সংবাদ শিরোনাম
বুধবার, ১২ই আগস্ট, ২০২০ ইং | ২৮শে শ্রাবণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
কুমিল্লায় নতুন করে ৪৫ জনের করোনা শনাক্ত: জেলায় বেড়ে দাঁড়াল ৫,৯৮৩বাড়ির সীমানা খুঁটি তুলে ফেলায় ভাইয়ের হাতে ভাই খুনতিতাস উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যানের ইয়াবা সেবনের ভিডিও ভাইরালকুমিল্লায় তেল চুরির অভিযোগে দিনমজুরকে পিটিয়ে হত্যা!নিমসারে বীর মুক্তিযোদ্ধা রমিজ উদ্দিন মাস্টারের স্মরণ সভা ও দোয়া মাহফিলপ্রতারণা করে প্রেম- তারপর বিয়ে, নববধূর আত্মহত্যা, স্বামী গ্রেফতারকুমেক হাসপাতালে করোনা ও উপসর্গে ছয়জনের মৃত্যুকুমিল্লায় প্রধান শিক্ষকের স্বাক্ষর জালিয়াতিনভেম্বর থেকে স্বাভাবিক নিয়মে নির্বাচনী কার্যক্রম শুরুমস্তিষ্কে অস্ত্রোপচার, সংকটাপন্ন প্রণব মুখার্জিবার্মিংহামে প্লাস্টিক ফ্যাক্টরিতে ভয়াবহ আগুনএবার হচ্ছে না পিইসি ও জেএসসি পরীক্ষাবুড়িচংয়ে উপজেলা যুবলীগ নেতা খোরশেদ আলমের জানাযা সম্পন্নকুমিল্লা-চাঁদপুর সড়কের মগবাড়ী-মনোহরা চৌমুহনী হয়ে আমড়াতলী পশ্চিম বাজার দীর্ঘ ২০ বছর যাবৎ প্রায় ৬ কিলোমিটার রাস্তায় ঝুঁকি নিয়ে চলছে যানবাহননারী গার্মেন্টস কর্মী ধর্ষণ মামলার আসামীকে চাঁদপুর থেকে গ্রেফতারব্রাহ্মণবাড়িয়ায় বিদ্যুৎস্পৃষ্টে দাদা-নাতির মৃত্যুকরোনায় কুমিল্লায় নতুন আক্রান্ত ৭১: জেলায় বেড়ে দাঁড়াল ৫,৯৩৮ জনকুমিল্লায় বিনার উদ্ভাবিত জাত সমুহের উপর কৃষি কর্মশালাব্রাহ্মণবাড়িয়ার বড় হুজুরের জানাযায় মানুষের ঢলকুমেক হাসপাতালে করোনা উপসর্গ নিয়ে আরও ৫ জনের মৃত্যু

‘ক্ষুধার্ত’ মেঘনার ভাঙন খেলা, বাড়ছে কান্না

লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি: মেঘনা নদীর তীব্র ভাঙনে প্রতিনিয়ত বসতভিটা হারাচ্ছে উপকূলীয় জেলা লক্ষ্মীপুরের বাসিন্দারা। প্রায় ৩৫ বছর ধরে অব্যাহত ভাঙনে যেন ‘ক্ষুধার্ত’ মেঘনা গিলে নিয়েছে উপকূলের ৩৭ কিলোমিটার এলাকার বাড়িঘরসহ সরকারি-বেসরকারি বহু স্থাপনা। বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে হাজারো পারিবারিক বন্ধন। এতে প্রতিদিনই বাড়ছে নিঃস্ব মানুষের কান্না।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, সদর উপজেলার চররমনী মোহন ইউপি থেকে কমলনগর হয়ে রামগতি পর্যন্ত ৩৭ কিলোমিটার এলাকা মেঘনা উপকূল। বাড়িঘর, সরকারি-বেসরকারি স্থাপনা ও ফসলি জমিসহ পুরো এলাকারই বিস্তীর্ণ অঞ্চল নদীতে তলিয়ে গেছে। হারিয়ে গেছে ঐতিহ্যবাহী বাজার, বাড়ি ও পূর্ব-পুরুষের কবর। দিন দিন বেড়েই চলছে নদী ভাঙনের তীব্রতা। জোয়ারের পানিতে নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হচ্ছে। উপকূলে আছড়ে পড়া মেঘনার প্রতিটি ঢেউ সর্বনাশ ডেকে আনছে।

এদিকে কমলনগর উপজেলার চরকালকিনি ইউপির নাছিরগঞ্জ বাজারকে ভাঙন থেকে রক্ষা করতে জঙ্গলা বাঁধ নির্মাণের উদ্যোগ নেন স্থানীয় একদল যুবক। ২৬ জুন থেকে এ বাঁধ নির্মাণকাজ শুরু হয়ে এখনো অব্যাহত রয়েছে। এরইমধ্যে প্রায় এক হাজার ফুট এলাকায় বাঁশের বেড়া, গাছ, কাঠ দিয়ে বাঁধ দেয়া হয়েছে। এটি প্রায় তিন ফুট এলাকায় নির্মাণ করা হবে। তবে এ বাঁধটি শুধু কমলনগরকে বাঁচাতে স্থানীয় বাসিন্দাদের মনের খোরাক মাত্র।মেঘনার ভাঙন

