কুমিল্লায় বাক প্রতিবন্ধীর স্ত্রীকে ধর্ষণ ধর্ষককে হাতেনাতে ধরল স্বামী

স্টাফ রিপোর্টার
প্রকাশ: ১০ মাস আগে

কুমিল্লা জেলার সদর দক্ষিণ উপজেলার লক্ষীনগরের দিশাবন্দ এলাকায় বাক প্রতিবন্ধীর এক গৃহবধূকে (২৫) জোরপূর্বক ধর্ষণের ঘটনা ঘটেছে । এ ঘটনার পর গৃহবধূ বাদী হয়ে একই এলাকার অভিযুক্ত ধর্ষক আ. সালামের বিরুদ্ধে মঙ্গলবার (১ আগস্ট) বিকালে সদর দক্ষিণ মডেল থানায় ধর্ষণ মামলা করেন । বিষয়টি নিশ্চিত করেন সদর দক্ষিণ মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) দেবাশীষ চৌধুরী । এ ঘটনার পর থেকে পরিবার নিয়ে পলাতক রয়েছে অভিযুক্তসহ তার সপরিবার।

অভিযোগ ও ভুক্তভোগী পরিবারের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, অভিযুক্ত আ. সালাম কুমিল্লা জেলার সদর দক্ষিণ উপজেলার লক্ষীনগর প্রকাশ দিশাবন্দ এলাকার মৃত আলী আহাম্মদের ছেলে। গত ২৮ জুলাই শুক্রবার বিকাল ৩ টার দিকে বাক প্রতিবন্ধীর ওই গৃহবধূকে বাড়িতে একা রেখে একই এলাকায় দিন মজুরের কাজে যান তার বাক প্রতিবন্ধী স¦ামী। এ সুযোগে প্রতিবেশী মামা শশুর আ. সালামের ভুক্তভোগী নারীর বাড়িতে এসে ওই গৃহবধূকে তারই নিজ ঘরে মুখে চাপ দিয়ে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে। এ সময় হঠাৎ করে ওই গৃহবধূর স্বামী বাড়িতে আসলে ধর্ষক সালাম নিজেই দরজা খুলে পালানোর সময় ধর্ষক সালামকে হাতেনাতে আটক করেন স্বামী। পরে অভিযুক্ত প্রভাবশালী হওয়ায় ঘটনাস্থল থেকে কৌশলে পালিয়ে যায়।

ভুক্তভোগী গৃহবধূ রাজিয়া আক্তার (ছন্দনাম) বলেন, আমাকে বিভিন্ন সময় ফোন দিয়ে খারাপ কাজের প্রস্তাব দিতো পাশের বাড়ির মামা শুশ^র সালাম । আমি তার ফোন কেটে দিলে আমার স্বামীকে মেরে ফেলার হুমকি দিতো ওনি। শুক্রবার আমার স্বামী বাসা না থাকায় ৩টার দিকে সে আমার রুমে এসে ঢুকে পরে আমাকে ধাক্কা দিয়ে খাটে ফেলে আমার সাথে সব ধরনের খারাপ কাজ করে। আমি যাতে চিৎকার দিতে না পারি সেজন্য আমার মুখে চাপ দিয়ে ধরে রাখে এবং আমার স্বামীকে মেরে ফেলার হুমকি দেয় তাই আমি ভয়ে চিৎকার দেইনি। আমি তার বিরুদ্ধে মামলা করেছি মামলার পর থেকে বিভিন্ন ভাবে হুমকি ধমকি দিচ্ছে। আমি প্রশাসনের কাছে আমার নিরাপত্তা চাই।
সদর দক্ষিণ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) দেবাশীষ চৌধুরী বলেন, দিশাবন্দ এলাকায় বাক প্রতিবন্ধী ওই গৃহবধূকে ধর্ষণের ঘটনায় অভিযুক্ত আ. সালামের বিরুদ্ধে থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে একটি মামলা হয়েছে। আমরা আসামিকে ধরতে অভিযান অব্যাহত রাখছি।