লালমাইয়ে নকলে সহযোগিতার দায়ে দুই শিক্ষক ও এক ছাত্রকে বহিষ্কার; দুই জনের বিরুদ্ধে মামলা।

স্টাফ রিপোর্টার
প্রকাশ: ৯ মাস আগে

লালমাইয়ে এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষায় নকলে সহযোগিতা করায় দুই শিক্ষক এবং এক পরীক্ষার্থীকে বহিষ্কার করা হয়েছে। মঙ্গলবার (১৬ মে) পরীক্ষা চলাকালে উপজেলার বাগমারা উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে এ ঘটনা ঘটে।

এছাড়া একই সময়ে মোবাইলের মাধ্যমে প্রশ্নের তথ্য আদান প্রদানের দায়ে বাগমারা বয়েজ স্কুল গেইট সংলগ্ন ছাত্র বন্ধু লাইব্রেরীর স্বত্বাধিকারী হরি বন্ধু দাশ এবং সর্দার হোসেন আলী উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষক জামাল হোসেনের বিরুদ্ধে পাবলিক পরীক্ষা অপরাধ আইনে ১৯৮০ এর ৪খ/১৩ ধারায় মামলা রুজু করা হয়েছে। মঙ্গলবার সন্ধ্যায় পরীক্ষা কেন্দ্র সচিব ও দৌলতপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক তোফাজ্জল হোসেন বাদী হয়ে এ মামলা দায়ের করেন।

বহিষ্কৃত শিক্ষকরা হলেন- উপজেলার জ্যোতিপাল মহাথের বৌদ্ধ আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক সুব্রত সিংহ ও হরিশ্চর ইউনিয়ন হাইস্কুল এন্ড কলেজের সহকারী শিক্ষক ফয়সাল আহম্মেদ। বহিস্কৃত পরীক্ষার্থী দৌলতপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের ছাত্র ফখরুল ইসলাম।

এছাড়া মামলার আসামিরা হলেন- উপজেলার বাগমারা দক্ষিণ ইউনিয়নের পশ্চিম অশ্বথতলা গ্রামের ননী গোপাল দাশের ছেলে ছাত্র বন্ধু লাইব্রেরীর স্বত্বাধিকারী হরি বন্ধু দাশ এবং একই ইউনিয়নের বলি পদুয়া গ্রামের মৃত জুলফে আলীর ছেলে, নাওড়া সর্দার হোসেন আলী উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষক জামাল হোসেন।

এ বিষয়ে লালমাই থানার এসআই রোজেল জানান, পরীক্ষা চলাকালে মোবাইলে হোয়াটসঅ্যাপের মাধ্যমে প্রশ্ন এবং প্রশ্নের উত্তরের ছবি আদান প্রদানের দায়ে হরি বন্ধু দাশ ও জামাল হোসেন নামে দুইজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে মামলা রুজু হয়েছে এবং আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে প্রেরণ করা হবে।

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নাছরিন আক্তার জানান, নকল করার দায়ে বাগমারা উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্র থেকে এক পরীক্ষার্থীকে বহিষ্কার এবং নকলে সহযোগিতা করার দায়ে দুই শিক্ষককে বহিষ্কার করা হয়েছে। পাশাপাশি মোবাইল প্রশ্নের তথ্য আদান প্রদানের কারণে দুইজনের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে।