শনিবার, ৪ঠা জুলাই, ২০২০ ইং | ২০শে আষাঢ়, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
কুমিল্লায় অবস্থা বুঝে পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেয়া হবে-জেলা প্রশাসনআখাউড়ায় ছাএীকে যৌন নিপীড়নের অভিযোগসীমান্ত পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণে আচমকা লাদাখে মোদিকরোনাভাইরাসে ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যুর মিছিলে ৩৮ জনশুটিংয়ে ফিরেই নাখোশ অমিতাভ রেজা!ফাইনাল বিক্রির’ তদন্তে এবার সাঙ্গাকারাকে ডাকলো পুলিশবাংলাদেশে আবিষ্কার করোনার টিকা ৬ মাসের মধ্যে বাজারে আসছে!ঘুষ দেওয়ার কথা স্বীকার করলেও নিজেকে নির্দোষ দাবি করেছেন এমপি পাপুলকুমিল্লা মেডিক্যালে করোনা উপসর্গে আরও ৫ জনের মৃত্যুবাংলাদেশে প্রথম করোনা ভ্যাকসিন আবিষ্কারের দাবিসীমান্তে শক্তি বাড়াচ্ছে চীন, দীর্ঘমেয়াদী সংঘাতের জন্য প্রস্তুতি ভারতেরওকরোনায় মৃত্যুর মিছিলে আরও ৪১ জনফেনী সদর হাসপাতালের আইসোলেশন ইউনিটে ৩ জনের মৃত্যুট্রান্সকম গ্রুপের চেয়ারম্যান লতিফুর রহমান আর নেইস্বাস্থ্যমন্ত্রীকে সরানোর দাবি সংসদেমাদককে কেন্দ্রে করে দুই গ্রুপের সংঘর্ষে পথচারী নিহতনোয়াখালীতে ঘরে ঢুকে স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগ,কুমিল্লার রেড জোনে কমছে আক্রান্তের সংখ্যা৮ বছরে ‘রেকর্ড’ স্বর্ণের দামইংল্যান্ডে করোনা টেস্ট করে কোয়ারেন্টাইনে পাকিস্তানি ক্রিকেটাররা

নবান্ন উৎসবে মাছের মেলা ‘এই বড় বড় মাছ, নদীর খুব স্বাদের মাছ’

‘এই বড় বড় মাছ, নদীর মাছ। খুব স্বাদের মাছ। ১০ কেজির কাতলা মাছ।’ বগুড়া উথলী গ্রামে মোকামতলা-জয়পুরহাট আঞ্চলিক মহাসড়কের পাশ থেকে মাইকে এমন শব্দ ভেসে আসছিল। সেখানে নবান্ন উৎসব উপলক্ষে সোমবার দিনব্যাপী বসেছিল মাছের মেলা।

এ উপলক্ষে বিভিন্ন স্থানের হাটবাজারে মাছের মেলা বসে। দাওয়াতে আসা মেয়ে-জামাই, নাতি-নাতনি ও আত্মীয়স্বজনকে মাছ, নতুন চালের ভাত ও সবজি দিয়ে আপ্যায়ন করা হয়েছে।

নন্দীগ্রাম উপজেলার বৃহৎ রণবাঘা ও ওমরপুর বাজারে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, হরেকরকম মাছের মেলা বসেছিল।

প্রতিটি দোকানে

প্রতিটি দোকানে সাজানো হয়েছিল বোয়াল, রুই, কাতলা, চিতল, সিলভার কার্প, বাগাড়সহ হরেকরকমের মাছ দিয়ে।

এক কেজি থেকে ১৪ কেজি ওজনের মাছ বিক্রি হয়। জনগণ পরিবারের সদস্য ও আত্মীয়স্বজনকে আপ্যায়নে উৎসাহের সঙ্গে মাছ কিনেছেন। কোনো কোনো বিক্রেতা বিশালাকৃতির মাছ মাথার ওপর তুলে ধরে ক্রেতাদের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন।

উপজেলার নামুইট গ্রামের মাছ বিক্রেতা মিন্টু মিয়া জানান, নবান্ন উৎসবকে ঘিরে অনেকে বাড়ির আশপাশের পুকুরে মাছ চাষ করেন। নবান্নের কারণে বড় বড় মাছ বিক্রি করতে আনেন। তারা ক্রেতাদের ক্রয়ক্ষমতাকে চিন্তা করে মাছের দাম কম রাখেন।

মাছ বিক্রেতা মোকাব্বর হোসেন জানিয়েছেন, মাছের আকারভেদে একটি মাছ ৮ হাজার টাকা পর্যন্ত বিক্রি হয়েছে।

উপজেলার নন্দীগ্রাম সদরের অসিম কুমার রায় জানিয়েছেন, ওমরপুর বাজার থেকে ৫ হাজার টাকার মাছ কিনেছেন।

দাসগ্রামের বাদল চন্দ্র জানিয়েছেন, রুই মাছ ৪৮০ টাকা কেজি, বিগ্রেড ৫৫০ টাকা কেজি ও চিতল ৯০০ টাকা কেজি দরে কিনেছেন।

নাটোরের সিংড়া উপজেলার মাসিন্দা গ্রামের অমল কুমার জানান, বিগ্রেড, সিলভারকার্প, রুই ও কাতলা মাছের দাম ঠিক আছে। অন্য বছরের চাইতে এবার চিতল ও বোয়াল মাছের দাম একটু বেশি। তবে বাজারে বড় বড় মাছ দেখে মনটা বেশ খুশি।

সংবাদটি শেয়ার করুন............
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  



Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *