নৌকার গণসংযোগে একাত্তর টিভির দুই সাংবাদিককে লাঞ্চিত, মোবাইল ছিনতাই

কুমিল্লা-৬ {সদর}
স্টাফ রিপোর্টার
প্রকাশ: ৬ মাস আগে

আসন্ন দ্বাদশ জাতীয় নির্বাচনের আনুষ্ঠানিক প্রচারনার তৃতীয় দিন সকালেই নৌকা প্রতীকের গণসংযোগে একাত্তর টিভির দুই সাংবাদিককে শারিরিক ভাবে লাঞ্চিত করা হয়েছে এবং তাদের ব্যবহৃত মোবাইল ছিনিয়ে নিয়ে গেছে। ঘটনাটি ঘটেছে আজ বুধবার সকাল ১১১টায় কুমিল্লা স্টেডিয়াম মার্কেটে।
একাত্তর টিভির কুমিল্লা প্রতিনিধি এনামুল হক ফারুক জানান, আজ বুধবার সকালে কুমিল্লা মহানগর আওয়ামীলীগের সভাপতি ও নৌকা প্রতীক নিয়ে কুমিল্লা সদর আসন থেকে নির্বাচন করা হাজী আকম বাহা উদ্দিন বাহার এমপির কুমিল্লা স্টেডিয়াম মার্কেটে একটি গণসংযোগ ছিল। একাত্তর টিভিতে এই গণসংযোগটি কভার করার জন্য ক্যামেরা পার্সন সাইদুর রহমান সোহাগসহ আমি হাজির হই এবং যথারিতী পেশাগত দায়িত্ব পালন করি। এমপি মহোদয় সংক্ষিপ্ত বক্তব্য শেষে যখন গণসংযোগ শুরু করেন তখন এটি ক্যামেরায় ধারণ করার সময় গণসংযোগ থেকে নৌকার নেতাকর্মীরা আমাদের ক্যামেরা পার্সন সোহাগের উপর অতর্কিত হামলা করে এবং তার মোবাইল ছিনিয়ে নিয়ে যায়। এ সময় আমি এগিয়ে আসলে আমিও লাঞ্চনার শিকার হই। এমপি বাহার অভিযোগ করেন আমি নাকি একাত্তর টিভিতে তার বক্তব্য খন্ডিত ভাবে প্রচার করেছি। এ বিষয়ে আমি আমার অফিসকে অবহিত করেছি। অফিসের সিদ্ধান্ত আসলে পরবর্তী ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের কুমিল্লা-৬ আসনের মনোনীত প্রার্থী হাজি আকম বাহা উদ্দিন বাহার এবং তার নির্বাচনী প্রধান এজেন্ট মহানগর আওয়ামীলীগের সিনিয়র যুগ্ম সম্পাদক আতিক উল্লাহ খোকনের সেল ফোনে একাধিকবার ফোন করেও রিসিভ না করায় তাদের বক্তব্য পাওয়া যায়নি।
অপর দিকে, কুমিল্লা মহানগর আওয়ামীলীগের যুগ্ম সম্পাদক নৌকা প্রতীকের নির্বাচন পরিচালনা কমিটির অন্যতম সদস্য এড. সৈয়দ নুরুর রহমান বলেছেন, আমি এখনো এই ঘটনা শুনিনি। জেনে জানাতে পারব।
এ দিকে, একাত্তর টিভির কুমিল্লা প্রতিনিধি এনামুল হক ফারুক জানিয়েছেন, নৌকার প্রধান এজেন্ট মহানগর আওয়ামীলীগের সিনিয়র যুগ্ম সম্পাদক আতিক উল্লাহ খোকন মোবাইল ফোনটি ফিরিয়ে দেওয়ার আশ^াস দিয়েছেন।
এ দিকে, পেশাগত দায়িত্ব পালন কালে একাত্তর টিভির দুই সাংবাদিকের উপর হামলার ঘটনার তীব্র নিন্দা জানিয়েছেন বাংলাদেশ সাংবাদিক সমিতি কুমিল্লার সভাপতি ইয়াসমীন রীমা ও সাধারণ সম্পাদক শাহাজাদা এমরান। এক বিবৃতিতে সাংবাদিক নেতৃবৃন্দ বলেন, পেশাগত দায়িত্ব পালন কালে সাংবাদিকের উপর হামলা স্বাধীন গলমাধ্যমের জন্য হুমকি স্বরূপ। নেতৃবৃন্দ, একই ঘটনার যেন আর পূনরাবৃত্তি না হয় এবং যারা সাংবাদিকের উপর হামলা করেছে তাদের দৃষ্টান্ত মূলক শাস্তি দাবি করেছেন।