তিতাসে দাবিকৃত চাঁদা না দেওয়ায় প্রতিপক্ষের গুলিতে ২ ভাই গুলিবিদ্ধ

স্টাফ রিপোর্টার
প্রকাশ: ২ সপ্তাহ আগে

কুমিল্লার তিতাস উপজেলায় দাবিকৃত চাঁদার টাকা না দেওয়ায় বাড়িতে এসে প্রতিপক্ষের ছোঁড়া গুলিতে গুলিবিদ্ধ হয় আপন দুই ভাই।

ঘটনাটি ঘটেছে (১৩ মে) সোমবার সন্ধ্যা ৭টায় উপজেলার ভিটিকান্দি ইউনিয়নের আলীনগর গ্রামের কাউছার মিয়ার বাড়ির সামনে।

আহতরা হলেন, আলীনগর গ্রামের মৃত জুলহাস মিয়ার ছেলে আল আমিন (২৫) ও মো. শাহিন (২২)। এসময় আহতদের স্বজনরা উদ্ধার করে তিতাস উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স নিয়ে যায়। ঘটনার খবর পেয়ে তিতাস থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করে।

আহত আল আমিন ও শাহিনের বড় ভাই মোঃ নুরুজ্জামান বলেন, আমি একটি মাটি কাটার ভ্যাকু এনেছি একটি রাস্তার কাজ ও এক গৃহস্তের পুকুর কাটার জন্য। এতে পোড়াকান্দি গ্রামের ছাদেক মেম্বারের ছেলে আলাউদ্দিন, নুর নবী, বাবু,হযরত আলী ও ইয়াছিনসহ আরো ১৫/১৬ জন মিলে আমাদের গ্রামে এসে আমার দুই ভাইকে এলোপাতাড়ি গুলি করে আহত করে। এ সময় আমি আমার নিজ বাড়িতে ছিলাম। যুবলীগ নেতা নুরুজ্জামান আরও বলেন ৪/৫ দিন আগে আমার নিকট যখন চাঁদা চায় আমি বিষয়টি তিতাস থানার সেকেন্ড অফিসার খালেকুজ্জামানকে জানিয়েছি। তাদের একজনকে থানায় নিয়ে গেলে বিচার করার আশ্বাস দিয়ে ছাড়িয়ে আনে। বাড়িতে আশার পরই আজ এই ঘটনা।

এ বিষয়ে তিতাস থানার সেকেন্ড অফিসার (এস আই) খালেকুজ্জামান নিকট জানতে চাইলে তিনি বলেন, চাঁদা দাবির বিষয়ে আমাকে কেউ অবহিত করেনি এবং আমি এ বিষয়ে কিছুই জানিনা।

অন্যদিকে গুলির ঘটনার বিষয়ে জানতে চাইলে অভিযুক্ত আলাউদ্দিন বলেন, ৪/৫ দিন আগে আমাদের পোড়াকান্দি গ্রামের মতিন মিয়ার ছেলে হযরত আলীর সাথে একটি বিষয়ে কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে নুরুজ্জামানের লোকজন হযরত আলীকে ধরে নিয়ে যায়, তখন তিতাস থানা পুলিশ এসে তাদেরকে থানায় নিয়ে গেলে দুই পক্ষই আপোষ করে চলে আসে। আজকের ঘটনা আমি জানিনা।

তিতাস থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কাঞ্চন কান্তি দাস বলেন, সন্ধ্যায় আলীনগর গ্রামে মারামারি হচ্ছে খবর পেয়ে তাৎক্ষণিক ঘটনা স্থলে পুলিশ পাঠিয়েছি এবং আহতদেরকে দেখতে হাসপাতালে পুলিশ গিয়েছে। কয়েকদিন আগে পোড়াকান্দি গ্রামের হযরত আলী নামের কাউকে থানায় আনা হয়ে ছিল কি না? জানতে চাইলে ওসি বলেন ৯৯৯ ফোন পেয়েছি আলীনগর গ্রামে একটি ছেলে মারধর করছে, পরে তারা নিজেরাই আপোষ হয়ে গেছে।