শনিবার, ২৩শে মার্চ, ২০১৯ ইং | ৯ই চৈত্র, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
হোমনায় নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ালেন আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী প্রার্থীবরুড়ায় শিক্ষক সমিতির মানববন্ধনবরুড়ায় শিখা বিনা প্রতিদ্বন্দ্বীতায় নির্বাচিতনৌকার বিরুদ্ধে গেলেই বহিষ্কারকুমিল্লায় ৮জন হত্যা মামলায় জামায়াত নেতা ডা. তাহের কারাগারেমানবিক আবেদন মানুষ মানুষের জন্য পাশে দাঁড়ান পরিবারটিকে বাঁচানতনুর হত্যাকারীদের দ্রুত বিচার দাবিতে তার কলেজের শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ‘স্মিথ-ওয়ার্নার ফিরলে অস্ট্রেলিয়া বিশ্বকাপ জিততে পারে’কুমিল্লা সদরে গৃহবধূকে শ্বাসরোধে হত্যার অভিযোগে স্বামী গ্রেফতারআদালতে যেতে ‘অনিচ্ছুক’ খালেদা জিয়ামসজিদে হামলার চারদিন পর ৬ জনের মরদেহ হস্তান্তর, স্বজনদের ক্ষোভলক্ষ্মীপুরে আ.লীগের ৬ নেতা বহিষ্কারআজও ৭ ছাত্রী অজ্ঞান, স্কুল বন্ধ ঘোষণাতনু হত্যার তিন বছর তদন্তের নেই কোন অগ্রগতিনিজের দেশেই কোচ হচ্ছেন ইউনিসবিশ্বকাপের নিরাপত্তা শঙ্কা উড়িয়ে দিল আইসিসিকুমিল্লায় বাস চাপায় বৃদ্ধ নিহতহোমনায় ব্যাটারি চার্জ দিতে গিয়ে অটোচালক নিহতআশুগঞ্জে নতুন পাওয়ার প্লান্টের নির্মাণ কাজ শুরুএকে একে অজ্ঞান ৮ ছাত্রী

কুমিল্লায় মুক্তিযোদ্ধাদের সাথে নাটাবের মতবিনিময় সভা

কুমিল্লা প্রতিনিধি।। ‘নেতৃত্ব চাই যক্ষ্মা নির্মূলে,ইতিহাস গড়ি সবাই মিলে ’ এই প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে যক্ষ্মা রোগ প্রতিরোধে সামাজিক আন্দোলন গড়ে তোলার জন্য বুধবার দুপুরে বীরমুক্তিযোদ্ধাদের সাথে বাংলাদেশ জাতীয় যক্ষ্মা নিরোধ সমিতি(নাটাব) কুমিল্লা জেলা শাখার এক মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়। নাটাব কুমিল্লার সভাপতি ডা.হেদায়েত উল্লাহর সভাপতিত্বে ও সাংগঠনিক সম্পাদক শাহাজাদা এমরানের সঞ্চালনায় মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন কুমিল্লা জেলার সিভিল সার্জন ডা.মো. মজিবুর রহমান। বিশেষ অতিথি ছিলেন,কুমিল্লা মেডিকেল কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ ডা.মোসলেহ উদ্দিন, জেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার সফিউল আহমেদ বাবুল।
যক্ষ্মা রোগী সনাক্তকরণ ও যক্ষ্মা রোগ প্রতিরোধে সামাজিক আন্দোলন গড়ে তুলতে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের করণীয় শীর্ষক মতবিনিময় সভায় মুখ্য আলোচনা করেন কুমিল্লা বক্ষ ব্যাধি ক্লিনিকের জুনিয়র কনসালটেন্ট ডা.মিজানুর রহমান।স্বাগত বক্তব্য রাখেন, নাটাব কুমিল্লার যুগ্ম সম্পাদক আলী আকবর মাসুম এবং ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন নির্বাহী সদস্য ও কুমিল্লা মেডিকেল কলেজের সহযোগী অধ্য্যাপক ডা.আতোয়ার রহমান।
সভায় বক্তাগন বলেন, এক নাগাড়ে দুই সপ্তাহ বা তার অধিক সময়ে কাশি যক্ষ্মার প্রধান লক্ষণ। নিয়মিত এবং পূর্ন মেয়াদের চিকিৎসায় যক্ষ্মা সম্পূর্ন ভালো হয়। সুতরাং যক্ষ্মা একটি মরনব্যাধী রোগ হলেও এটি এখন একটি সম্পূর্ন নিরাময়যোগ্য রোগ।
প্রধান অতিথির বক্তব্যে সিভিল সার্জন ডা.মো. মজিবুর রহমান সবাইকে যক্ষ্মা রোগ প্রতিরোধ আন্দোলনে সামিল হওয়ার আহবান জানান।

সংবাদটি শেয়ার করুন............
  • 3
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    3
    Shares
  • 3
    Shares



Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *