বিচ্ছিন্ন অভিযোগ ও ভোটার উপস্থিতি কমের মধ্যে কুমিল্লা সিটি উপনির্বাচন সম্পন্ন : ভোট গনন চলছে

স্টাফ রিপোর্টার
প্রকাশ: ৪ মাস আগে

কুমিল্লা সিটি করপোরেশনের মেয়র পদে উপনির্বাচনে একটি কেন্দ্রে গোলাগুলি করে দুইজনকে গুলিবিদ্ধের ঘটনাসহ বিচ্ছিন্ন কয়েকটি ঘটনা ও ভোটার উপস্থিতি কম ছাড়া মোটামেটি শান্তিপূর্ণ ভাবেই শেষ হয়েছে নির্বাচন। এখন চলছে ভোট গননা। এছাড়া ক্ষমতাসীন দল আওয়ামীলীগের বাস প্রতীকের প্রার্থীর সমর্থকদের বিরুদ্ধে এজেন্টদের বের করে দেওয়া ও ভোট কেন্দ্রে আসতে বাধা দেওয়ারও অভিযোগ রয়েছে। ভোট প্রয়োগের হার প্রায় ৩৫ ভাগ বলে জানা গেছে।
গতকাল শনিবার সকাল ৮টায় সিটির ২৭টি ওয়ার্ডের ১০৫টি কেন্দ্রের ৬৪০টি বুথে ভোট গ্রহন শুরু হয়ে শেষ হয় বিকাল ৪টায়। অধিকাংশের বেশি কেন্দ্রেই সকাল থেকেই ভোটার খড়ায় ভুগছিল ভোট গ্রহনকারীরা।
কুমিল্লা সিটির এবারের নির্বাচনে সবচেয়ে বড় ঘটনা ঘটে নগরীর ১৯নং কেন্দ্রে। ভোটগ্রহণ চলাকালে ১৯ নম্বর ওয়ার্ডের মুন্সি এম আলী উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে গোলাগুলি হয়। ১১নং ওয়ার্ডের ভিক্টোরিয়া কলেজিয়েট হাই স্কুল কেন্দ্রে নিজে ভোট দেয়ার পর ঘোড়া প্রতীকের প্রার্থী নিজাম উদ্দিন কায়সার অভিযোগ করেন, ১৯ নম্বর ওয়ার্ডে মুন্সি এম আলী উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে গোলাগুলি হয়েছে। তার দুই সমর্থক গুলিবিদ্ধ হয়েছেন।
এর আগে কুমিল্লা সিটি করপোরেশনে মেয়র পদের উপনির্বাচনে ভোটারদের ভয়ভীতি দেখিয়ে কেন্দ্রে আসতে বাধা দেয়ার অভিযোগ উঠে। সেই সঙ্গে বিভিন্ন কেন্দ্র থেকে এজেন্ট বের করে দেয়ার অভিযোগ করেছেন প্রার্থীরা। সকাল ৮টায় ভোটগ্রহণ শুরুর পর এমন অভিযোগ করেন তারা।
অন্যদিকে, ভোটগ্রহণ শুরুর পর সকালেই কুমিল্লা হাইস্কুল কেন্দ্রে দুই প্রার্থীর নারীর সমর্থকদের মধ্যে হাতাহাতির ঘটনা ঘটে।
উপ নির্বাচনে সকালে কেন্দ্রে ভোটার উপস্থিতি কম দেখা গেছে। তবে বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে ভোটার উপস্থিতি খুব একটা বাড়েনি। সকাল ৮টায় ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনে (ইভিএম) ভোটগ্রহণ শুরু হয়।এবার দলীয় কোনো প্রতীক না থাকায় সরকার দলীয় দুইজন এবং বিএনপির বহিস্কৃত দুই নেতা মেয়র পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। তাদের মধ্যে মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সংসদ সদস্য আ ক ম বাহাউদ্দীন বাহারের মেয়ে মহানগর আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ডা. তাহসিন বাহার সূচনা বাস প্রতীকে, মহানগর আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা নূর উর রহমান মাহমুদ তানিম হাতি প্রতীকে, বিএনপির আজীবন বহিস্কৃত নেতা, সাবেক দুইবারের মেয়র মনিরুল হক সাক্কু টেবিল ঘড়ি প্রতীকে এবং বিএনপির আরেক বহিস্কৃত নেতা নিজাম উদ্দিন কায়সার ঘোড়া প্রতীকে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।
এই সিটিতে ২ লাখ ৪২ হাজার ৪৫৮ জন ভোটার ১০৫টি কেন্দ্রে ভোট দেয়ার সুযোগ পাচ্ছেন। এর মধ্যে পুরুষ ১ লাখ ১৮ হাজার ১৮২ জন, নারী ১ লাখ ২৪ হাজার ২৭৪ জন ও হিজড়া দুইজন।