অভিযানে কুমিল্লার যে হাসপাতাল ছেড়ে পালিয়েছে সবাই!

স্টাফ রিপোর্টার
প্রকাশ: ৫ মাস আগে

হাসপাতালের নেই কোন লাইসেন্স। এমন খবরে হাসপাতালে শুরু হয় অভিযান। কিন্তু অভিযানের ভয়ে হাসপাতাল বন্ধ করে পালিয়েছে সবাই। হাসপাতাল খালি। নেই অভ্যর্থনাকারী। না আছে কোন চিকিৎসক। না আছে কোন নার্স বা প্যাথলজিস্ট। জ্বল ছিলনা কোন লাইট। যেন ভুতের আস্তানা।
অথচ গতকালও (সোমবার) এই হাসপাতালে রোগীর চিকিৎসা দেয়া হয়েছিল। এমন ঘটনা কুমিল্লা নগরীর একটি হাসপাতালের। নাম কুইন্স ডিজিটাল হাসপাতাল লিমিটেড।

মঙ্গলবার (৩ অক্টোবর) কুমিল্লা নগরীর টমছম ব্রিজ এলাকার এই হাসপাতালে জেলা স্বাস্থ্য বিভাগ ও জেলা প্রশাসনের যৌথ অভিযানে এমন ভয়াবহ জালিয়াতির কথা সামনে আসে। পরে হাসপাতালটিকে দুই লাখ টাকা জরিমানা করে সিলগালা করা হয়।

সূত্র জানায়, হাসপাতালটির কোন লাইসেন্স কিংবা অনুমতিপত্র ছিল না। নিয়ম না মেনেই সাত তলা আবাসিক ভবনের পাঁচটি ফ্লোরের ফ্ল্যাটগুলোকে কেবিন ও ওয়ার্ড বানিয়ে কুইন্স ডিজিটাল হাসপাতাল নামের কথিত এই সেবা কেন্দ্র খোলা হয়েছিল। দীর্ঘদিন ধরে নগরীর এই গুরুত্বপূর্ণ এলাকায় কোন ডিউটি ডাক্তার ছাড়াই চিকিৎসা সেবা দিয়ে আসছিল। হাসপাতালে অভিযানে ভয়ে সকাল থেকেই হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ হাসপাতাল রেখে পালিয়ে যায়। যদিও ভবনের কেয়ারটেকার বলছেন তিন মাসের ভাড়া বকেয়া থাকায় তাদের চলে যেতে বলা হয়েছে। মঙ্গলবার অভিযানের সময়ও কাউকে পাওয়া যায়নি। হাসপাতালে ছিল না কোন রোগী বা চিকিৎসক অথবা দায়িত্বরত কোন কর্মকর্তা। পুরো ভবনের কেয়ারটেকার হাসপাতালের সামনে বসে ছিলেন। এসময় বিভিন্ন মাধ্যমের সহযোগিতা নিয়ে ওই হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে ডেকে এনে এর কারণ জিজ্ঞেস করা হয়। পরে কোন কাগজপত্র না দেখাতে পারায় দুই লাখ টাকা জরিমানা ও প্রতিষ্ঠানটি সিলগালা করা হয়।
অভিযানে উপস্থিত ছিলেন, সিভিল সার্জন কার্যালয়ের মেডিক্যাল অফিসার ডা. মো. মেহেদী হাসান ও ডা. মো. আবদুল কাইয়ুম। অভিযানে নেতৃত্ব দেন কুমিল্লা জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট ইমদাদুল হক তালুকদার।
সিভিল সার্জন কার্যালয়ের মেডিক্যাল অফিসার ডা. মো. মেহেদী হাসান জানান, হাসপাতালটি অনুমতি ছাড়া অস্ত্রোপচার, রোগী ভর্তি, বিভিন্ন পরীক্ষা নিরিক্ষা চালিয়ে আসছিল। এছাড়াও হাসপাতালে গিয়ে কোন ডিউটি ডাক্তার বা কর্তৃপক্ষকে পাওয়া যায় নি। এমন অভিযোগে তাদের দুই লাখ টাকা জরিমানা ও প্রতিষ্ঠানটি সিলগালা করা হয়। স্বাস্থ্য বিভাগের এ অভিযান অব্যাহত থাকবে।

সিনিয়র নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্র্যাট ইমদাদুল হক জানান, অভিযান পরিচালনাকালে কুইন্স হাসপাতাল তাদের বৈধতার কোন কাগজ দেখাতে পারেনি, তাই তাদেরকে জরিমানা ও সিলগালা করা হয়েছে।