তিতাসে সিগারেট দোকানি হত্যায় প্রধান আসামি গ্রেফতার

তিতাস প্রতিনিধি ।।
প্রকাশ: ৩ মাস আগে

কুমিল্লার তিতাসে সিগারেট দোকানি মানিক মিয়াকে (৩২) হত্যার ঘটনায় প্রধান আসামি বাহাউদ্দীনকে আটক করেছে পুলিশ। আটককৃত বাহাউদ্দীন (৩৮) উপজেলা কানাইনগর গ্রামের নায়েব আলীর ছেলে।
তিতাস থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা কাঞ্চন কান্তি দাস গ্রেফতারের বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, শুক্রবার ভোর সাড়ে ৫টায় উপজেলা জগতপুর ইউনিয়ন এলাকা থেকে তাকে আটক করা হয়। এ ঘটনায় বাহাউদ্দীনকে প্রধান আসামি ও তার ভাই জালালউদ্দিনসহ ৪ জনকে আসামি করে তিতাস থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের হয়েছে।
আসামিকে বিধি মোতাবেক বিজ্ঞ আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে।
উল্লেখ্য, গত বৃহস্পতিবার দুপুরে উপজেলা কানাইনগর গ্রামের নায়েব আলীর দুই ছেলে বাহাউদ্দীন ও জালালউদ্দীন, প্রতিবেশী ভূঁইয়া বাড়ীর মোখলেস ভূইয়ার ছেলে দোকানী মানিকের কাছে সিগারেট বাকী চায়। কিন্তু সিগারেট না থাকায় সে দিতে অপারগতা জানায়, এতে বাহাউদ্দীন ক্ষিপ্ত হয়ে বাকবিতন্ডার এক পর্যায়ে মানিকের সাথে হাতাহাতি করে। তারপর ঘর থেকে দা হাতে ,তার ভাই জালালউদ্দীনকে সাথে করে নিয়ে মানিককে কোপাতে আসে। তখন প্রতিবেশীদের বাধাঁর মুখে ব্যর্থ হয়ে তারা দুই ভাই আবারও বাড়ি গিয়ে ছুরি হাতে নিয়ে বাড়ির অন্যদিক দিয়ে ঘুরে এসে দোকানে ঢুকে জালালউদ্দীন মানিককে জাবড়ে ধরলে তার ভাই বাহাউদ্দীন গলায় ছুরি বসিয়ে দিয়ে রক্তাক্ত ও যখম করে।
মুমূর্ষু অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে তিতাস উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক অপারগতা জানালে, ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ায় সময় পথিমধ্যে সে মৃত্যুবরন করে।

নিহত মানিক মিয়ার স্ত্রী তাসলিমা বেগম বলেন, আমার মাসুম বাচ্চাগুলো এতিম হয়ে গেল। এখন ওদের কী হবে? আমি এর বিচার চাই। আমার ভবিষ্যৎ অন্ধকার। আক্ষেপ করে তাসলিমা আরও বলেন, ‘অবুঝ তিন শিশুর কী হবে? আমার কী হবে?’
নিহত মানিকের সংসারে স্ত্রী তাসলিমা বেগম, তিন ছেলে মুরসালিন মিয়া (৮), মুসা মিয়া (৬) ও তানজিল মিয়া (৪) আছে।