চৌদ্দগ্রামে পূর্ব বিরোধের জের ধরে হামলা-লুটপাট, নারী সহ আহত ৫

স্টাফ রিপোর্টার
প্রকাশ: ৫ মাস আগে

কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামে জোর পূর্বক জায়গা দখল করে রাস্তা নির্মাণের চেষ্টায় বাধা প্রদান করায় প্রতিপক্ষের হামলা-স্বর্ণারঙ্কার লুটপাট ও নারীসহ আহত ৫।

গতকাল বুধবার (১০ অক্টোবর চৌদ্দগ্রাম উপজেলার কনকাপৈত ইউনিয়নের জাকজুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটেছে । এ ঘটনায় আহত ইলিয়াছ হোসেন বাদী হয়ে ৪ জনের নাম উল্লেখপূর্বক অজ্ঞাতনামা আরো ৪/৫ জনের বিরুদ্ধে থানায় একটি অভিযোগ (এসডিআর নং ৩৪০২-২৩) দায়ের করেন।

অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, গতকাল বুধবার (১১ অক্টোবর) সকাল অনুমান সোয়া সাতটায় উপজেলার জাকজুর গ্রামের সফিকুর রহমানের ছেলে মহিন উদ্দিন শিবুল ও মো: সবুজ জোরপূর্বক একই গ্রামের মৃত আব্দুল মালেকের ছেলে আব্দুল মতিন ও জামাল উদ্দিনের জায়গায় রাস্তা নির্মাণ করতে গেলে তারা বাধা প্রদান করেন। এতে শিবলু ও সবুজ ক্ষিপ্ত হয়ে পরিবারের অন্য সদস্য এবং অজ্ঞাতনামা আরো ৪/৫ জন সহ পূর্বপরিকল্পিতভাবে সংঘবদ্ধ হয়ে দা-ছেনি, লোহার রড, হাতুড়ি ও দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে অতর্কিত হামলা চালায়। হামলায় মৃত আব্দুল মালেকের ছেলে আব্দুল মতিন, জামাল উদ্দিন ও ইলিয়াছ, জামাল উদ্দিনের স্ত্রী রুবিয়া বেগম এবং আব্দুল মতিনের স্ত্রী সাজেদা বেগম গুরুতর আহত হন। এ সময় রুবিয়ার গলায় থাকা ১২ আনা ওজনের একটি স্বর্ণের চেইন ছিনিয়ে নেয় হামলাকারীরা। পরে স্থানীয়দের সহযোগিতায় আহতদের উদ্ধার করে প্রথমে চৌদ্দগ্রাম উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গিয়ে চিকিৎসা দেয়া হয়। পরে অবস্থা বেগতিক দেখে গুরুতর আহত জামাল উদ্দিন, তার স্ত্রী রুবিয়া বেগম, আব্দুল মতিন ও তার স্ত্রী সাজেদা বেগমকে দ্রুত কুমিল্লা মেডিকেল হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়। তার এখনো সেখানে চিকিৎসাধিন রয়েছেন বলে জানা গেছে। বুধবার বিকালে হামলার ঘটনায় আহত মো: ইলিয়াছ বাদী হয়ে চৌদ্দগ্রাম থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেন। এ ঘটনায় এলাকায় বেশ চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে।

এ বিষয়ে মো: ইলিয়াছ জানান, ‘শিবলু ও সবুজদেরকে আমরা হাটাচলার জন্য রাস্তার জায়গা দেই। তারা আমাদের জায়গায় জোরপূর্বক পাকা রাস্তা করতে গেলে আমরা বাধা প্রদান করি। আজকে তারা পূর্ব পরিকল্পিতভাবে আমাদের উপর হামলা চালায়। এ ঘটনায় ৫ জন গুরুতর আহত হই। আমি এ ন্যাক্কারজনক হামলার বিচার চাই। দোষিদের আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির জন্য প্রশাসনের নিকট জোর দাবি জানাচ্ছি।’

কনকাপৈত পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের উপ-পুলিশ পরিদর্শক মাহফুজুর রহমান বলেন, ‘হামলার সাথে জড়িত সবুজ নামে একজনকে আটক করা হয়েছে। তদন্ত সাপেক্ষে দোষিদের আইনের আওতায় আনা হবে।’

চৌদ্দগ্রাম থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) ত্রিনাথ সাহা বলেন, ‘অভিযোগ পেয়েছি। তদন্ত সাপেক্ষে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।’