মনোহরগঞ্জে মাদ্রাসা শিক্ষার্থীকে ধর্ষণ, সপ্তাহ ঘুরলেও অধরা অভিযুক্ত

স্টাফ রিপোর্টার
প্রকাশ: ৭ মাস আগে

মনোহরগঞ্জ প্রতিনিধি ।। মনোহরঞ্জ উপজেলার হাসনাবাদ গ্রামে এক মাদ্রাসা শিক্ষার্থী ধর্ষণের শিকার হয়েছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় শিশুটির চাচা বাদী হয়ে থানায় মামলা দায়ের করেছেন। তবে ঘটনার সাতদিন পার হলেও এখন অভিযুক্ত ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করতে পারেনি পুলিশ।
অভিযুক্ত লুৎফুর রহমান (৫০) হাসনাবাদ গ্রামের মৃত টুকু মিয়ার ছেলে। একই গ্রামের বাসিন্দা নির্যাতিত শিশু ছেলেটি নোয়াখালীর চৌমুহনীর একটি মাদ্রাসায় পড়াশোনা করে। ঈদের ছুটিতে বাড়িতে এসে ধর্ষণের শিকার হয় সে।
নির্যাতিত শিশুটির চাচা বলেন, গত ৩০ এপ্রিল রাত ১০টার দিকে লুৎফুর রহমান ১১ বছর বয়সী শিশুটিকে ঘরের সামনে থেকে ডেকে নিয়ে যায়। এরপর পাশের কাশেম মিয়ার বাগানে নিয়ে তাকে ধর্ষণ করে। এ ঘটনায় শিশুটি অসুস্থ হয়ে পড়লে বিষয়টি তার মাকে জানায়। পরে শিশুর মা লুৎফুরের স্ত্রীকে বিষয়টি জানালে তারা ক্ষিপ্ত হয়ে উঠে। এক পর্যায়ে লুৎফুরের লোকজন ওইদিন রাতেই শিশুদের বাড়িতে অতর্কিত হামলা চালায়। এ সময় শিশুটির পরিবারের পাঁচজনকে পিটিয়ে ও কুপিয়ে গুরুতর আহত করে হামলাকারীরা।
শিশুটির মা বলেন, আমি লম্পট লুৎফুর রহমানের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি চাই। পাশাপাশি যারা হামলা করেছে তাদের বিচার চাই। কিন্তু ঘটনার এক সপ্তাহ পার হলেও পুলিশ লুৎফুর রহমানকে গ্রেপ্তার করতে পারেনি। উল্টো তার লোকেরা আমাদেরকে মামলা তুলে নিতে হুমকি দিচ্ছে।
মামলার তদন্ত কর্মকর্তা মনোহরগঞ্জ থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মো.মিজানুর রহমান বলেন, নির্যাতিত শিশুটির পরিবার থানায় মামলা করেছে ২ মে। আমরা আসামিকে গ্রেপ্তারে বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়েছি। কিন্তু তিনি এলাকা থেকে পলাতক রয়েছে। আশা করছি দ্রুত সময়ের মধ্যে তাকে গ্রেপ্তার করা সম্ভব হবে।