণে পোল্ট্রি ব্যবসা বন্ধ হওয়ার পথে।


কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামে করোনা মহামারির প্রভাবে পোল্ট্রি খামারের সাথে সম্পৃক্তদের গুনতে হচ্ছে লোকসান। এতোমধ্যে বন্ধ হয়ে যেতে বসেছে বেশ কয়েকটি পোল্ট্রি খামার। এবার ঈদের আগের মত ব্যবসা না করতে পেরে মুরগি ব্যাবসায়ী ব্যাপক হারে লোকসানে পড়েছেন। সরকারি কোন সাহায্য এবং সহযোগিতা তার পাচ্ছেন না। সরকারির প্রণোদনা বা ঋণের সহযোগিতা পেলে এইসব খামারিরা আবারও ঘুরে দাড়াতে পারবে বলে জানান।
ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের পাশে কুমিল্লা জেলার চৌদ্দগ্রাম অর্থনৈতিক ভাবে সমৃদ্ধ একটি উপজেলা। প্রচুর প্রবাসী বিভিন্ন দেশে থাকায় এই এলাকাটিতে দিন দিন জমে উঠেছে সকল ধরণের ব্যবসা। তবে বর্তমানে করোনা মহামারির প্রভাবে দিশেহারা খামার থেকে খুচরা ব্যবসায়ীরা। তবে অন্যান্য ব্যাবসায়ীদের থেকে একটু বেশি ক্ষতিগ্রস্ত এই এলাকার পোল্ট্রি খামারিরা। সামাজিক অনুষ্ঠান ও মহাসড়কের পাশে থাকা বিভিন্ন খাবারের হোটেল বন্ধ থাকায় খামার থেকে মুরগি সরবরাহ ও ডিম বিক্রি করতে পারছেনা। এছাড়া পরিবহন বন্ধ থাকায় আসতে পারছেনা অন্যান্য এলাকার পাইকারি ও খুচরা ব্যবসায়ীরা। এসকল সমস্যা কাটিয়ে উঠতে না পেরে বন্ধ হয়ে যেতে বসেছে বেশ কিছু মুরগির খামার।
সংকটে পড়া কয়েকজন খামারি জানায়, করোনা মহামারি পরিস্থিতির প্রথম থেকেই ভেকসিনের অভাবে খামারগুলোতে বিভিন্ন রোগে সংক্রামিত হয়ে প্রচুর পরিমাণে মুরগি মারা গিয়েছে। এখন পর্যন্ত এসব ভেকসিনের আমদানি সচল হয়নি। লকডাউনের কারণে চলাচল স্বাভাবিক না হওয়ায় পণ্য পরিবহনে বাড়তি টাকা ব্যয় হচ্ছে ব্যাবসায়ীদের। এবছর ঈদে ও আশানুরুপ ব্যবসা করতে পারেননি তারা। আগের তুলনায় চার ভাগের এক ভাগও মুনাফা হয়নি তাদের। সরকারের সহায়তা কামনা করছে পোল্ট্রি শিল্পের সাথে সম্পৃক্ত খামারিরা।
চৌদ্দগ্রামের মুন্সিরহাট বাজারের মেসার্স খলিল পোল্ট্রি এন্ড ফিডস এর স্বত্ত্বাধিকারী পোল্টিট্র ব্যবসায়ী সমিতির নেতা খলিলুর রহমান জানায়, লকডাউনের কারণে পোল্ট্রি ব্যবসা বন্ধ হওয়ার পথে। আমার খামারে লোকসান হয়েছে প্রায় ৩০লক্ষ টাকা। সরকার পোল্ট্রি শিল্পের সাথে সংশ্লিষ্টদের পাশে দাঁড়ানোর দাবি জানাচ্ছি।

সংবাদটি শেয়ার করুন............
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  



Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *