কুমিল্লায় প্রবাসীর পিতাকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ

স্টাফ রিপোর্টার
প্রকাশ: ১০ মাস আগে

কুমিল্লার বুড়িচং উপজেলার ইছাপুরা গ্রামে প্রবাসীর পিতাকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ পাওয়া গেছে।
শনিবার (১২ আগস্ট) সকাল ১০ টায় এ ঘটনা ঘটে।  নিহত ব্যক্তির নাম ইসহাক (৫৩)।  সে উপজেলার ইছাপুরা গ্রামের মৃত মোহাম্মদ আলী আশরাফের ছেলে।
এ ঘটনায় বুড়িচং থানা পুলিশ একজনকে আটক করেছে।
আটকৃত ব্যক্তির নাম মোঃ ইব্রাহিম।
জানা যায়, নিহত ইসহাক মিয়ার সাথে তার ভাই ইব্রাহিমের  বসতভিটে নিয়ে বিরোধ চলে আসছিল।
এই বিরোধের জের ধরে শুক্রবার সকালে নিহত ইসহাক মিয়ার বাড়ি থেকে বের হওয়ার রাস্তা বন্ধ করে দেয় তার ভাই ইব্রাহিম ও তার ছেলেরা। পরে ওই প্রবাসীর পরিবার পরে জাতীয় জরুরী সেবা নম্বর ৯৯৯ কল করে পুলিশকে জানায়।
খবর পেয়ে বুড়িচং থানার উপ-পরিদর্শক আব্দুল জব্বার ঘটনাস্থলে এসে চলাচলের রাস্তা উন্মুক্ত করে দেয়।
এ ঘটনার জেরে শনিবার সকালে আবারও ইব্রাহিম ও তার ছেলেরা  ইছহাকের ওপর হামলা চালায়। হামলাকারীরা এ সময় ঘরে ডুকে ইছাহাক মিয়াকে পিটিয়ে আহত করে, এতে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়। নিহত ইসহাক মিয়ার দুই ছেলে প্রবাসে থাকে।
স্থানীয়রা জানায়, ইসহাক মিয়ার দুই ছেলে প্রবাসে থাকার কারণে বাড়িতে এসে একা ছিল। যার ফলে প্রতিপক্ষের লোকজন প্রায়ই তাকে নির্যাতন ও মারধর করত। শুক্রবার তারা ইসহাক মিয়ার বাড়ির রাস্তা বন্ধ করে দেয়। এ ঘটনায় জুম্মার নামাজও আদায় করতে পারেননি তিনি।
স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান মোঃ বিলাল হোসেন জানান, বসতভিটা ও বাড়ির ছাদ নিয়ে দুই পরিবারের মধ্যে পূর্ব বিরোধ চলে আসছিল। এ নিয়ে একাধিক সালিশ বৈঠক হয়। শনিবার সকালে প্রতিপক্ষের হামলায় ইসাহাক মিয়া নিহত হয়।
নিহতের খবর পেয়ে বুড়িচং থানার উপরিদর্শক জাহাঙ্গীর হোসেন ঘটনাস্থলে আসে।
পুলিশ কর্মকর্তা জাহাঙ্গীর হোসেন জানান,  মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে। এ ঘটনার সাথে সম্পৃক্ততার অভিযোগে ইব্রাহিম নামে একজনকে আটক করা হয়েছে।
বুড়িচং থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওসি আবুল হাসানাত খন্দকার জানান, পুলিশ মরদেহ উদ্ধার করে মর্গে প্রেরণ করেছে। এই ঘটনায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।