মুরাদনগর উপজেলা বিসিএস ক্যাডার অফিসার্স ফোরামের মতবিনিময় সভা ২০২৪ অনুষ্ঠিত

স্টাফ রিপোর্টার
প্রকাশ: ৪ মাস আগে

#আমি আপনাদের ভাই। আপনারা আমাকে সহযোগিতা করলে আমি মুরাদনগরের মানুষের ভাগ্য বদলে দেবো। -জাহাঙ্গীর আলম সরকার (সাংসদ কুমিল্লা-৩, মুরাদনগর)।
#উন্নয়ন কখনও এককভাবে হয় না। পারস্পরিকভাবে যোগাযোগের মাধ্যমে উন্নয়ন করতে হয়। রাজনৈতিক নেতা হিসেবে আমাদের সাংসদ পরিকল্পনা নিবেন, আর সহযোগিতার জন্য আমরা ক্যাডার অফিসাররা সবাই তার পাশে আছি। -মোঃ জয়নাল আবেদীন (রাষ্ট্রপতির প্রেস-সচিব)

কুমিল্লা-৩ (মুরাদনগর) আসনের সাংসদ জাহাঙ্গীর আলম সরকার বলেছেন, আমি মুরাদনগর উপজেলার ৬ লক্ষ মানুষের ভাগ্য বদলাতে জনপ্রতিনিধি হয়েছি। এ ডিজিটাল যুগেও মুরাদনগরের উন্নয়ন ব্যবস্থা এখনও অনেক পেছনে। ইতিপূর্বে এ উপজেলার জনপ্রতিনিধি কখনও মুরাদনগরের উন্নয়ন নিয়ে সংসদে কথা বলে নাই। আমি ৭৫ বছর বয়সে সাংসদ নির্বাচিত হয়েছি। আমি এ উপজেলার ২২টি ইউনিয়নের সকল রাস্তা-ঘাট ও শিক্ষা-প্রতিষ্ঠানগুলোর উন্নয়নে কাজ করবো। আমার রাজনীতির বয়স ৪০ বছর। সকল এমপি মন্ত্রী আমার পরিচিত। বাংলাদেশের সবচেয়ে বেশি সংখ্যক ক্যাডার অফিসার এ মুরাদনগর উপজেলায়। উপজেলাকে সাজানোর জন্য ৫ বছর অনেক সময়। আপনারা সহযোগিতা করলে আমরা এ উপজেলাকে পাল্টে দিতে পারবো। আমি মুরাদনগরের সকল ক্যাডার অফিসারদের সাথে নিয়ে মুরাদনগরের উন্নয়নে কাজ করতে চাই।

গতকাল শনিবার দুপুরে বাংলাদেশ পল্লী উন্নয়ন একাডেমিতে ‘মুরাদনগর উপজেলা বিসিএস ক্যাডার অফিসার্স ফোরাম’ এর উদ্যোগে বার্ষিক মতবিনিময় সভা ২০২৪ অনুষ্ঠিত হয়। উক্ত মতবিনিময় সভায় তিনি এসব কথা বলেন।

মতবিনিময় সভায় ‘ক্যাডার অফিসার্স ফোরাম’ এর সদস্যদের বক্তব্যে মুরাদনগর উপজেলার শিক্ষাব্যবস্থা ও রাস্তাঘাটের উন্নয়নের বর্তমান দুরবস্থাকে গতিশীল করার জন্য সকলে ঐক্যবদ্ধ ও সহযোগী হয়ে কাজ করার বিভিন্ন বিষয় উঠে আসে।

অর্থ মন্ত্রনালয়ের ডেপুটি সেক্রেটারি খন্দকার মোঃ নুরুল হকের উপস্থাপনায় এবং মহামান্য রাষ্ট্রপতির প্রেস-সচিব মো: জয়নাল আবেদীনের সভাপতিত্বে উক্ত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কুমিল্লা-৩ আসন (মুরাদনগর) এর মাননীয় সাংসদ আলহাজ্ব জাহাঙ্গীর আলম সরকার। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কুমিল্লা জেলা প্রশাসক খন্দকার মু. মুশফিকুর রহমান এবং কুমিল্লা পুলিশ সুপার আব্দুল মান্নান বিপিএম (বার)।

