নানা অনিয়মে কুমিল্লা নগরীর নিবেদিতা হাসপাতাল সিলগালা

যন্ত্রপাতি ও ওষুধ রাখার ফ্রিজের পাওয়া গেল গরুর মাংস
স্টাফ রিপোর্টার
প্রকাশ: ৪ সপ্তাহ আগে

# ম্যানাজার হিসাব রাখার পাশাপাশি নিজেই ডাক্তার ও নার্সের কাজ করেন, চালান অপারেশনও #

কুমিল্লা নগরীর তেলিকোনায় “নিবেদিতা হাসপাতাল” নামে একটি হাসপাতালের অপারেশন থিয়েটারে যন্ত্রপাতি ও ওষুধ রাখার ফ্রিজে গরুর মাংস রাখাসহ বিভিন্ন অনিয়মের অভিযোগে ওই হাসপাতালটি সিলগালা করা হয়েছে। শনিবার (৩ সেপ্টেম্বর) দুপুরে অভিযান চালিয়ে ওই হাসপাতাল সিলগালা করে দেয় জেলা সিভিল সার্জন অফিস।
অভিযানের নেতৃত্ব দেন জেলা সিভিল সার্জন কার্যালয়ের মেডিকেল অফিসার আবদুল্লাহ আল সাকী। এ সময় আরও উপস্থিত সিভিল সার্জন কার্যালয়ের মেডিকেল অফিসার কেয়া রাণীসহ অন্যান্য কর্মকর্তারা।

জেলা সিভিল সার্জন অফিস সূত্রে জানা গেছে, অবৈধ ক্লিনিক, হাসপাতাল ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারের বিরুদ্ধে অভিযানের অংশ হিসেবে নিবেদিতা হাসপাতালে অভিযান চালানো হয়। এ সময় ওই হাসপাতালের অপারেশন থিয়েটারের যন্ত্রপাতি ও ওষুধ সংরক্ষণের ফ্রিজে গরুর মাংস পাওয়া যায়। এছাড়া হাসপাতালে সদ্য অপারেশন করা একজন রোগী পাওয়া গেলেও ২৪ ঘণ্টার মধ্যে কোনো নার্স বা ডাক্তার তাকে দেখতে আসেননি। কোনো ডাক্তার বা নার্সকেও হাসপাতালে পাওয়া যায়নি। এমন অবেহেলা ও স্বাস্থ্যসেবার এমন দুরবস্থার কারণে হাসপাতালটি সিলগালা করা হয়েছে।

মেডিকেল অফিসার আবদুল্লাহ আল সাকী বলেন, “আমরা তিনটি হাসপাতালে অভিযান পরিচালনা করেছি। দুটির সামান্য কিছু ত্রুটি ছিল। তাদের সতর্ক করা হয়েছে। কিন্তু নিবেদিতা হাসপাতালে অবস্থা খুবই নাজুক। সামান্য সংখ্যক রোগী থাকলেও কোনো ডাক্তার নেই, নার্স নেই, বর্জ্য ব্যবস্থা নেই। রোগীরা অভিযোগ করেছেন, একজন ম্যানেজার আছেন তিনি ডাক্তার, তিনিই নার্স, আবার তিনিই অপারেশন করেন। আমরা হাসপাতালটি বন্ধের ঘোষণা দিয়েছি।”

অভিযানে থাকা অপর মেডিকেল অফিসার ডা. কেয়া রাণী বলেন, “ওই হাসপাতালের ফ্রিজে গরুর মাংস রাখা হয়েছে। ফ্রিজটি যদিও অপারেশন থিয়েটারের বাইরে কিন্তু অপারেশনের সময় তা ভেতর নেওয়া হয়। একই ফ্রিজে অপারেশনের ওষুধ ও যন্ত্রপাতি রাখা হয়। এই ফ্রিজটির নিচের অংশে যন্ত্রপাতি ও ওপরের অংশে গরুর মাংস রাখা ছিল। যার ফলে জীবাণু ছড়িয়ে পড়াটা একদমই স্বাভাবিক। ফলে হাসপাতালটি বন্ধ করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।”