মেঘনার ভাঙন

মেঘনার তীব্রতায় যেকোনো সময় বিলীন হয়ে যেতে পারে জঙ্গলা বাঁধটি। নদীর ভাঙন থেকে উপকূলকে বাঁচাতে প্রয়োজন স্থায়ী বাঁধের। জিও ব্যাগ ও ব্লকের মাধ্যমে স্থায়ী বাঁধ নির্মাণের দাবি উপকূলবাসীর।

স্থানীয় যুবকদের জঙ্গলা বাঁধ নির্মাণের সঙ্গে একাত্মতা পোষণ করেছেন লক্ষ্মীপুর-৪ (রামগতি ও কমলনগর) আসনের বর্তমান এমপি, সাবেক এমপি, স্থানীয় জনপ্রতিনিধিসহ গণ্যমান্য ব্যক্তিরা। তাদের সহযোগিতায় এগিয়ে যাচ্ছে বাঁধ নির্মাণ। শুক্রবার এ আসনের এমপি ও বিকল্পধারার মহাসচিব মেজর (অবসর) আব্দুল মান্নান দুই লাখ টাকা সহায়তা করেছেন।

সদর উপজেলা থেকে রামগতি পর্যন্ত ৩৭ কিলোমিটারের মধ্যে পাঁচ কিলোমিটার এলাকায় নদী তীর রক্ষা বাঁধ রয়েছে। কিন্তু অরক্ষিত ৩২ কিলোমিটার এলাকা ধীরে ধীরে নদীগর্ভে বিলীন হয়ে যাচ্ছে। নদী শাসনে জনপ্রতিনিধিরা কাজ করার কথা বললেও বাস্তবে হচ্ছে না।

স্থানীয় সংবাদকর্মী সানাউল্যা সানু বলেন, ঈদুল ফিতরের দুইদিন আগে চরফলকন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়টি নদীগর্ভে বিলীন হয়ে গেছে। এর আগে বিদ্যালয় ভবনটির অর্ধেক নদীতে ভেঙে পড়ে।শেষ সম্বলটুকু হারিয়ে অনেকে নিঃস্ব

শেষ সম্বলটুকু হারিয়ে অনেকে নিঃস্ব

অন্যদিকে রামগতি উপজেলার চররমিজ ইউপির বয়ারচরের টাংকি বাজার এলাকায় একটি বিশাল ঝাউবাগান ছিল। বাগানটি সব সময় পর্যটকদের দখলে ছিল।

স্থানীয়দের ভাষ্যমতে, ২০১৯ সালের শেষে পুরো ঝাউবাগানটি মেঘনার বুকে বিলীন হয়ে যায়। বাগানটি এখন কেবলই স্মৃতি। টাংকি বাজারের মাছ ঘাটটি জেলার বৃহৎ একটি ইলিশের হাট হিসেবে পরিচিত। এখানে দিনে প্রায় আড়াই কোটি টাকার ইলিশ বিক্রি হয়। কিন্তু যেকোনো সময় বিলীন হয়ে যেতে পারে ঘাটটিও। ভাঙনে সদর উপজেলার বুড়ির খাল এলাকার অর্ধশতাধিক ঘরবাড়ি ও ফসলি জমি নদীতে বিলীন হয়ে গেছে।

জঙ্গলা বাঁধ নির্মাণের উদ্যোক্তা রাকিব হোসেন সোহেল ও জসিম উদ্দিন জানান, নাছিরগঞ্জ বাজারটি রক্ষায় তারা জঙ্গলা বাঁধ নির্মাণের উদ্যোগ নেন। প্রায় এক হাজার ফুট বাঁধ দেয়া হয়েছে। কিন্তু নদীর তীব্র ঢেউয়ে বাঁধটি বিধ্বস্ত। সেটি পুনরায় ঠিক করা হচ্ছে। তিন হাজার ফুট এলাকায় বাঁধ নির্মাণ করা হবে। তবে এটি দিয়ে ভাঙন ঠেকানো সম্ভব নয়। আপাতত বড় বড় জিও ব্যাগ ডাম্পিং করে ভাঙন রোধ করতে সরকারের হস্তক্ষেপ কামনা করেন যুবকরা।

উপজেলা বিকল্পধারার সাধারণ সম্পাদক আবু ছিদ্দিক বলেন, জঙ্গলা বাঁধ নির্মাণে সহযোগিতা করেছেন এমপি আব্দুল মান্নান। কিন্তু এ বাঁধটি সাময়িক, স্থায়ী সমাধান নয়।

কমলনগর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট একেএম নুরুল আমিন রাজু বলেন, জঙ্গলা বাঁধ স্থায়ী সমাধান নয়। নদী ভাঙন রোধে জিও ব্যাগ ডাম্পিং ও ব্লকের মাধ্যমে স্থায়ী বাঁধ নির্মাণ করতে হবে।

২০১৪ সালে একনেক সভায় কমলনগর-রামগতি রক্ষায় ৩৭ কিলোমিটার বাঁধ নির্মাণের প্রকল্প পাশ হয়। প্রথম পর্যায়ে রামগতিতে সাড়ে চার এবং কমলনগর উপজেলায় এক কিলোমিটার বাঁধ নির্মাণ করা হয়। কিন্তু রামগতি-কমলনগর রক্ষা প্রকল্পটি ২০১৭ সালের শেষে বাতিল করা হয়েছে। তবে পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ে তিন হাজার ২০০ কোটি টাকা ব্যয়ে একটি প্রকল্প জমা রয়েছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন............
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  



Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *