রিফাত-কায়সারের সমর্থকদের মাঝে উত্তেজনা

টেবিলে তিন মেয়র প্রার্থী
স্টাফ রিপোর্টার
প্রকাশ: ৬ মাস আগে

আবু সুফিয়ান রাসেল।।

ভোটের বাকি আর মাত্র দু’দিন। জমেছে কথার লড়াই। এ নির্বাচনে প্রথম বারের মতো এক টেবিলে বসেছেন তিনজন মেয়র প্রার্থী। পুরো আলোচনা ছিলো সাবেক মেয়রের ব্যর্থতা আর নিজের প্রতিশ্রুতে ভরপুর। প্রার্থী ও দর্শকদের প্রশ্ন ছিলো বিদায়ী মেয়রের কাছে। মানুষের অনুপস্থিতিতে সমালোচনা না করার আহ্বান করেছেন উপস্থাপক মিথিলা ফারজানা।

শনিবার সন্ধ্যায় একটি বেসরকারি টেলিভিশনের সরাসরি অনুষ্ঠানে অংশ গ্রহণ করেছেন নৌকার প্রার্থী আরফানুল হক রিফাত, ঘোড়া প্রতীকের স্বতন্ত্র প্রার্থী নিজাম উদ্দিন কায়সার ও হরিণ প্রতীকের প্রার্থী কামরুল আহসান বাবুল। আলোচনায় নিজাম উদ্দিন কায়সার বলেন, রিফাত ভাই দুর্নীতির শ্বেতপত্র প্রকাশ করবেন। সরকারি দলের সমর্থন ছাড়া কোন দুর্নীতি হয় না।

সিটি কর্পোরেশন দুর্নীতির সাথে তিনজন জড়িত। এ সময় রিফাত বলেন, তিননজনের নাম বলো? তখন কায়সার বলেন, একজন এমপি বাহার, আরেকজন….। এ সময় উপস্থিত জনতা ভুয়া…. ভুয়া বলে চিৎকার করে।
আলোচনায় সাক্কু ছাড়া তর্ক-বিতর্ক ছিলো লবণহীন। দ্বিতীয় মুরাদপুরের বাসিন্দা মোহাম্মদ টিপু বলেন, সাবেক মেয়র আবার কেনো নির্বাচন করছেন তা জানতে চাই। আজিজুর রহমান নামের একজন ক্রীড়াবিদ বলেন, সাবেক মেয়রকে কখনো স্টেডিয়ামে দেখিনি। কায়সার সাহেব আপনি খেলাধূলার জন্য কী করবেন? চৌদ্দগ্রামের সাবেক পৌর মেয়র মিজানুর রহমান বলেন, সাক্কু সাহেব গত ১৬ বছর মেয়র ছিলেন। তিনি কেনো যানজট আর জলাবদ্ধতা সমাধান করতে পারেননি?

এ জাতীয় নানা প্রশ্ন ছিলো সাবেক মেয়র মনিরুল হক সাক্কুর কাছে। এ বিষয়ে উপস্থাপক মিথিলা ফারজানা বলেন, তার সম্পর্কে আলোচনা করাটা ঠিক হবে না। কারণ তিনি এখানে নেই। তাকে আমন্ত্রণ করেছি। বারবার যোগাযোগ করা হচ্ছে। তার সম্মানে চেয়ার খালি রেখেছি। তিনি অনুষ্ঠান চলাকালীন আসবেন। এ বিশ্বাস করি।
স্বতন্ত্র প্রার্থী কামরুল আহসান বাবুল বলেন, মাস্টার প্ল্যান দরকার। সমন্বয় দরকার। পাশাপাশি দোষারোপের রাজনীতি থেকে বেরিয়ে আসতে হবে। দানবীয় শাসন ও শ্বেতপত্র প্রকাশ এটা আসলে হবে না। বাস্তবতা ভিন্ন।
সুজন মহানগর কমিটির সভাপতি শাহ মোহাম্মদ আলমগীর খান বলেন, কুমিল্লায় অনেক সমস্যা আছে। মেয়র একা সব সমাধান করতে পারবেন না। এখানে প্ল্যান হয় বাস্তবায়ন হয় না। ডাকাতিয়া নদী পর্যন্ত খাল খনন ছাড়া জলাবদ্ধতা সমাধান হবে না।

কুমিল্লা জেলা দোকান মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক আতিক উল্লাহ খোকন বলেন, কুমিল্লার শতবর্ষী দু’টি বাজার রয়েছে। চকবাজার ও রাজগঞ্জ। এখানে শতশত ব্যবসায়ী রয়েছে। তাদের নিয়ে মেয়র প্রার্থীদের পরিকল্পনা জানতে চাই।

আলোচনার শেষ পর্বে একবাক্যে ভোটারদের জন্য বলুন উপস্থাপকের এমন প্রস্তাব রিফাত বলেন, যৌবনের প্রথম ভোট নৌকায় হোক। কায়সার বলেন, আমি সকল শ্রেণি পেশার মানুষের ভোট চাই। বাবুল বলেন, মার্কা নয় ব্যক্তি দেখে ভোট দিন। আলোচনা শেষে রিফাত-কায়সারের সমর্থকদের মাঝে উত্তেজনা আর নানা স্লোগান দিতে দেখা গেছে।

প্রসঙ্গত, হাতপাখা প্রতীকের প্রার্থী রাশেদুল ইসলাম বলেন, ‘এ প্রোগ্রামে আমাকে ইনভাইট করা হয়নি।