কুসিক নির্বাচন : ১০৫ টি কেন্দ্রের মধ্যে ঝুঁকিপূর্ণ ৮৯টি

জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপার ও রিটার্নিং কর্মকর্তা বললেন, নিরাপত্তার কোন সমস্যা নেই
স্টাফ রিপোর্টার
প্রকাশ: ৪ সপ্তাহ আগে

আগামী ১৫ জুন অনুষ্ঠিতব্য কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশনের নির্বাচন সুষ্টু ও শান্তিপূর্ণ হবে কি না এ নিয়ে সংশয়ে রয়েছে নগরীর অধিকাংশ মানুষ। যদিও পুলিশ ও নির্বাচন কমিশন থেকে নিশ্চিত করা হয়েছে নির্বাচন সুষ্ঠু করার জন্য যা করার সবই করা হবে। এরই মধ্যে কুসিকের ২৭টি ওয়ার্ডের ১০৫টি কেন্দ্রের মধ্যে ৮৯টি কেন্দ্রকে ঝুঁকিপূর্ন কেন্দ্র হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে। এই ঝুঁকিপূর্ণ কেন্দ্রের মধ্যে আবার অতিঝুঁকিপূর্ণ কেন্দ্রও রয়েছে।

জেলা পুলিশ অফিস সূত্রে জানা যায়, পুলিশের ভাষায় যে কেন্দ্র গুলো অপেক্ষাকৃত ভালো বা কোন রকম বিশৃংখলা হওয়ার সম্ভাবনা নেই সেগুলোকে বলে সাধারণ কেন্দ্র । আর যেগুলোতে সহিংসতা ঘটার সম্ভাবনা আছে সেগুলোকে বলে গুরুত্বপূর্র্ণ আর যে সকল কেন্দ্র বেশী সহিংসতার আশংকা করা হয় সেগুলোকে বলে অধিক গুরুত্বপূর্ণকেন্দ্র।
জেলা পুলিশ ইতিমধ্যে তাদের গোয়েন্দা তথ্যের উপর ভিত্তি করে ১০৫টি কেন্দ্রের মধ্যে ৮৯টি কেন্দ্রকে ঝুঁকিপূর্ণ কেন্দ্র হিসেবে চিহ্নিত করেছে। এর মধ্যে সদর দক্ষিণ উপজেলার ৯টি ওয়ার্ডের ৩২টি কেন্দ্রের সব গুলিকেই ঝুঁকিপূর্ণ কেন্দ্রের তালিকায় রাখা হয়েছে। এর মধ্যে আবার সদর উপজেলার ১৬,১৭ এবং সদর দক্ষিণ উপজেলার ২৪,২৫ ও ২৬ নং ওয়ার্ডকে অধিক ঝুঁকিপূর্ন কেন্দ্র হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে কুমিল্লা পুলিশ সুপার ফারুক আহমেদ বলেন,কেন্দ্র অনুযায়ী আমরা নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিশ্চিত করব। আমাদের কাছে সব কেন্দ্রই সমান। আমরা যদি মনে করি কোন কেন্দ্রে অধিক নিরাপত্তা ব্যবস্থা দেয়া দরকার তাহলে তাই করব। সুষ্ঠু এবং নিরপেক্ষ নির্বাচন করার জন্য সব ব্যবস্থাই আমরা গ্রহন করব।
অপর দিকে, রিটার্নিং কর্মকর্তা শাহেদুননবী চৌধুরী জানিয়েছেন, পুলিশের সাথে আমার কথা হয়েছে। নিরাপত্তা নিয়ে কোন সমস্যা হবে না।

এ দিকে, পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, মোবাইল টিম ও স্ট্রাইকিং ফোর্স, বিজিবির টহল টিম, রিজার্ভ ফোর্স , র‌্যাব ও ভ্রাম্যমাণ আদালত নির্বাচনের সময় সার্বক্ষণিক মাঠে থাকবে। সব মিলিয়ে ৬ হাজারেরও অধিক আইন প্রয়োগকারী সংস্থার সদস্যরা নিয়োজিত থাকবেন বলেও জানা গেছে।

আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতি ঘটলে তাৎক্ষনিক বুলেট প্রুফ, আরমোরেড পারসোনাল ক্যারিয়ার (এপিসি) ও জলকামান গাড়ির ব্যবহার করা হবে।

ভোটের দিন কুসিক এলাকার আইনশৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রণ ও নির্বাচনী পরিবেশ স্বাভাবিক রাখতে নগরীতে প্রবেশ পথে মোতায়েন থাকবে পুলিশের ৭৫টি চেক পোস্ট ও ১০টি পকেট টিম। ইতোমধ্যে নগরীতে পুলিশের ২১টি টহল টিম ও ১৫টি স্থানে চেকপোস্ট রয়েছে।

কুমিল্লা জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ কামরুল হাসান বলেন, কুমিল্লা সিটি নির্বাচনের ভোট গ্রহণের দিন আইনশৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রণে রাখতে প্রতিটি কেন্দ্রে কঠোর নিরাপত্তা থাকবে। ২৭টি ওয়ার্ডে একজন করে ম্যাজিস্ট্রেট ও ১২ প্লাটুন বিজিবি দায়িত্ব পালন করবে। এ ছাড়া পর্যাপ্ত পরিমানে র‌্যাব ও পুলিশ সদস্য মোতায়েন করা হবে। ভোটাররা যেন নির্বিঘ্নে ভোট দিতে যেতে পারেন আমরা তার সব ব্যবস্থাই করবো।