চৌদ্দগ্রামে বড় ভাইকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ ছোট ভাই গ্রেফতার

চৌদ্দগ্রাম প্রতিনিধি ।।
প্রকাশ: ৫ মাস আগে

কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামে জমি সংক্রান্ত বিরোধের জেরে নাদিম হোসেন (৩৫) নামে এক যুবককে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ উঠেছে তারই ভাই নাঈমের বিরুদ্ধে। ঘটনাটি ঘটেছে শুক্রবার (৬ অক্টোবর) সন্ধ্যায় চৌদ্দগ্রাম পৌরসভাধিন রামচন্দ্রপুর পূর্ব পাড়ায়। রাতেই নাদিমের স্ত্রী থানায় মামলা দায়ের করলে গভীর রাতে দেবর নাঈমকে গ্রফতার করেছে চৌদ্দগ্রাম থানা পুলিশ। শনিবার বিকেলে বিষয়টি নিশ্চিত করেছে চৌদ্দগ্রাম থানা অফিসার ইনচার্জ (ওসি) ত্রিনাথ সাহা।
নিহতের স্ত্রী শাহিনুর জানান, ‘শুক্রবার সকাল সাড়ে ১১টায় জমি সংক্রান্ত বিষয় নিয়ে আমার স্বামী নাদিম তার মায়ের সাথে বাগবিতন্ডায় লিপ্ত হয়। একপর্যায়ে সে তার মাকে ধাক্কা দিলে আমার দেবর নাঈম ক্ষিপ্ত হয়ে আমার স্বামীর উপর হামলা করে তাকে কাঠ দিয়ে গুরুতর আহত করে। এ সময় আমার শ্বাশুড়ী ও ঝাঁ (নাঈমের স্ত্রী) তার উপর হামলা চালায়। তার শোর চিৎকার শুনে প্রতিবেশিরা এগিয়ে আসলে তাকে উদ্ধার করে ঘরে নিয়ে আসি। প্রাথমিক চিকিৎসার পর বিকালে আমার স্বামী আমাকে জানায়, আমার প্রচন্ড খারাপ লাগছে, আমাকে হাসপাতালে নাও। হাসপাতালে নেয়ার প্রস্তুতি নিতে নিতে সন্ধ্যার পরে আমার স্বামী মারা গেছে। আমার দেবর নাঈম আমার স্বামীকে পিটিয়ে হত্যা করেছে। আমি এ হত্যার বিচার চাই।
নিহতের ছেলে সাকিব জানান, ‘সকালে বাবার সাথে আমার কাকার মারামারির খবর পেয়ে বাড়িতে এসে আমি নিজেও আঘাত পাই। পরে পরিস্থিতি শান্ত হলে আমি জুমআর নামাজ পড়ে সুয়াগাজী আমার খালার বাসায় যাই। বাবার অবস্থা খারাপ শুনে সন্ধ্যায় বাড়িতে চলে আসি। এসে দেখি বাবা আর নেই।
এ বিষয়ে অভিযুক্ত নাঈম বলেন, ‘আমার মাকে মেরেছে শুনে আমি বাড়িতে এসে এর কারণ জিজ্ঞেস করলে নাদিম ভাই আমার উপর আক্রমণ করে। কাঠ দিয়ে পিটিয়ে সে আমার হাত ভেঙ্গে ফেলে। পরে স্থানীয়দের সহযোগিতায় আমি হাসপাতালে গিয়ে চিকিৎসা গ্রহণ করি। এ বিষয়ে আমি থানায় অভিযোগ দিতে যাই। এর মধ্যে শুনি আমার ভাই নিজ ঘরে মারা গেছে।
চৌদ্দগ্রাম থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) ত্রিনাথ সাহা বলেন, খবর পেয়ে সুরতহাল শেষে নিহতের লাশ থানায় নিয়ে আসা হয়েছে। তার ডান পায়ের নিচে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। ময়নাতদন্তের রিপোর্টে মৃত্যুর কারণ জানা যাবে। রাতেই নাদিমের স্ত্রী মামলা দায়ের করেছে৷ গভীর রাতে অভিযুক্ত নাঈমকে গ্রেফতার করা হয়েছে।