তিতাসে যুবলীগ নেতার হত্যার ঘটনায় ২দিনে হয়নি মামলা : নেই কোন গ্রেফতার

স্টাফ রিপোর্টার
প্রকাশ: ১০ মাস আগে

কুমিল্লার দাউদকান্দি উপজেলার গৌরিপুর বাজারে ৩০ এপ্রিল রাত ৮টার দিকে জেলার তিতাস উপজেলার যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক জামাল হোসেন সরকারকে অস্ত্রধারী সন্ত্রাসীরা গুলি করে হত্যা করে। হত্যার ঘটনায় ২দিন অতিবাহিত হলেও এখনো থানায় হত্যাকান্ডের কোন মামলা হয়নি। পুলিশ ঘটনার সাথে জড়িত সন্দেহে গতকাল মঙ্গলবার বেলা ৩টার সময় এ রিপোর্ট লেখার আগ পর্যন্ত কাউকে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়নি। ফলে পুলিশের ভুমিকা নিয়ে জনমনে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে।
হত্যার পরের দিন সোমবার বিকালে কুমিল্লা পুলিশ সুপার মোঃ আব্দুল মান্নান স্থানীয় গৌরীপুর বাজারের যুবলীগ নেতার হত্যার ঘটনাস্থল পুরিদর্শন করেছেন। দাউদকান্দি মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ আলমগীর হোসেন ভূঁঞা গতকাল মঙ্গলবার বলেছেন, হত্যার ঘটনার সাথে জড়িত ব্যক্তিদের গ্রেফতারে, পুলিশ, র‌্যাব, ডিবি পুলিশ সহ বিভিন্ন সংস্থা কাজ করছেন। মামলা প্রসঙ্গে ওসি আলমগীর ভূঁঞা বলেন, মঙ্গলবার যে কোনো সময় থানায় মামলা রেকর্ড হতে পারে। সন্ত্রাসীদের গুলিতে তিতাস থানার যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক জামাল হোসেন সরকার (৩৯) কে সোমবার বিকালে ময়না তদন্তের পর নামাজে জানাযা শেষে জিয়ারকান্দি কবরস্থানে দাফন করা হয়েছে।
স্থানীয় গৌরীপুর পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ ওসি আসাদুজ্জামান মঙ্গলবার বলেছেন, রবিবার রাত সোয়া ৮টার দিকে গৌরিপুর বাজার মসজিদে এশার নামাজ পড়তে যাচ্ছিলেন। এ সময় বোরকা পরিহিত তিনজন সন্ত্রাসীরা তাকে লক্ষ্য করে এলোপাতারি ভাবে গুলি করে পালিয়ে যায়। স্থানীয়রা যুবলীগ নেতা কে উদ্ধার করে প্রথমে দাউদকান্দি উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রে নিয়ে গেলে তার অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে ঢাকায় রেফার করেন। পরে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের জরুরি বিভাগে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক রাত সোয়া ১০টায় তাকে মৃত ঘোষণা করেন।
সন্ত্রাসী হামলায় নিহত জামালের স্ত্রী পপি আক্তার জানান, তাদের বাড়ি দাউদকান্দির গৌরিপুর গ্রামে। জামালের বাবার নাম বজলুল হক। জামাল তিতাস থানা যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক ছিলেন। ঘটনাস্থলে এখনো অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন রয়েছে।
এদিকে, ঘটনার দুই দিন অতিবাহিত হলেও এখনো পুলিশ কাউকে গ্রেফতার করতে না পাওয়ায় পুলিশের ভুমিকা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন স্থানীয়রা। নাম প্রকাশ না করার শর্তে নিহত জামালের স্বজন ও বাজারের কয়েকজন ব্যবসায়ী বলেন, আমাদের পুলিশ অনেক চৌকশ। কিন্তু ঘটনার দুই দিন হয়ে গেল। এখনো কোন আসামী গ্রেফতার হয়নি এমনকি খুনের ঘটনাও উদ্ঘাটন হয়নি।