কুসিক নির্বাচন : নিচ্ছিদ্র নিরাপত্তার বেষ্টনীতে আজ নগর কুমিল্লা

স্টাফ রিপোর্টার
প্রকাশ: ৬ মাস আগে

# কড়া নজরদারীতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী
# সিটি নির্বাচনকে ঘিরে তিন স্তরের নিরাপত্তা
# মাঠে থাকছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সাড়ে ৩ হাজার সদস্য
আজ ১৫ জুন বুধবার কুমিল্লা সিটি করপোরেশন (কুসিক) নির্বাচনকে কেন্দ্র করে নিরাপত্তার চাদরে ঢাকা হচ্ছে নগর কুমিল্লাকে। গড়ে তোলা হয়েছে নিচ্ছিন্দ্র নিরাপত্তা বেষ্টনী। আজ ভোটের দিন ছাড়াও ভোটকেন্দ্রের নিরাপত্তা নিশ্চিতে আরো দুই দিন মাঠে থাকবে বিভিন্ন আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। এ দিকে, মঙ্গলবার সকালে কুমিল্লা জিলা স্কুল অডিটোরিয়াম থেকে নির্বাচনে ভোটগ্রহণের সরঞ্জাম বিতরণ কৱা শুরু হয়েছে।
আজ ভোট উৎসবকে কেন্দ্র করে আনন্দের পাশাপশি শঙ্কাও কাজ করছে ভোটারদের মধ্যে। কি হবে আজ কুমিল্লায়। ভোট সুষ্টু হবে তো। না কি কেন্দ্র শান্তিপূর্ন বাহিরে ভোটারদের আটকিয়ে দেওয়া হবে। এই সকল ভাবনা পেয়ে বসেছে ভোটারদের মনে। তাই নির্বাচনী পরিবেশ নির্বিঘ্ন রাখতে নগরজুড়ে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর বাড়তি তৎপরতা দেখা গেছে কুমিল্লা সিটি করপোরেশন এলাকার ২৭ টি ওয়ার্ডে।
সোমবার (১৩ জুন) সন্ধ্যার পর থেকেই নগরজুড়ে বাড়তি পুলিশ ও র‌্যাব সদস্যদের উপস্থিতি লক্ষ্য করা গেছে। বিশেষ করে নগরীর ভোটকেন্দ্রের আশপাশের এলাকায় বাড়তি সতর্কতা রয়েছে।
শহরে গুরুত্বপূর্ণ এলাকা ও বিভিন্ন পয়েন্টে চেকপোস্ট স্থাপন করে তল্লাশি করতে দেখা গেছে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের। র‌্যাব-পুলিশের পাশাপাশি সার্বিক নিরাপত্তায় টহল দিতে দেখা গেছে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের (বিজিবি) সদস্যদের। পোশাকধারী আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর পাশাপাশি নগরজুড়ে বিপুল সংখ্যক সাদা পোশাকের সদস্যরা দায়িত্বপালন করছেন।
কুমিল্লা জেলা পুলিশ জানায়, সিটি করপোরেশন নির্বাচন শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত নির্বিঘ্নে সম্পন্ন করতে ব্যাপক প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে। মোট আইনশৃঙ্খলায় বাহিনীর সদস্য মোতায়ান রয়েছে ৩ হাজার ৬ শত ০৮ জন, এছাড়ার পুলিশ ৭৫টি চেকপোস্ট রয়েছ নগরজুড়ে।পাশাপাশি কাজ করছেন প্রায় ১০৫ টি মোবাইল টিম। এছাড়া বাংলাদেশের বিজিবি ১২প্লাটুন ও অর্ধশতাধিক নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও নয় জন জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মোতায়ান রয়েছে।পুলিশের পাশাপাশি আইন-শৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রণে র‌্যাব, আনসার বাহিনী, বিজিবি ও অন্যান্য গোয়েন্দা সংস্থা সমন্বিতভাবে কাজ করে যাচ্ছে।
নির্বাচন ঘিরে যেকোনো অপতৎপরতা এড়াতে বিভিন্ন মামলার পরোয়ানাভুক্ত আসামিরাসহ নজরদারিতে রয়েছে বিভিন্ন সংগঠনের কর্মকাণ্ড। নগরীর ভোটার ছাড়া বহিরাগতদের তৎপরতার বিষয়ে সজাগ দৃষ্টি রয়েছে। এছাড়া, পুলিশের বিভিন্ন ইউনিটের সাইবার ক্রাইম টিমের মনিটরিংয়ের আওতায় রয়েছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম।
ইসি সূত্রে জানায় যায়, সোমবার (১৩ জুন) থেকে পরবর্তী চার দিন বিভিন্ন বাহিনীর ১৫ জনের ফোর্স ভোটকেন্দ্রে নিয়োজিত থাকবে। তবে ঝুঁকিপূর্ণ কেন্দ্রগুলোতে ১৬ জনের ফোর্স থাকবে। এ ছাড়া ভোটের এলাকা নিয়ন্ত্রণে র‌্যাব ও বিজিবি মাঠে থাকবে।সিটি নির্বাচন ঘিরে থাকছে তিন স্তরের নিরাপত্তাবলয়। এগুলো হল-নির্বাচনপূর্ব, নির্বাচনকালীন ও নির্বাচন-পরবর্তী নিরাপত্তা ব্যবস্থা। ইতিমধ্যে ঝুঁকিপূর্ণ ভোটকেন্দ্র ও তার আশপাশের এলাকা গোয়েন্দা নজরদারির আওতায় এসেছে।
এছাড়া সাধারণ ভোটকেন্দ্রে ৩ জন পুলিশ, আনসার ও ভিডিপিসহ মোট ১৫ জন নিয়োজিত থাকছে। এদের মধ্যে ৫ জনের সঙ্গে অস্ত্র থাকবে। আর ঝুঁকিপূর্ণ ভোটকেন্দ্রে ৪ জন পুলিশ, আনসার ও ভিডিপি সদস্য থাকবে ১৬ জন। এদের মধ্যে ৬ জনের সঙ্গে অস্ত্র থাকবে।
এ ছাড়া ভোটের এলাকায় নিরাপত্তা নিশ্চিত করার জন্য পুলিশ, আনসার ও ব্যাটেলিয়ন আনসারের সমন্বয়ে গঠিত টিম কাজ করবে। র‌্যাবের ২৭টি মোবাইল টিম ও ১২ প্লাটুন বিজিবি নিয়োজিত থাকছে। অন্যান্য বাহিনীও একই সময়ের জন্য নিয়োজিত থাকবে।
কুমিল্লা পুলিশ সুপার ফারুক আহমেদ জানান,ভোটরা যাতে সুন্দরভাবে ভোট দিতে আসতে পারে আমরা সমগ্র সিটি এলাকায় নিরাপত্তা চাদরে ডেকে রেখেছি। এছাড়া বিজিবি,র‌্যাব, পুলিশ, আনসার ও ব্যাটেলিয়ন আনসারে পাশাপাশি নির্বাচনের কেন্দ্র গুলোতে থাকবে সাদা পোশাকের পুলিশ।
উল্লেখ্য, আজ ১৫ জুন কুসিক নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। নির্বাচনে ইভিএমে ভোটগ্রহণ হবে। মোট ১০৫টি কেন্দ্রের ৬০৪টি ভোটকক্ষে ভোটগ্রহণ করবে ইসি। এতে পাঁচজন মেয়র প্রার্থীসহ ১৪০ জনের মতো কাউন্সিলর প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।