ক্যাডার অফিসার্স ফোরামের সভাপতি মোঃ জয়নাল আবেদীন বলেন, যারা উন্নয়নের কান্ডারী আমরা তাদেরকে সহযোগিতা করতে চাই। মাটির প্রতি আন্তরিকতা ও ভালোবাসা থাকার কারণে আজ সবাই একত্রিত হয়েছে। লক্ষ্য স্থির থাকলে আমরা খুব সহজে আমাদের উপজেলাকে দ্রুতগতিতে এগিয়ে নিতে পারবো। উন্নয়ন কখনও এককভাবে হয় না। পারস্পরিক যোগাযোগের মাধ্যমে উন্নয়ন করতে হয়। রাজনৈতিক নেতা হিসেবে পরিকল্পনা সাংসদকে নিতে হবে। আর সহযোগিতার জন্য মুরাদনগর উপজেলা বিসিএস ক্যাডার অফিসার্স ফোরাম সবসময় সাথে থাকবে। এছাড়া তিনি সুপারিশ প্রাপ্ত সকল নতুন ক্যাডার অফিসারদেরকে অভিনন্দন জানান। পারস্পরিক মেলবন্ধন বৃদ্ধির জন্য আমাদের এ বন্ধন অটুট থাকবে। ফোরামে সম্পৃক্ত হওয়া মানে মুরাদনগরের মানুষের সাথে সম্পৃক্ত হওয়া। এ সভা সবার জন্য উন্মুক্ত চাইলে যেকেউই আসতে পারেন।

প্রোগ্রামের সহ-সভাপতি প্রফেসর মু. মোসলেহ উদ্দিন সরকার বলেন, ২০১৩ সালে এ ফোরামের যাত্রা শুরু হয়। মুরাদনগর উপজেলার যেসকল কেন্দ্র আছে তার মধ্যে প্রায় ৩১টি কেন্দ্রে গাড়ি নিয়ে প্রবেশ করা যায় না। মুরাদনগর উপজেলার এতো ক্যাডার অফিসার থাকা স্বত্তেও এখনও সবার মধ্যে সম্প্রীতি তৈরি হয়নি। অতীত থেকে শিক্ষা নিয়ে যারা ভবিষ্যতের পরিকল্পনা করে তারাই সফল হয়। সবার মধ্যে সম্প্রীতি থাকলে মুরাদনগরকে একটি উন্নত উপজেলা হিসেবে রুপান্তরিত করতে পারবো।

সভার শুরুতে স্বাগত বক্তব্যে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব মোঃ মুহিদুল ইসলাম বলেন, আমাদের উপজেলাটি জেলা শহর থেকে অনেক দূরে হওয়ায় উন্নয়ন পৌঁছাতে অনেক বিলম্ব হয়। নিজেদের মধ্যে ঐক্য, পারস্পরিক মায়া-মমতা ও সম্প্রীতি বৃদ্ধির লক্ষ্যে আমাদের এই ফোরাম কাজ করে। আমরা সবাই চাইলে সম্মিলিতভাবে আমাদের উপজেলাকে অনেক দূর এগিয়ে নিতে পারবো। ‘মুরাদনগর বিসিএস ক্যাডার অফিসার্স’ একটি অরাজনৈতিক ও কল্যানমুখী ফোরাম।

কুমিল্লা জেলার পুলিশ সুপার আব্দুল মান্নান বলেন, ‘মুরাদনগর উপজেলা বিসিএস ক্যাডার অফিসার্স ফোরাম’ এর মতো এধরণের সংগঠন বাংলাদেশে প্রথম। পুলিশিং সার্ভিসের প্রয়োজনে যেকোনো কোনো সময় আমাকে তথ্য প্রদানের জন্য সবার প্রতি আহবান থাকবে। যাতে সবার প্রতি আমাদের সার্ভিসটা সুন্দরভাবে প্রদান করার সুযোগ পাই। এছাড়া তিনি যেকোনো সময় তাকে কল দেওয়ারও পরামর্শ দেন।

মুরাদনগর উপজেলা নির্বাহী অফিসার আব্দুস সামাদ সিকদার বলেন, আমার জেলায় যতজন সিভিল সার্জন আছেন এর চেয়ে মুরাদনগর উপজেলায় বেশি আছে। মুরাদনগর অনেক বড় উপজেলা। যেভাবে উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রয়েছে সেদিক থেকে মুরাদনগর অনেক পেছনে। ৩১টি নির্বাচন কেন্দ্রে গাড়ি নিয়ে ঢুকতে পারিনি সম্মানিত সাংসদের প্রতি অনুরোধ থাকবে এই সমস্যাগুলো যাতে উন্নতি করা হয়।

এছাড়াও অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন, কুমিল্লা বার্ডের ডিজি মোঃ হারুনু অর রশীদ, ফোরামের সাধারণ সম্পাদক সমন্বয় ও সংস্কার পরিষদ সচিব মাহমুদুল হোসেন খান, বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশনের সদস্য এনডিসি ড. মু. হেলাল উদ্দিন, ইঞ্জিনিয়ার বোরহান উদ্দিন সহ অন্যান্যরা।

অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন, বিসিএস প্রশাসন, পররাষ্ট্র, পুলিশ, নিরীক্ষা, কাস্টমস, টেক্সট, সাধারণ শিক্ষা, খাদ্য, রেলওয়ে, পরিবার পরিকল্পনা, স্বাস্থ্য, তথ্য, আনসার, সমবায় ক্যাডারের সদস্যবৃন্দরা।