কুমিল্লায় বিশ্ব মুক্ত গণমাধ্যম দিবস পালিত

সোহাইবুল ইসলাম সোহাগ ।।
প্রকাশ: ১০ মাস আগে

সারা দেশের ন্যায় গতকাল বুধবার বিশ্ব মুক্ত গণমাধ্যম দিবস কুমিল্লায় পালিত হয়েছে। এ দিনটি উপলক্ষে বুধবার নগরীর গর্জন খোলায় সাংবাদিক কল্যাণ পরিষদ কুমিল্লার আয়োজনে এ দিবসটি পালন করা হয়। এবারের দিবসটির প্রতিপাদ্য বিষয় হলো, ‘বিশ্ব মুক্ত গণমাধ্যম দিবস-২০২৩, ডিজিটাল অবরোধে সাংবাদিকতা’ । অনুষ্ঠানের শুরুতেই প্রয়াত ও অসুস্থ সাংবাদিকদের জন্য বিশেষ দোয়া ও মোনাজাত করা হয়। অনুষ্ঠানে অনুসন্ধানী ও সাহসী সাংবাদিকতায় বিশেষ অবদান রাখায় চার জন সাংবাদিককে আপনজন সম্মাননা দেওয়া হয়।

সাংবাদিক কল্যাণ পরিষদ কুমিল্লার প্রধান উপদেষ্টা রফিকুল ইসলামের সভাপতিত্বে ও সভাপতি ওমর ফারুকী তাপসের পরিচালনায় অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন, কুমিল্লা প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি আবুল হাসনাত বাবুল, বিশেষ অতিথি ছিলেন বীর মুক্তিযোদ্ধা ও বিশিষ্ট ছড়াকার জহিরুল হক দুলাল, বাংলাদেশ সাংবাদিক সমিতি কুমিল্লা জেলার সভাপতি ইয়াসমীন রীমা।
আপনজন সম্মাননা পাওয়া চার সাংবাদিক হলেন, কুমিল্লা প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক সাইয়িদ মাহমুদ পারভেজ, বাংলাদেশ সাংবাদিক সমিতি কুমিল্লা জেলার সাধারণ সম্পাদক শাহাজাদা এমরান, কুমিল্লা প্রেস ক্লাবের সাবেক ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক সাদিক মামুন ও কুমিল্লা প্রেস ক্লাবের সাংগঠনিক সম্পাদক হুমায়ুন কবীর জীবন।তারা প্রত্যেকেই তাদের অনুভুতি ব্যক্ত করে বক্তব্য রাখেন।
বিশ্ব মুক্ত গণমাধ্যম দিবস উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন, কুমিল্লা প্রেস ক্লাবের যুগ্ম সম্পাদক বাহার রায়হান,বাংলাদেশ সাংবাদিক সমিতি কুমিল্লা জেলার সাংগঠনিক সম্পাদক আবদুর রহমান, সমাজকন্ঠ পত্রিকার সম্পাদক ও প্রকাশক জসিম উদদীন চাষি, কুমিল্লার আলোর সম্পাদক জসিম উদ্দিন কনক, সমতটের কাগজের সম্পাদক জামাল উদ্দিন দামাল, ডা. আবদুল ঢালী, সংগঠক আজাদ সরকার লিটন, পাঠাগার আন্দোলন বাংলাদেশ এর সমস্বয়ক ইমাম হোসাইন,সুজন কুমিল্লার যুগ্ম সম্পাদক শাহানা হক প্রমুখ।
স্বাগত বক্তব্য রাখেন, সাংবাদিক কল্যাণ পরিষদ কুমিল্লার সাধারণ সম্পাদক মো. মনির হোসেন এবং পবিত্র কোরআন তেলোয়াত করেন সাংবাদিক আবু হানিফ মজুমদার।

সভায় বক্তারা বলেন, ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন স্বাধীন সাংবাদিকতার বিরুদ্ধে প্রয়োগ হচ্ছে। এটি ভয় দেখানোর জন্যই করা হয়েছে। এখন আইনটির প্রয়োগই অপপ্রয়োগের জায়গায় চলে গেছে । বক্তারা আইনটির বাতিল অথবা আইনটির এমন সংশোধন চেয়েছেন, যাতে স্বাধীন সাংবাদিকতা ও মতপ্রকাশ বাধাগ্রস্ত না হয়।

আলোচনা সভা শেষে অনুসন্ধানী ও সাহসী সাংবাদিকতায় বিশেষ অবদান রাখায় চার জন সাংবাদিককে সম্মাননা স্মারক উপহার দেওয়া হয় অতিথিদের মাধ্যমে।