কুমিল্লার তিন উপজেলায় চেয়ারম্যানসহ আওয়ামী লীগ ৮, বিএনপি সমর্থিত ১

উপজেলা পরিষদ নির্বাচন
রুবেল মজুমদার ।।
প্রকাশ: ৩ সপ্তাহ আগে

ষষ্ঠ উপজেলা পরিষদের প্রথম ধাপের নির্বাচনে কুমিল্লার তিন উপজেলাতেই চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান পদে বিজয়ী হয়েছেন আওয়ামী লীগের প্রার্থীরা। তবে শুধুমাত্র মেঘনা উপজেলার নির্বাচিত মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান দিলারা শিরিন বিএনপি সমর্থিত বলে জানা গেছে। সে হিসেবে তিন উপজেলার ৯টি পদের মধ্যে তিন চেয়ারম্যানসহ ৮টি আওয়ামী লীগ আর ১টি বিএনপি সমর্থিত প্রার্থী জয়লাভ করেছেন। যদিও বিএনপি আনুষ্ঠানিকভাবে কেন্দ্রীয় সিদ্ধান্তে এই উপজেলা পরিষদ নির্বাচন বর্জন করেছে।
অবশ্য মেঘনা উপজেলা ব্যতিত লাকসাম ও মনোহরগঞ্জে আওয়ামীলীগের বাহিরে আর কোন প্রার্থী ছিল না। নানা অনিয়মের অভিযোগ এনে মনোহরগঞ্জ উপজেলার এক প্রার্থীর ভোট বর্জন বাদে বড় ধরনের বিশৃঙ্খলা ছাড়াই শান্তিপূর্ণভাবে ভোটগ্রহণ সম্পন্ন হয় গতকাল বুধবার। তবে ভোটার উপস্থিতি মোটেই সন্তুষ্ট জনক ছিল না। তিন উপজেলাতেই প্রাপ্ত ভোটের সাথে ভোটারদের ভোট কেন্দ্রে উপস্থিতির মধ্যে বড় ধরনের ফাঁরাক রয়েছে বলে নির্বাচন পর্যবেক্ষনকারীর গণমাধ্যমকর্মীরা জানিয়েছেন।
গতকাল বুধবার সকাল ৮টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত সারাদেশের ন্যায় কুমিল্লার লাকসাম, মনোহরগঞ্জ ও মেঘনা উপজেলায় ভোটগ্রহণ সম্পন্ন হয়। সকাল থেকে সামান্য বৃষ্টি থাকায় ভোটার উপস্থিত কম থাকলেও, বেলা বাড়ার সাথে সাথে কিছুটা ভোটার উপস্থিত বাড়ে তবে তা আশানুরুপ ছিল না।।
বুধবার (৮ মে) রাত ৯ টায় কুমিল্লার মেঘনা, মনোহরগঞ্জ, লাকসাম উপজেলা পরিষদের ৯ জন কে চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান হিসাবে বেসরকারি ভাবে নির্বাচিত ঘোষণা করেন রির্টানিং কর্মকর্তা মুনীর হোসাইন।
নির্বাচিত প্রতিনিধিরা হলেন, মেঘনা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পদে নির্বাচিত হয়েছেন ‘আনারস’ প্রতীকের প্রার্থী তাজুল ইসলাম তাজ। তিনি পেয়েছেন ১৮,৬০০ ভোট। ভাইস চেয়ারম্যান পদের ‘চশমা’ প্রতীকের প্রার্থী আবুল কালাম পেয়েছেন ১৮,৩০৯ ভোট। আর মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ‘হাঁস’ প্রতীকের প্রার্থী দিলারা শিরিন পেয়েছেন ২০,৩৫০। তিনি বিএনপির সমর্থিত প্রার্থী বলে জানা গেছে।
লাকসাম উপজেলা পরিষদের নির্বাচিতরা হলেন, চেয়ারম্যান পদে ‘আনারস’ প্রতীকের প্রার্থী অ্যাডভোকেট ইউনুস ভূঁইয়া। তিনি পেয়েছেন ৮১ হাজার ৩৯৫টি ভোট। ভাইস চেয়ারম্যান পদে মহব্বাত আলী ‘তালা’ প্রতীকে পেয়েছেন ৮৯ হাজার ৬৫১ ভোট, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ‘পদ্মফুল’ প্রতীকের পড়শী সাহা ৮৪ হাজার ৩৪২ ভোট পেয়েছেন।
মনোহরগঞ্জ উপজেলা পরিষদের নির্বাচিতরা হলেন, চেয়ারম্যান পদে ‘ঘোড়া’ প্রতীকের আব্দুল মান্নান ৭০ হাজার ৩৪৮, ভাইস চেয়ারম্যান পদে ‘তালা’ প্রতীকের আমিরুল ইসলাম ৭৯ হাজার ৬৮৭ ভোট, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ‘প্রজাপতি’ প্রতীকের প্রার্থী শিরিন আক্তার ৭৫ হাজার ৪৫১ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছে।
এর আগে জেলার তিনটি উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের ভোটগ্রহণ সম্পন্ন হয়েছে। বুধবার (৮ মে) সকাল ৮টা থেকে ভোটগ্রহণ শুরু হয়ে চলে বিকাল ৪টা পর্যন্ত।প্রথম ধাপের এই নির্বাচনে তিন উপজেলা ২৭ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। তাদের মধ্যে চেয়ারম্যান পদে ১৫ জন, ভাইস চেয়ারম্যান ৮ জন এবং মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৮ জন প্রার্থী রয়েছেন। এছাড়া নাঙ্গলকোটে মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে মনোনয়নপত্র দাখিলকারী ছালেহা বেগম হাইকোর্ট বিভাগে মনোনয়নপত্র বৈধ ঘোষণার জন্য রিট পিটিশন দায়ের করায় এ উপজেলা পরিষদ নির্বাচন স্থগিত করা হয়েছে।